২ কার্তিক  ১৪২৬  রবিবার ২০ অক্টোবর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: বংশপরম্পরাই কাল হল কংগ্রেসের। এমনটাই জানাচ্ছে কংগ্রেসের অনুসন্ধান (ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং) কমিটির রিপোর্ট। মতিলাল নেহরুর পর জওহরলাল। তারপর জওহরকন্যা ইন্দিরা গান্ধী। ইন্দিরার পর পুত্র রাজীব। এবং এখন তাঁর স্ত্রী-সন্তানেরা। সোনিয়া-রাহুল-প্রিয়াঙ্কা। সাম্প্রতিক সময়ে কংগ্রেসের ব্যাটন যুগে যুগে পাল্টেছে ঠিকই, তবে গান্ধী পরিবারের বাইরে যায়নি। আর সেটাই গত লোকসভা ভোটে কংগ্রেসের ভরাডুবির জন্য সবচেয়ে বড় কারণ।

[আরও পড়ুন: পুজোয় রাজধানী এক্সপ্রেসের মেনুতে বদল, মিলছে মাংস-আইসক্রিম]

কেন হার হল ভোটে, জানতে যে তথ্য অনুসন্ধান কমিটি গড়েছিল কংগ্রেস, তারাই এই রিপোর্ট দিয়েছে। শীঘ্রই বিধানসভা ভোট দু’টি রাজ্য মহারাষ্ট্র ও হরিয়ানায়। তার জন্য কংগ্রেসের তোড়জোড়, প্রস্তুতি শুরু হয়ে গিয়েছে জোর কদমে। কংগ্রেসের তথ্য অনুসন্ধান কমিটি এ-ও বলেছে, এই সবের থেকে শিক্ষা নিয়েই এ বার প্রার্থী বাছাই করতে হবে মহারাষ্ট্র ও হরিয়ানার বিধানসভা ভোটে। আগামী মাসে যে কয়েকটি উপনির্বাচন রয়েছে, সেখানেও এই শিক্ষাকে মনে রাখতে হবে।

অন্যদিকে, ভোটের মুখে শনিবার ইস্তফা দিয়েছেন হরিয়ানার কংগ্রেস প্রধান অশোক তানওয়ার। সকলেই জানেন, অশোক আসলে রাহুল-ঘনিষ্ঠ। অশোক জানাচ্ছেন, রাহুলের ঘনিষ্ঠ বলেই তিনি বেশ কিছুদিন ধরে কাজ করতে পারছিলেন না। কারণ, রাহুল সভাপতি পদ থেকে পদত্যাগের করার পরই অনেকেই নিজেদের ব্যবহার পরিবর্তন করেছেন। সেটা নিয়ে দলের ভিতরেই রাজনীতি শুরু করেছেন অনেকে।

উল্লেখ্য, বিগত লোকসভা নির্বাচনে জোরদার প্রচারে নেমেছিলেন রাহুল ও প্রিয়াঙ্কা গান্ধী। বারবার প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ এনে সরব হয়েছেন রাজীব তনয়। ‘চৌকিদার চোর হ্যায়’ স্লোগানে সভা মাতিয়েছিলেন রাহুল গান্ধী। তবে বিশ্লেষকদের মতে, মোদির স্বচ্ছ চরিত্রে দাগ লাগানোর চেষ্টায় কান দেয়নি মানুষ। যার প্রভাব পড়েছে ইভিএম-এ। কার্যত ধুয়েমুছে সাফ হয়ে গিয়েছে শতাব্দী প্রাচীন দলটি। তারপর দলের একাংশ থেকেই উঠে আসছে নেতৃত্বে বদলের দাবি। 

[আরও পড়ুন: দিল্লিতে মোদির সঙ্গে বৈঠক হাসিনার, আলোচনা এনআরসি ইস্যুতেও]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং