BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  রবিবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

ভারতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ছাড়াল ১০ হাজার, একদিনে মৃত ৩১

Published by: Soumya Mukherjee |    Posted: April 14, 2020 11:38 am|    Updated: April 14, 2020 11:38 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ থেকে দেশবাসীকে বাঁচাতে ২১ দিনের লকডাউনের সময়সীমা বাড়ানো হয়েছে। মঙ্গলবার সকাল ১০টায় জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ দিতে গিয়ে আগামী ৩ মে পর্যন্ত লকডাউন (Lock down) চলবে বলে ঘোষণা করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। তার কিছুক্ষণ আগেই স্বাস্থ্যমন্ত্রকের দেওয়া বিবৃতি জানানো হয়েছে, মঙ্গলবার সকাল পর্যন্ত দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১০ হাজার ৩৬৩ জন। যার মধ্যে গত ২৪ ঘন্টায় নতুন করে এক হাজার ২১১ জনের শরীরে এই মারণ ভাইরাসের জীবাণু পাওয়া গিয়েছে। আর মৃত্যু হয়েছে ৩১ জনের। এর ফলে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৩৩৯-এ পৌঁছেছে। পাশাপাশি এখনও পর্যন্ত এক হাজার ৩৫ জন মানুষ সুস্থও হয়ে উঠেছ।

স্বাস্থ্যমন্ত্রক সূত্রে খবর, পুরো দেশে এখনও পর্যন্ত দু লক্ষের বেশি মানুষের করোনা পরীক্ষা হয়েছে। তার মধ্যে মঙ্গলবার সকাল পর্যন্ত ১০ হাজার ৩৬৩ জনের শরীরে এই মারণ ভাইরাসের জীবাণু পাওয়া গিয়েছে। এর মধ্যে করোনার প্রকোপে সবচেয়ে খারাপ অবস্থা হয়েছে মহারাষ্ট্রের। মঙ্গলবার সকাল পর্যন্ত সেখানে মোট ২ হাজার ৩৩৪ জন করোনা রোগীর সন্ধান পাওয়া গিয়েছে। আর মৃত্যু হয়েছে ১৬০ জনের। তালিকায় এর পরেই নাম রয়েছে দিল্লির। সেখানে এখনও পর্যন্ত ১৫১০ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। মৃত্যু হয়েছে ২৮ জনের। তৃতীয় স্থানে থাকা তামিলনাড়ুতে আক্রান্ত ১১৭৩ জন। রাজস্থানে ৮৭৩, মধ্যপ্রদেশ ৬০৪, তেলেঙ্গানা ৫৬২, উত্তরপ্রদেশ ৫৫৮ ও গুজরাটে ৫৩৯ জন।

[আরও পড়ুন: করোনার থাবা এবার মেঘালয়েও, আক্রান্ত শিলংয়ের হাসপাতালের এক ডাক্তার ]

অন্য রাজ্যগুলির মধ্যে অন্ধ্রপ্রদেশে ৪৩২, কেরলে ৩৭৯, জম্মু ও কাশ্মীর ২৭০, কর্ণাটকে ২৪৭, হরিয়ানা ১৮৫, পাঞ্জাব ১৬৭, পশ্চিমবঙ্গ ১১০, বিহার ৬৫, ওড়িশা ৫৪, উত্তরাখণ্ড ৩৫, হিমাচল প্রদেশ ৩২, ছত্তিশগড় ও অসম ৩১, চণ্ডীগড় ২১, ঝাড়খণ্ড ২৪, লাদাখ ১৫, আন্দামান ও নিকোবর ১১ ও গোয়া ও পুদুচেরিতে সাত জন আক্রান্ত হয়েছেন। এছাড়া ত্রিপুরা ও মণিপুরে দুজন আর অরুণাচল প্রদেশ, মিজোরাম, নাগাল্যান্ডে একজন করে করোনা আক্রান্ত রোগীর সন্ধান পাওয়া গিয়েছে।

[আরও পড়ুন: ‘করোনা ভারতে পা রাখার আগেই প্রস্তুতি নিয়েছিল সরকার’, দাবি প্রধানমন্ত্রীর]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement