BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  শনিবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

ভারত পারলেও এমটিসিআর-এ ঢুকতে ব্যর্থ চিন

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: June 28, 2016 2:57 pm|    Updated: June 28, 2016 2:57 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: এনএসজি-তে ভারতের প্রবেশ আটকাতে অনড় অবস্থান নিয়েছিল চিন৷ এবার অন্য পরমাণু ক্লাব এমটিসিআর-এ ঢুকতে গিয়ে নিজেই আটকে গেল৷ এই ক্লাবে মাত্র ক’দিন আগেই ৩৫তম সদস্য দেশ হিসেবে অন্তর্ভুক্তি হয়েছে ভারতের৷ সমস্ত সদস্য দেশের অনুমোদন পেলেই তবেই এখানে চিনের প্রবেশদ্বার খুলবে৷ সেক্ষেত্রে ভারতের সিদ্ধান্ত ও অনুমতির উপরই ঝুলে থাকল চিনের ভাগ্যও৷

এনপিটি-র সদস্য না হওয়ার জেরে ভারতের এনএসজি-তে প্রবেশ আটকেছে চিন৷ আমেরিকা, রাশিয়ার মতো দেশগুলোর সমর্থন সত্ত্বেও কোনওভাবেই সুর নরম করেনি চিন৷ ফলত ভারতের জন্য এনএসজি-র দরজা বন্ধই থাকল৷ তবে এটাকেই শেষ বলে ধরে নেয়নি ভারত৷ বরং এক ধাপ এগিয়ে দেশীয় মিসাইল প্রযুক্তিকেই জোরদার করার প্রয়াস নিয়েছে৷ এরই মধ্যে ভারতের জন্য খোলে এমটিসিআর-এর দরজা৷ নিয়ন্ত্রিত ক্ষেত্রে পরমাণু নিরস্ত্রীকরণ চুক্তি মানতে হলেও, মিসাইল প্রযুক্তি আদানপ্রদানের ক্ষেত্রে সুবিধাজনক জায়গায় চলে আসে ভারত৷ এদিকে আমেরিকার অস্ত্র প্রযুক্তির ৯৯ শতাংশ ভারতকে গ্রহণের অনুমতি দেওয়া হয়েছে৷ এসব সত্ত্বেও কমেনি চিনের ভারত বিরোধিতা৷ ইতিমধ্যেই চিনের সংবাদমাধ্যমে ভারতকে আত্মকেন্দ্রিক হিসেবে সমালোচনা করা হয়েছে৷ এবছরের শেষ দিকে এনএসজি-র সদস্যদেশগুলির এক সম্মেলনে ভারতের অন্তর্ভুক্তির সিদ্ধান্ত পুনরায় বিবেচনা করে দেখা হতে পারে৷ কিন্তু সেখানেও চিনের বিরোধিতা জারি থাকবে বলে বিবৃতি জারি করা হয়েছে৷

কিন্তু ক্রমাগত ভারত বিরোধিতা করতে গিয়ে অবশেষে নিজেই গেরোয় পড়ে গেল চিন৷ কেন না এই মুহূর্তে এমটিসিআর-এ প্রবেশের জন্য চিনের আবেদন আটকে আছে৷ ইতিমধ্যেই ভারত এই ক্লাবের সদস্য হয়ে গিয়েছে৷ অর্থাৎ ভারতের অনুমোদন ব্যতীত চিনের কপালে শিকে ছিঁড়বে না৷ সেক্ষেত্রে এনএসজি-তে ভারতের প্রবেশ নিয়ে চিন কতটা অনড় থাকবে সে প্রশ্ন উঠছে৷ যে পরমাণু নিরস্ত্রীকরণ চুক্তি সই না করা নিয়ে ভারতের বিরোধিতা করেছে চিন, এমটিসিআর-এর দৌলতে তা আংশিক মেনেই নিয়েছে ভারত৷ ফলত চিনের সঙ্গে আবার নতুন করে শুরু হয়েছে আলাপ-আলোচনা৷ বিদেশমন্ত্রকের মুখপাত্র বিকাশ স্বরূপ সে ইঙ্গিত দিয়েই জানান, “দুই দেশের মধ্যে বহুমাত্রিক আলাপ আলোচনা চলছে৷ আশা করা যায় দুই দেশই এক অন্যের স্বার্থরক্ষা করে এই সমস্যার সমাধান করবে৷”

এই পরিস্থিতিতে দুই দেশের সম্পর্কের সমীকরণ যে ভবিষ্যতে দ্রুত হারে বদলে যেতে চলেছে এমনটাই মনে করছে বিশেষজ্ঞমহল৷

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement