BREAKING NEWS

১২ অগ্রহায়ণ  ১৪২৮  সোমবার ২৯ নভেম্বর ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

বাংলাদেশে সাম্প্রদায়িক অশান্তির নিন্দা বামেদের, হাই কমিশনারের সঙ্গে কথা বললেন বিপ্লব দেব

Published by: Paramita Paul |    Posted: October 16, 2021 8:36 pm|    Updated: October 16, 2021 8:41 pm

CPIM condemn Bangladesh violence | Sangbad Pratidin

সংবাদ প্রতিদিন ব্যুরো: বাংলাদেশে দুর্গোৎসব চলাকালীন সংখ্যালঘুদের উপর হামলার ঘটনার তীব্র প্রতিক্রিয়া তৈরি হয়েছে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে। এহেন আচরণের তীব্র প্রতিবাদ করেছেন ত্রিপুরার লেখক, সাহিত্যিক ও বুদ্ধিজীবীরা। বাংলাদেশে হামলার তীব্র নিন্দা করছেন ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লবকুমার দেবও। কথা বলেছেন বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতের হাইকমিশনারের সঙ্গেও। প্রতিক্রিয়া দিয়েছে বামেরাও।

মন্দিরে ভাঙচুরের ঘটনায় বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কঠোর পদক্ষেপ করবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, “আশা করি বাংলাদেশ সরকার ধর্মান্ধতার বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ করবে।” এদিকে রাজ্যের সীমান্ত এলাকার পরিস্থিতির উপর কঠোর নজর রাখছেন নিরাপত্তারক্ষীরা। মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লবকুমার দেব ত্রিপুরার সব ধর্মের প্রতিনিধিদের সাথে আলোচনা বসেন। সম্প্রীতি বজায় রাখার উপর মুখ্যমন্ত্রী গুরুত্বারোপ করেছেন।

[আরও পড়ুন: মন্দির ভাঙচুর নিয়ে এবার রাষ্ট্রসংঘের দ্বারস্থ বাংলাদেশের ইসকন কর্তৃপক্ষ, নিন্দা প্রস্তাব চেয়ে চিঠি]

এদিকে বুদ্ধিজীবীদের একটি দল দেখা করেছেন ত্রিপুরায় নিযুক্ত বাংলাদেশের হাই কমিশনারের সঙ্গেও। বাংলাদেশে সংখ্যাগরিষ্ঠ মৌলবাদীদের আক্রমণের তীব্র নিন্দা করে পশ্চিমবঙ্গের বামেরা। দুই সম্প্রদায়ের মধ্যে সম্প্রীতি বিনষ্ট করে উত্তেজনা ছড়ানো এদের লক্ষ্য বলে অভিযোগ সিপিএম নেতা সুজন চক্রবর্তীর। ঘটনার পেছনে গভীর ষড়যন্ত্র রয়েছে বলেও মনে করছে সিপিএম।

শারদোৎসব শুরুর সময় থেকেই বাংলাদেশের কুমিল্লা, চাঁদপুর সহ কয়েকটি জেলায় ধর্মীয় উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। এখনও পর্যন্ত বেশ কয়েক জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গিয়েছে। বেশকিছু ধর্মীয় স্থাপত্য নষ্ট করা হয়েছে বলে অভিযোগ। ঘটনার মোকাবিলায় প্রতি এলাকাতেই সীমান্তরক্ষী বাহিনী মোতায়েন করেছে বাংলাদেশ সরকার। ঘটনার তীব্র নিন্দা করেছেন সেদেশের প্রগতিশীল বেশ কয়েকটি সংগঠন। রাস্তায় নেমে প্রতিবাদ করেছে বাংলাদেশের বামপন্থী দলগুলো।

[আরও পড়ুন: বাংলাদেশে ইসকন মন্দিরে ভাঙচুর, সাম্প্রদায়িক হিংসায় নিহত সংখ্যালঘু]

এপার বাংলায় রাস্তায় না নামলেও তীব্র নিন্দা করেছে বামেরা। এই ঘটনার মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধকে কলুষিত করার চেষ্টা হচ্ছে বলে অভিযোগ আলিমুদ্দিনের। ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে বাংলাদেশের মানুষ মুক্তিযুদ্ধে শামিল হয়েছিল। সেই যুদ্ধের ৫০ বছর পূর্তি উৎসব চলছে। তখন এই ধরনের ধর্মীয় আক্রমণ বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নকে চরম আঘাত করবে বলে মনে করেন সিপিএম কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য সুজন চক্রবর্তী। এদিন ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়ে এবং বাংলাদেশ সরকারকে করা হাতে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের দাবি জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছে সিপিএম পলিটব্যুরো।

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে