BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  শনিবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

গালওয়ানের সংঘর্ষ ‘দুর্ভাগ্যজনক ও বিক্ষিপ্ত ঘটনা’, বরফ গলাতে কৌশলী চাল চিনা রাষ্ট্রদূতের

Published by: Subhamay Mandal |    Posted: August 26, 2020 1:49 pm|    Updated: August 26, 2020 1:54 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: গালওয়ানের সংঘর্ষে শহিদ হয়েছিলেন ২০ জন ভারতীয় সেনা। সেই রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষকে দুর্ভাগ্যজনক এবং ইতিহাসের দৃষ্টিকোণ থেকে বিক্ষিপ্ত ঘটনা ব্যক্ত করে ভারত-চিন দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক মেরামতির কথা বললেন চিনা রাষ্ট্রদূত সুন ওয়েইডং। গত ১৮ আগস্ট একটি ওয়েবিনারে এই মন্তব্য করেন সুন। গতকাল মঙ্গলবার সেই বিবৃতি প্রকাশ করেছে দূতাবাস। ঐতিহাসিক দৃষ্টিভঙ্গি থেকে গালওয়ানের ঘটনা বিক্ষিপ্ত। তবে ২০ জন ভারতীয় সেনার শহিদ হওয়ার ঘটনা দুর্ভাগ্যজনক বলেও মন্তব্য করেছেন তিনি।

ওয়েবিনারে তিনি ইতিহাসবিদ, পড়ুয়াদের সঙ্গে ভারচুয়াল কথোপকথনে জানিয়েছেন, “ভারত-চিন দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক মজবুত হয়েছে পারস্পরিক মত ও সংস্কৃতির আদানপ্রদানের মধ্যে দিয়ে। প্রায় ৭০ বছর ধরে দুই দেশের মধ্যে সম্পর্ক অটুট। কোনও বিক্ষিপ্ত ঘটনা সাময়িক ছেদ ফেলতে পারে সম্পর্কে, পাকাপাকিভাবে নয়।” তবে তিনি এও বলেছেন, “সম্পর্কে ফাটল পারস্পরিক আলাপ-আলোচনা, বুদ্ধিমত্তার সঙ্গে মেরামত করা যায়। এটা কোনও বড় বিষয় নয়।” কূটনৈতিক মহলের মতে, গালওয়ানের সংঘর্ষ ও লাদাখে আগ্রাসন নিয়ে দুই দেশের মধ্যে সম্পর্কের তিক্ততা নিয়ে নয়াদিল্লির মন গলাতে চাইছে বেজিং। তাই চিনা রাষ্ট্রদূতের বক্তব্য খুবই উল্লেখযোগ্য। গত কয়েক মাসে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের যে অবনতি হয়েছে তাকে মেরামত করতে কূটনৈতিক পথ ছাড়া আর কোনও গতি নেই, সেকথা বুঝেছে জিনপিং প্রশাসন।

সম্প্রতি, বারবার সেনাস্তরে দুই দেশের বৈঠক আশাপ্রদ হয়নি। পারস্পরিক ঐকমত্যের জায়গায় এসেও চিন কথার খেলাপ করেছে। লাদাখে প্যাংগং লেকের কাছে ফিঙ্গার ফাইভ অঞ্চলে এখনও ঘাঁটি গেড়ে বসে লালফৌজ। আবার কৈলাস পর্বত, লিপুলেখ সীমান্তে চিনা সেনা ক্ষেপনাস্ত্র মোতায়েনের তোড়জোড় করেছে তাও উপগ্রহ চিত্র ফাঁস হয়েছে। যা নিয়ে উত্তেজনার পারদ চড়ছে দুই দেশের মধ্যে। গালওয়ানের প্রতিঘাত হিসাবে বাণিজ্যিক সম্পর্কে সাময়িক ইতি টেনেছে ভারত। চিনা অ্যাপ, পণ্য নিষিদ্ধ করায় সিঁদুরে মেঘ দেখছে বেজিং। যা চিনা রাষ্ট্রদূতের কথাতেই প্রকট। তিনি বলেছেন, “ইতিহাস সাক্ষী আছে, দুই দেশের সম্পর্ক ২০০০ বছর পূর্বের। মহামারী থেকে শুরু করে অন্য কোনও কিছু বাধা হতে পারেনি সম্পর্কের উন্নতিতে।” তবে তিনি তাঁর কথায় একটি জিনিস স্পষ্ট করেছেন যে, বেজিং নয়াদিল্লিকে বন্ধু হিসাবেই দেখে, প্রতিদ্বন্দ্বী নয়।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement