৫ মাঘ  ১৪২৭  মঙ্গলবার ১৯ জানুয়ারি ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

BSF-এর তৎপরতায় বানচাল অনুপ্রবেশের ছক, কাশ্মীরে খতম পাকিস্তানি জঙ্গি

Published by: Soumya Mukherjee |    Posted: November 23, 2020 9:42 pm|    Updated: November 23, 2020 9:51 pm

An Images

ফাইল ফটো

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ভারতীয় নিরাপত্তারক্ষীদের তৎপরতায় ফের বানচাল হল পাকিস্তানি জঙ্গিদের ভারতে অনুপ্রবেশের চেষ্টা। তাদের ছক বানচাল করার পাশাপাশি একজন অনুপ্রবেশকারীকেও খতম করেছেন বিএসএফ জওয়ানরা। সোমবার ঘটনাটি ঘটেছে জম্মু ও কাশ্মীরের সাম্বা সেক্টরে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, নাগরোটা (Nagrota) এনকাউন্টারের পর থেকেই সাম্বা সেক্টরে নজরদারি আরও বাড়ানো হয়েছে। সমস্ত এলাকায় চিরুনি তল্লাশি চালাচ্ছেন ভারতীয় নিরাপত্তারক্ষীরা। গতকালই সাম্বা জেলার আন্তর্জাতিক সীমান্ত এলাকায় ১৫০ মিটার লম্বা একটি সুড়ঙ্গ খুঁজে পান তাঁরা। এই পথ দিয়ে জঙ্গিরা পাকিস্তান থেকে ভারতে অনুপ্রবেশ করেছিল বলে মনে করছেন অনেকে। বিএসএফ এবং জম্মু ও কাশ্মীর পুলিশ অনুপ্রবেশ হওয়ার পরেই কেন সুড়ঙ্গ খুঁজে পাচ্ছে তা নিয়েও অনেকে প্রশ্ন তুলেছেন। বিষয়টি নিয়ে যখন ভূস্বর্গে জোর আলোচনা চলছে ঠিক তখনই সাম্বা (Samba) সেক্টরের নিয়ন্ত্রণ রেখা টপকে ভারতে অনুপ্রবেশের চেষ্টা চালাচ্ছিল এক পাকিস্তানি জঙ্গি। কিন্তু, তার সেই উদ্দেশ্যপূরণ হয়নি। তার আগেই তাকে গুলি করে খতম করেন বিএসএফ (BSF) জওয়ানরা।

[আরও পড়ুন: ১ ডিসেম্বর থেকে দেশে বন্ধ রেল পরিষেবা! ভাইরাল মেসেজ নিয়ে কী জানাল কেন্দ্র?]

বিএসএফ সূত্রে খবর, সোমবার সাম্বা সেক্টর দিয়ে এক জঙ্গি অনুপ্রবেশ করছিল। সেসময় তাকে গুলি করে নিকেশ করেন সেখানে কর্তব্যরত জওয়ানরা। তার বাকি সঙ্গীরা অনু্প্রবেশ করতে পেরেছে কিনা তা খতিয়ে দেখতে গোটা এলাকা ঘিরে তল্লাশি চালানো হচ্ছে।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, সোমবারই নাগরোটা এনকাউন্টার প্রসঙ্গে ফ্রান্স, আমেরিকা ও রাশিয়ার প্রতিনিধিদের সঙ্গে আলোচনা করছিলেন ভারতীয় বিদেশ সচিব হর্ষবর্ধন শ্রিংলা। কীভাবে জম্মুর নাগরোটা গত ১৯ নভেম্বর ভারতীয় নিরাপত্তারক্ষীরা পাকিস্তানের মদতপুষ্ট জইশ-ই-মহম্মদ জঙ্গিদের নাশকতার ছক বানচাল করেছেন তার নথিপত্র দেখাচ্ছিলেন। বিদেশি ওই প্রতিনিধিদের কাছে জঙ্গিদের পাকিস্তানের নাগরিক হওয়ার সমস্ত নথিও দেখানো হয় বলে সূত্রের খবর। এপ্রসঙ্গে তুলে ধরা হওয়া সাম্বা সেক্টরে আবিষ্কৃত হওয়া ১৫০ মিটারের গোপন সুড়ঙ্গের কথাও।

[আরও পড়ুন: ১৫ বছরে বদলে ছিলেন অসমের রূপ, প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীর স্মৃতিচারণায় প্রশংসা বিরোধীদেরও]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement