২ কার্তিক  ১৪২৬  রবিবার ২০ অক্টোবর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: দেখতে দেখতে স্বাধীনতার ৭০ বছর পেরিয়ে গেল। দীর্ঘ সাত দশকে দেশের সবকটি নির্বাচনেই নিজেদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন নাগরিকরা। আগামী দিনেও করবেন। তবে হিমাচলপ্রদেশের শ্যাম শরণ নেগির ব্যাপারটা আলাদা। স্বাধীন ভারতের ‘প্রথম ভোটার’ তিনি। তাই এবার হিমাচল প্রদেশে আসন্ন বিধানসভা ভোটে শতায়ু মানুষটিকে ভোটাধিকার প্রয়োগে সাহায্য করতে এগিয়ে এল নির্বাচন কমিশন। বাড়ি থেকে শ্যাম শরণ নেগিকে বিশেষ গাড়িতে চাপিয়ে রীতিমতো এসকর্ট করে বুথে নিয়ে যাওয়া হবে। ভোটদানের পর ফের একইভাবে তাঁকে বাড়িতে পৌঁছে দেবে নির্বাচন কমিশন।

[কাশ্মীর প্রসঙ্গে চিদাম্বরমের মন্তব্যে ক্ষুব্ধ স্মৃতি, দূরত্ব বাড়াল কংগ্রেসও]

স্বাধীনতার পর পাঁচেক দশকের শুরুতে এদেশে যখন প্রথম সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়, তখন সিমলার একটি সরকারি স্কুলে শিক্ষকতা করতেন শ্যাম শরণ নেগি। আর সেই নির্বাচনেই দেশের প্রথম ভোটার হওয়ার কৃতিত্ব অর্জন করেন তিনি। কীভাবে?  সে গল্পটিও বেশ মজাদার। দেশের অন্য রাজ্যগুলিতে ১৯৫২ সালে জানুয়ারি ও ফ্রেরুয়ারিতে প্রথম সাধারণ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ হয়েছিল। কিন্তু, প্রচণ্ড ঠান্ডা ও তুষারপাতের জন্য কয়েক মাস আগেই ভোট দেওয়ার সুযোগ পেয়েছিলেন হিমাচলপ্রদেশের বাসিন্দারা। শ্যাম শরণ নেগি যে লোকসভা কেন্দ্রের ভোটার, সেই মান্দি মাহাসু লোকসভা কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ হয়েছিল ১৯৫১ সালের অক্টোবরে। সেই হিসেবে তিনিই স্বাধীন ভারতের প্রথম ভোটার। শ্যাম শরণের বয়স এখন ১০০। অশক্ত শরীরে চলাফেরা করতে কষ্ট হয়। কিন্তু, নভেম্বরেই যে হিমাচলপ্রদেশে ফের একটি বিধানসভা ভোট! কেন্দ্রীয় নির্বাচন কমিশন চায়, এবারও ভোটাধিকার প্রয়োগ করুন শতায়ু মানুষটি। তাই শুধুমাত্র তাঁর কথা ভেবেই বিশেষ ব্যবস্থাও নিয়েছে কমিশন। জানা গিয়েছে, ভোটগ্রহণের দিন বাড়িতে গাড়িতে চাপিয়ে এসকর্ট করে বুথে নিয়ে যাওয়া হবে শ্যাম শরণ নেগিকে। ভোটদানের পর ফের তাঁকে গাড়ি করে বাড়িতে পৌঁছে দেবে কমিশনের লোকে্রাই। শুধু তাই নয়, ভোট দেওয়ার জন্য যখন বুখে ঢুকবেন শ্যাম শরণ, তখন তাঁকে বরণ করে নেওয়ার জন্য থাকবে এলাহি আয়োজন। নির্বাচন কমিশনের এই উদ্যোগে খুশি দেশের প্রথম ভোটারের পরিবারের লোকেরা। শ্যাম শরণের পুত্রবধূ সুরমাদেবী বলেন, স্বাধীনতার পর থেকে একবারও ভোটদানের সুযোগ হাতছাড়া করেননি নবতিপর মানুষটি।

[এবার স্যাটেলাইটের সাহায্যে চিন সীমান্তে নজরদারি চালাবে ITBP]

প্রসঙ্গত, ২০১৪ সালে লোকসভা ভোটে আগে গুগলের তৈরি একটি ভিডিও-র দৌলতেই প্রথম পাদপ্রদীপের আলোয় আসেন শ্যাম শরণ নেগি। সেবার নাগরিকদের ভোটদানে উৎসাহ দেওয়ার জন্য প্রচারাভিযান চালিয়েছিল মার্কিন সংস্থাটি। সেখানেই একটি ভিডিও-তে স্বাধীন ভারতের প্রথম নির্বাচনে ভোট দেওয়ার অভিজ্ঞতার কথা শুনিয়েছিলেন শ্যাম শরণ নেগি।

[ফের জঙ্গি হামলা কাশ্মীরে, শান্তি ফেরাতে অনড় কেন্দ্র]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং