BREAKING NEWS

১৪ অগ্রহায়ণ  ১৪২৮  বুধবার ১ ডিসেম্বর ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

এবার ScoopWhoop ওয়েবসাইটের কর্তার বিরুদ্ধে যৌন হেনস্তার অভিযোগ

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: April 12, 2017 7:47 am|    Updated: December 16, 2019 11:56 am

FIR against Scoop Whoop co-founder Suparn Pandey after a complaint of sexual harassment was lodged against him

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক:  ‘The Viral Fever’ -এর পর ফের আর এক ওয়েবসাইট কর্তার বিরুদ্ধে সংস্থারই এক কর্মীকে যৌন হেনস্তার অভিযোগ উঠল। এবার অভিযোগের তির ScoopWhoop ওয়েবসাইটের সহ-প্রতিষ্ঠাতা সুপর্ণ পাণ্ডের বিরুদ্ধে। তাঁর বিরুদ্ধে যৌন হেনস্তার অভিযোগ দায়ের করেছেন সংস্থারই এক প্রাক্তন সিনিয়র একজিকিউটিভ। খবর সংবাদ সংস্থা এএনআইয়ের।

ScoopWhoop মিডিয়া প্রাইভেট লিমিটেডের এক প্রাক্তন কর্মী দিল্লির বসন্তকুঞ্জ পুলিশ স্টেশনে সুপর্ণ পাণ্ডের বিরুদ্ধে ৩৫৪(এ) ধারায় যৌন হেনস্তা, ৫০৯ ধারায় মহিলার সম্মানহানি, ৫০৬ ধারায় অপরাধমূলক ভীতিপ্রদর্শনের অভিযোগ দায়ের করেছেন বলে জানিয়েছে ‘ক্যাচ নিউজ’। অভিযোগকারী জানিয়েছেন, ওই ওয়েবসাইটে প্রায় দু’বছর চাকরি করেছেন তিনি। ওই দু’বছর ধরেই পাণ্ডে তাঁকে নানা অশালীন মন্তব্য করেছেন, তাঁর ‘সেক্সুয়ালিটি’ নিয়ে ঠাট্টা করেছেন। শুধু মৌখিকভাবেই নয়, অভিযুক্ত নানাভাবে তাঁর শরীরে আপত্তিজনকভাবে হাত দিতেন বলেও পুলিশকে জানিয়েছেন সংস্থার ওই প্রাক্তন কর্মী। তিনি বলেছেন, “উনি ঘনিষ্ঠভাবে আমার কাছে এসে বসতেন, আমার অস্বস্তি হত। তারপর উনি আমার চুলে হাত দিতেন, খেলতেন। এমনকী, আমার জি-মেলে আপত্তিজনক ভিডিও পাঠাতেন।”

[যৌন হেনস্তার অভিযোগে বিনোদন ওয়েবসাইটের সিইও-কে সমন পাঠাল পুলিশ]

পুলিশের কাছে যাওয়ার আগে সংস্থার আর এক কর্তা শ্রীপর্ণা টিকেকারের কাছেও অভিযোগ জানিয়েছেন বলে দাবি করেছেন ওই কর্মী। কিন্তু তিনিও অভিযুক্তের বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থা নেননি। বরং অভিযোগ করায় তাঁকে সংস্থার মধ্যে একঘরে করে রাখা হয়েছিল বলে পুলিশকে জানিয়েছেন ওই প্রাক্তন কর্মী। অভিযুক্ত সুপর্ণ পাণ্ডে মদ্যপ অবস্থায় অফিসে আসতেন ও নানাভাবে তাঁকে ছোঁয়ার চেষ্টা করতেন বলেও অভিযোগ করেছেন নিগৃহীতা। তিনি বলছেন, “পাণ্ডে আমাকে রাতের দিকে ওনার ঘরে মিটিংয়ে ডাকতেন। আমার কপালে চুমু খেতেন।” এই সমস্ত অভিযোগই এফআইআরে জানিয়েছেন তিনি।

এর আগে আর এক বিনোদনমূলক ওয়েবসাইট টিভিএফ-এর সিইও অনুভব কুমারের বিরুদ্ধেও সংস্থার এক অধস্তন কর্মীকে যৌন হেনস্তার অভিযোগ ওঠে। তাঁর বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের হলেও অন্তর্বর্তী জামিন পান অনুভব কুমার। এরপর প্রকাশ্যেই মুখ খোলেন অভিযুক্ত। তিনি বলেন, “কাউকে দেখে আমার সেক্সি লাগলে আমি সেটা বলতে পারব না?” তাঁর এই মন্তব্যের বিরুদ্ধে সোশ্যাল মিডিয়ায় সমালোচনার ঝড় ওঠে। ওই ঘটনার মাত্র ১৫ দিন পর ফের আর এক সংস্থার কর্মীও একই অভিযোগ তোলায় কর্মক্ষেত্রে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের আচরণ কেমন হওয়া উচিত, তা নিয়ে নানা মহলে শুরু হয়েছে বিতর্ক।

[হনুমান জয়ন্তী বিতর্কে বিজেপি নেতাকে ‘গালিগালাজ’ ইমাম বরকতির]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে