BREAKING NEWS

৭ আশ্বিন  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

নিয়মের গেরো, এবার কংগ্রেসের হাতছাড়া হতে চলেছে দিল্লির সদর দপ্তরও

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: August 5, 2020 7:18 pm|    Updated: August 5, 2020 7:23 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: লোধি এস্টেটের বাংলো থেকে পাট গোটাতে হয়েছে গান্ধী পরিবারের কন্যাকে। সরকারি নির্দেশ মেনে আগস্টের আগেই ৩৫, লোধি এস্টেটের বাড়িটি ছেড়ে দিয়েছেন প্রিয়াঙ্কা গান্ধী (Priyanka Gandhi)। এবার লুটিয়েন্সের আরও ৪টি সরকারি বাসভবনে থেকে কংগ্রেস নেতাদের সরিয়ে দেওয়া হবে বলে খবর। যার মধ্যে রয়েছে কংগ্রেসের সদর দপ্তর ২৪, আকবর রোডও। সেই মর্মে আবাসন ও নগরোন্নয়ন মন্ত্রকের অধীনে থাকা ডায়রেক্টরেট অফ এস্টেট ক্যাবিনেট কমিটি অন অ্যাকোমোডেশনের কাছে প্রস্তাব দিয়েছে। তা কার্যকর হলেই চারটি সরকারি বাংলো, অফিস খালি করতে হবে কংগ্রেসকে।

সূত্রের খবর, এই চার সরকারি ভবনের তালিকায় চল্লিশ বছর ধরে ২৪, আকবর রোডে কংগ্রেসের সদর দপ্তর ছাড়াও রয়েছে তার লাগোয়া কংগ্রেস সেবা দলের কার্যালয়, ৫, রাইসিনা রোডে যুব কংগ্রেসের অফিস এবং CII, ১০৯, চাণক্যপুরীর একটি আবাসন। এই আবাসনগুলি খালি করার জন্য বছর দুই আগেই কংগ্রেসকে নোটিস দেওয়ার কথা ছিল। তবে উনিশের ভোটের আগে সেই পদক্ষেপ নিতে চাননি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। তাই তা স্থগিত হয়ে যায়। জুলাই মাসে ফের সেই প্রস্তাব যায় ক্যাবিনেট অন অ্যাকোমোডেশনের তরফে।

[আরও পড়ুন: সেনা বৈঠকের পরও লাদাখের প্যাংগং লেকের ফিঙ্গার ৫ থেকে সরেনি লালফৌজ]

ডায়রেক্টরেট অফ এস্টেটের এক আধিকারিক জানিয়েছেন, এবার বাংলোগুলি খালি করার প্রক্রিয়া শুরু হবে। তিনি আরও জানান, ২০১০ সালে রুজ অ্যাভিনিউতে সদর কার্যালয় তৈরির জন্য জমি দেওয়া হয়েছিল কংগ্রেসকে। বলা হয়েছিল, আকবর রোডের সদর দপ্তরটি ৩ বছরের মধ্যে সেখানে স্থানান্তরিত করতে হবে। সেইমতো ২০১৩ সালেই ২৪, আকবর রোডের বাড়িটি ছেড়ে দেওয়ার কথা। তবে তখন তা কার্যকর হয়নি।

[আরও পড়ুন: করোনায় আক্রান্ত নন প্রাক্তন প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ, জল্পনা ওড়ালেন নিজেই]

জানা গিয়েছে, রুজ অ্যাভিনিউতে কংগ্রেসের সদর দপ্তর তৈরির কাজ চলছে এখনও। তাই এই মুহূর্তেই আকবর রোডের অফিসটি ছেড়ে দিতে হবে না। তবে যুব কংগ্রেস, কংগ্রেস সেবা দল এবং চাণক্যপুরীর বাংলো আপাতত ছাড়তেই হবে। এর আগে প্রিয়াঙ্কা গান্ধীকে লোধি এস্টেটের বাংলো ছাড়তে বলার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। কারণ হিসেবে দেখানো হয়েছিল যে ওই বাংলোটি এসপিজি (SPG) নিরাপত্তাপ্রাপ্তদের জন্য বরাদ্দ। প্রিয়াঙ্কা এখন এসপিজি নিরাপত্তা পান না। তাই তাঁকেও নিয়ম মেনে ছাড়তে হয়েছে। আপাতত তিনি লখনউ নিবাসী।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement