BREAKING NEWS

১৪ আশ্বিন  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ১ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

করোনা চিকিৎসায় হাত বাড়ালেন কাশ্মীরের ইঞ্জিনিয়াররা, তৈরি হল সস্তার ভেন্টিলেটর

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: April 23, 2020 6:59 pm|    Updated: April 23, 2020 6:59 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: করোনা মোকাবিলায় দেশে সবচেয়ে সমস্যার বিষয় হলো অপর্যাপ্ত ভেন্টিলেটর। সেই অভাব মেটাতে একে একে এগিয়ে এসেছেন অনেকেই। ব্যক্তিগত উদ্যোগেও অনেকে ভেন্টিলেটর তৈরির পথে এগিয়েছেন। এবার সেই প্রচেষ্টায় নামল কাশ্মীরের ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ুয়াদের। হাত বাড়িয়ে দিল শের-ই-কাশ্মীর ইনস্টিটিউট অফ মেডিক্যাল সায়েন্স। একেকটি ভেন্টিলেটরের দাম পড়বে ১৫ হাজার টাকা।

কাশ্মীর উপত্যকা মানেই হয় তার সৌন্দর্য নয়ত সেখানকার সন্ত্রাসই সর্বাধিক আলোচিত হয়। সেখানকার নবীন প্রজন্ম, পড়ুয়াদের উদ্ভাবনী শক্তি যে দেশের এমন হিতকর কাজে লাগতে পারে, তার খুব একটা নজির ছিল না। এবার তাঁরা নিজেদের প্রতিভার পরিচয় দিলেন। অবন্তীপোরার ইসলামিক ইউনিভার্সিটি অফ সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজির একদল ইঞ্জিনিয়ারের ডিজাইন করা ভেন্টিলেটর তৈরিতে একযোগে কাজ করেছেন মেডিক্যাল সায়েন্সের পডুয়ারাও। এই ভেন্টিলেটর তৈরিতে দলকে নেতৃত্ব দিয়েছেন শ্রীনগরের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ টেকনোলজির দুই ইঞ্জিনিয়ার ড. মাজিদ হামিদ কউল এবং ড. সাদ, হার্ভার্ড মেডিক্যাল কলেজের ড. সাবির হোসেন। সবাই মিলে তৈরি করে ফেলেছেন এই মুহূর্তের সবচেয়ে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সরঞ্জাম – ভেন্টিলেটর। দাম ১৫ হাজার টাকার বেশি নয়। তুলনায় সস্তা।

[আরও পড়ুন: লকডাউন ভেঙে ক্রিকেট ম্যাচের আয়োজন, উত্তরপ্রদেশে বিজেপি নেতার বিরুদ্ধে এফআইআর]

এমন অসাধ্য সাধনের জন্য সকলেই কাশ্মীরের ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ুয়াদের অভিনন্দন জানিয়েছেন ডা. সাবির। তিনি টুইটারে সকলের অবদানকে স্মরণ করেছেন। সকলেই অত্যন্ত ভাল কাজ করেছেন বলে উল্লেখ করে তিনি জানিয়েছেন, এই দলের সঙ্গে কাজ করে তিনি নিজে বিশেষভাবে মুগ্ধ।

এই মুহূর্তে পিপিই, ভেন্টিলেটর, আইসিইউ, আইসোলেশন ওয়ার্ড ইত্যাদির জোগান বড় বেশি দরকারি। সেকথা টের পেয়েই কাশ্মীরি পড়ুয়াদের এই উদ্যোগ। তাঁদের তৈরি ভেন্টিলেটরটি কাজে লাগাতে পারে দেশের বিভিন্ন স্বাস্থ্যকেন্দ্র, হাসপাতালগুলি। তাহলে ভেন্টিলেটরের সমস্যাও যেমন মিটবে, তেমনই বরাবর উচ্চশিক্ষা বা প্রযুক্তি বিদ্যায় পিছিয়ে থাকা কাশ্মীরিদের উৎসাহ জোগাবে কেন্দ্রের এই সহায়তা। তবে ১৫ হাজার টাকা দামের ভেন্টিলেটর বাণিজ্যিকভাবে তৈরি করতে কতটা খরচ  হবে, সেই প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে।

[আরও পড়ুন: গেটে দাঁড়িয়ে কাকুতি মিনতিই সার, করোনা রোগীকে ভরতি নিল না হাসপাতাল]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement