২৪  মাঘ  ১৪২৯  বুধবার ৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ 

READ IN APP

Advertisement

‘মুসলিম অধ্যুষিত কাশ্মীরে হিন্দুদের আধিপত্য বাড়াতে চায় বিজেপি’, বিস্ফোরক ফারুখ আবদুল্লা

Published by: Soumya Mukherjee |    Posted: August 31, 2020 2:02 pm|    Updated: August 31, 2020 2:02 pm

BJP wants a Hindu majority to emerge in J&K: Farooq Abdullah

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: মুসলিম অধ্যুষিত জম্মু ও কাশ্মীরে হিন্দুদের আধিপত্য বাড়াতে চায় বিজেপি। তাই ধর্মীয় কারণেই জম্মু ও কাশ্মীরকে ভেঙে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল বানানো হয়েছে বলে অভিযোগ করলেন কাশ্মীরের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ফারুখ আবদুল্লা (Farooq Abdullah) । সর্বভারতীয় একটি সংবাদমাধ্যমকে সাক্ষাৎকার দিতে গিয়ে এই মন্তব্য করেন ন্যাশনাল কনফারেন্সের প্রধান। এই কারণেই গত মার্চে জম্মু ও কাশ্মীর, অসম, অরুণাচল প্রদেশ, মণিপুর ও নাগাল্যান্ডের লোকসভা ও বিধানসভা আসনগুলিতে জনগণনার জন্য কেন্দ্র একটি কমিশন গঠন করেছে বলেও জানান তিনি।

কেন্দ্রের এই উদ্দেশ্যের কথা স্পষ্ট হওয়ার পরেই গত মে মাসে ন্যাশনাল কনফারেন্স (NC) এই কমিশন থেকে বেরিয়ে আসে বলেও দাবি করেন ফারুখ আবদুল্লা। এপ্রসঙ্গে বলেন, ‘এই বিষয়টি বুঝতে পারার পরেই আমরা তাদের মুখের উপর স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছি যে এইভাবে কোনও এলাকার সীমা নির্ধারণের বিষয়ে আমরা একমত নই। আসলে নির্দিষ্ট একটি লক্ষপূরণের জন্য এই কাজ করছে বিজেপি। তারা চায় জম্মু ও কাশ্মীরে ক্রমশ মুসলিমদের সংখ্যা কমিয়ে হিন্দুদের আধিপত্য বাড়াতে।’

[আরও পড়ুন: বকলমে চিনের হয়ে কাজ! ভারতের হুঁশিয়ারিতে সুর নরম ASEAN গোষ্ঠীর]

তবে যত চেষ্টাই করুক বিজেপির এই উদ্দেশ্য কোনওদিন সফল হবে না বলে দাবি করে তিনি আরও বলেন, ২০২৬ সালে গোটা দেশে লোকসভা ও বিধানসভাগুলির পুর্নবিন্যাস হওয়ার কথা। কিন্তু, নির্দিষ্ট লক্ষ্যপূরণ করার জন্য বিজেপি (BJP) কাশ্মীরে তা আগেই করে ফেলতে চাইছে। কেন ও কী কারণে তারা আচমকা এই সিদ্ধান্ত নিল তা সামনে আনতে হবে। আসলে তারা হিন্দু ও মুসলিমদের মধ্যে বিভাজন সৃষ্টি করে আমাদের আলাদা করতে চাইছে। কাশ্মীরে বিস্তার করতে চাইছে হিন্দু আধিপত্য। কিন্তু, সেটা কোনওদিনই সম্ভব হবে না।

[আরও পড়ুন: আরও বিপাকে বিজয় মালিয়া, লিকার ব্যরনের ‘ভিত্তিহীন’ আরজি খারিজ সুপ্রিম কোর্টে]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে