Advertisement
Advertisement

দেশের সবচেয়ে গ্রহণযোগ্য প্রধানমন্ত্রী এখনও ইন্দিরাই, মন্তব্য রাষ্ট্রপতির

এই মন্তব্যের মধ্যে কি কোথাও বর্তমান কংগ্রেস নেতৃত্বকে সমালোচনা করেছেন প্রণব?

Even today also Indira Gandhi 'Most Acceptable' PM, says President Pranab Mukherjee
Published by: Sangbad Pratidin Digital
  • Posted:May 14, 2017 10:05 am
  • Updated:May 14, 2017 10:05 am

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: স্বাধীনতার পর এখনও পর্যন্ত ভারত পেয়েছে ১৫ জন প্রধানমন্ত্রী। সেই পণ্ডিত জওহরলাল নেহেরু থেকে বর্তমানে নরেন্দ্র মোদি। কিন্তু এখনও পর্যন্ত দেশের সবচেয়ে গ্রহণযোগ্য প্রধানমন্ত্রী হলেন ইন্দিরা গান্ধী। এমনটাই বললেন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়। ১৯৭৭ সালে কংগ্রেসের টালমাটাল অবস্থায় কঠিন সিদ্ধান্তগ্রহণে ইন্দিরা দ্বিধা করতেন না বলে মত রাষ্ট্রপতির। এই মন্তব্যের মধ্যে কি কোথাও বর্তমান কংগ্রেস নেতৃত্বকে সমালোচনা করেছেন প্রণব? তেমনটা উড়িয়ে দিচ্ছে না রাজনৈতিক মহল।

[সঙ্গে গরুর লেজ, কিশোরকে প্রকাশ্যে বেধড়ক মারধর দুষ্কৃতীদের]

শনিবার প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরার জন্মদিনে তাঁর জীবন ও কর্ম নিয়ে একটি বইপ্রকাশ অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত ছিলেন রাষ্ট্রপতি। সেখানে উপস্থিত ছিলেন উপ-রাষ্ট্রপতি হামিদ আনসারি, প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং, কংগ্রেস সহ-সভাপতি রাহুল গান্ধী, দলের শীর্ষ নেতা আনন্দ শর্মা প্রমুখ। বইটির সম্পাদনা করেছেন আনন্দ শর্মা। শারীরিক অসুস্থতার কারণে অনুষ্ঠানে অনুপস্থিত ছিলেন বইয়ের সূচনা লেখক কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধী। সেই অনুষ্ঠানেই প্রণব মন্তব্য করেন, বিংশ শতাব্দীতে গোটা বিশ্বের অন্যতম সেরা ব্যক্তিত্ব ছিলেন ইন্দিরা। মৃত্যুর এত বছর পরেও দেশের জনগণ তাঁকে সবচেয়ে গ্রহণযোগ্য প্রধানমন্ত্রী মনে করেন। ১৯৭৮-এ দ্বিতীয়বার কংগ্রেস ভেঙে যাওয়ার পরেও ব্যক্তিগত ক্যারিশ্মা এবং সিদ্ধান্তগ্রহণের বিচক্ষণতার জোরে দলকে ভরাডুবির হাত থেকে বাঁচিয়ে নির্বাচনী জয় এনে দেন। বর্তমানে কেন্দ্র তথা একাধিক রাজ্যে নিশ্চিহ্ন হতে বসা কংগ্রেস নেতৃত্বকে একপ্রকার ঘুরিয়েই বার্তা দিলেন রাষ্ট্রপতি, মত বিশেষজ্ঞদের।

Advertisement

এরপরই ১৯৮৪ সালের সেই বিখ্যাত অপারেশন ব্লু-স্টারের প্রসঙ্গ তুলে আনেন রাষ্ট্রপতি। অমৃতসরে স্বর্ণমন্দিরে অভিযানের আগে মন্ত্রিসভার বৈঠকের কথা উল্লেখ করেন তিনি। বলেন, ‘ইতিহাসের ছাত্র হিসাবে স্বর্ণমন্দিরের ক্ষয়ক্ষতির কথা আমাকে ভাবিয়ে তুলেছিল। কিন্তু মন্ত্রিসভার সদস্য হিসাবে নিজের কর্তব্যবোধ থেকেও পিছু হটতে পারছিলাম না। কিন্তু বৈঠকে আমি বলেছিলাম, আমরা হয়তো সবচেয়ে ভয়ংকর সিদ্ধান্ত নিতে চলেছি। তখন আমার মনে ঘুরেফিরে তৃতীয় পানিপথের যুদ্ধে আহমেদ শাহ আবদালির কথা আসছিল। স্বর্ণমন্দিরের ক্ষতি করায় তাকে কী ফল ভুগতে হয়েছিল তা আমার মাথায় ছিল। এমন নয় যে ইন্দিরা তা জানতেন না, তিনি ভাল করেই তা জানতেন। কিন্তু তিনি তখন বলেছিলেন, কখনও কখনও ইতিহাসও জরুরি ব্যবস্থা দাবি করে। পরে হয়তো তা সঠিক প্রমাণিত নাও হতে পারে, কিন্তু সেই সময়ে সেটাই উচিত পদক্ষেপ।’

Advertisement

Sangbad Pratidin News App

খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ