১ কার্তিক  ১৪২৬  শনিবার ১৯ অক্টোবর ২০১৯ 

BREAKING NEWS

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

১ কার্তিক  ১৪২৬  শনিবার ১৯ অক্টোবর ২০১৯ 

BREAKING NEWS

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: মনোভাব না বদলালে প্রাক্তন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী চিদম্বরমের মতো অবস্থা হবে। শনিবার পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীকে হুঁশিয়ারি দিয়ে এই মন্তব্যই করলেন এক বিজেপি বিধায়ক। উত্তরপ্রদেশের বালিয়ার ওই বিধায়কের নাম সুরেন্দ্র সিং।

[আরও পড়ুন: একটানা গুলির লড়াইয়ে সাফল্য, সুকমায় খতম ৩ মাওবাদী]

দীর্ঘদিন ধরেই এনআরসির বিরোধিতা করে আসছেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শনিবারও এনআরসি বাতিলের দাবিতে কলকাতার রাস্তায় মিছিল করেন তিনি। এপ্রসঙ্গে প্রশ্ন করা হয়েছিল সুরেন্দ্র সিংকে। আর তার প্রেক্ষিতেই পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীকে আক্রমণ করেন তিনি। পশ্চিমবঙ্গে এনআরসি করা হবে বলেও দাবি করেন। বলেন, ‘পশ্চিমবঙ্গে এনআরসি হবেই। তবে মমতা যদি নিজের ভোট ব্যাংক অটুট রাখতে বাংলাদেশিদের রক্ষা করতে চান, তাহলে উনি বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী হয়ে যান। এখন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের খারাপ সময় চলছে। তাই ওনার নিজের মুখের ভাষা ঠিক করা উচিত। বাংলাদেশিদের সমর্থনে রাজনীতি করতে চাইলে উনি বাংলাদেশে চলে যান। সত্যিই যদি ওনার ওই দেশের প্রতি টান থাকে তাহলে ওখানকার প্রধানমন্ত্রী হয়ে যান।’

২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে বাংলা থেকে ভাল ফল করেছে বিজেপি। ২০১৪ সালে যেখানে ২টি মাত্র আসন ছিল সেখানে ২০১৯ সালে এসেছে ১৮টি। গতকাল এই বিষয়টিও উল্লেখ করেন বালিয়ার বিধায়ক। বলেন, ‘শ্রীলঙ্কার মানুষ হনুমানজিকে সেখানে ঢুকতে দিতে চায়নি। কিন্তু, হনুমানজি ঠিক সেখানে পৌঁছে গিয়েছিলেন। সেই একইরকম ভাবে পশ্চিমবঙ্গে ঢুকেছিলেন যোগী ও অমিত শাহ। এর ফলে ওখানে অনেক আসন পেয়েছি আমরা। মমতা হল বাংলার রাজনৈতিক রানী(লঙ্কিনী)। তবে এখন সেখানে ঢুকে পড়েছেন রাম। তাই খুব তাড়াতাড়ি সরকার পরিবর্তন হবে। আর তারপর বাংলায় বাস্তবায়িত হবে এনআরসি। তখন সমস্ত বাংলাদেশিকে দু’প্যাকেট খাবার দিয়ে সসম্মানে তাঁদের বাড়িতে পাঠিয়ে দেওয়া হবে।’

[আরও পড়ুন: সংসদীয় কমিটিতে বড়সড় রদবদল, স্থান পেলেন বাংলার ৯ বিজেপি সাংসদ]

বিদেশি নাগরিকরা যাতে ভারতীয় ভোটে প্রভাব বিস্তার না করতে পারে সেই বিষয়টিও খেয়াল রাখতে বলে তিনি। এপ্রসঙ্গে ফের একবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সমালোচনা করেন। হুমকি দিয়ে বলেন, ‘মমতাকে আমরা ভারতে থাকতে দিতে রাজি। কিন্তু, যদি দেশ বিরোধীদের থেকে অনুপ্রাণিত হন তাহলে তাঁকে শিক্ষা দেওয়া হবে।’

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং