BREAKING NEWS

৪ আশ্বিন  ১৪২৭  সোমবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

চরমে আরজেডি-কংগ্রেস দ্বন্দ্ব! ভোটের আগে ভাঙতে পারে বিহারের বিরোধী মহাজোট

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: March 9, 2020 3:27 pm|    Updated: March 9, 2020 3:27 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: রাজ্যসভা নির্বাচন ঘিরে বিহারে কংগ্রেস(Congress)-আরজেডির দ্বন্দ্ব প্রকাশ্যে। আগামী ২৬ মার্চ বিহারের ৫টি রাজ্যসভা আসনের জন্য নির্বাচন। বিধানসভায় শক্তির নিরিখে এর মধ্য ৩টি আসন জিততে চলেছে জেডিইউ-বিজেপি জোট। বিরোধী আরজেডি (RJD) জিততে চলেছে দুটি। কংগ্রেসের দাবি, এই দুটি আসনের মধ্যে একটি আসন তাঁদের ছাড়তে হবে। লোকসভা নির্বাচনের আগে লালুপ্রসাদের দল তাঁদের রাজ্যসভার একটি আসন ছাড়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। কিন্তু, আরজেডি সেই দাবি মানতে নারাজ। তাঁরা দুটি আসনেই নিজেদের দলের প্রার্থীকে জেতাতে চায়। যা নিয়ে বিহারের বিরোধী শিবিরে রীতিমতো ফাটল ধরার পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। আর তাতেই স্বস্তি পাচ্ছে শাসক শিবির।

Rahul-Tejashwi
কংগ্রেস নেতা শক্তিসিন গোহিল তেজস্বী যাদবের(Tejashwi Yadav) উদ্দেশ্যে একটি খোলা চিঠি লিখেছেন। তাঁর দাবি, লোকসভা নির্বাচনের আগে মহাজোটের যে যৌথ সাংবাদিক সম্মেলন হয়েছিল, সেখানেই ঘোষণা করা হয় রাজ্যসভার একটি আসন কংগ্রেসকে ছাড়া হবে। আরজেডি নেতাদের সেই প্রতিশ্রুতির কথা মনে করিয়ে দিতেই চিঠিটি লিখেছেন গোহিল। আরজেডি নেতারা আবার এই প্রতিশ্রুতির কথা মনে করতে পারছেন না। বিহারের বিরোধী দলনেতা তেজস্বী যাদব ঘনিষ্ঠ নেতারা বলছেন, কংগ্রেসকে রাজ্যসভার আসন ছাড়ার কোনও প্রশ্ন নেই। দুটি আসনেই তাঁরা নিজেদের দলের প্রার্থী দেবেন। যদিও, এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন দলের সর্বভারতীয় সভাপতি লালুপ্রসাদ যাদব।

[আরও পড়ুন: ‘হেরোদের প্রজেক্ট করতে চাইছেন মুখ্যমন্ত্রী’, রাজ্যসভায় তৃণমূলের প্রার্থীদের নিয়ে কটাক্ষ দিলীপের]

বেশ কিছুদিন ধরেই বিহারের বিরোধী শিবিরে আসন বাটোয়ারা নিয়ে অশান্তি চলছে। লোকসভার আগে সেই অশান্তি সামাল দেওয়া গেলেও বিধানসভা নির্বাচনের আগে তা বড় আকার নিচ্ছে। আর অশান্তি শুধু কংগ্রেস-আরজেডির মধ্যেই সীমাবদ্ধ আছে, তা নয়। ছোট দলগুলিও নিজেদের দাবি জোরাল করছে। ফলে, বিধানসভার আগে আসন-রফা নিয়ে বিরোধী শিবিরে আরও একদফা ঝড় উঠতে পারে। আর তাতেই স্বস্তি ফিরছে শাসক শিবিরে। এমনিতেই নীতীশ কুমার(Nitish Kumar) এবং নরেন্দ্র মোদির ভাবমূর্তির জন্য বিহার দখলের লড়াইয়ে কিছুটা এগিয়ে থেকেই শুরু করছে বিজেপি-জেডিইউ। তার উপর যদি বিরোধী শিবির এভাবে বিভক্ত হয়ে যায়, তাহলে নীতীশ কুমার যে অনেকটা অ্যাডভান্টেজ পেয়ে যাবে, তাতে কোনও সংশয় নেই।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement