BREAKING NEWS

৪ মাঘ  ১৪২৭  সোমবার ১৮ জানুয়ারি ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা নয়, হায়দরাবাদ পুরনিগম দখলে ওয়েইসির সঙ্গই ভরসা TRS’এর

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: December 4, 2020 11:44 am|    Updated: December 5, 2020 4:05 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: হায়দরাবাদ পুরনিগমের (GHMC poll) ফলাফলের প্রাথমিক ট্রেন্ড দেখে রীতিমতো উচ্ছ্বাস শুরু করে দিয়েছিলেন বিজেপির নেতাকর্মীরা। প্রথমবার দক্ষিণের শহর দখলের স্বপ্নে মশগুল হয়ে উঠেছিল গেরুয়া শিবির। তবে শেষপর্যন্ত পুরনিগম দখল না হলেও, তাঁরা যে আগামী বিধানসভা নির্বাচনে বিপক্ষকে কড়া টক্কর দিতে চলেছে তা বুঝিয়ে দিল বিজেপি। দ্বিতীয় বৃহত্তম দল হিসেবে উঠে আসাই শুধু নয়, কে চন্দ্রশেখর রাওয়ের তেলেঙ্গানা রাষ্ট্র সমিতিকে (Telangana Rashtra Samithi‌)‌ পুরনিগমের ক্ষমতা ধরে রাখতে আসাদউদ্দিন ওয়েইসির AIMIM–এর নির্ভরশীল করে দিল।

এদিন সকালে চিত্রটা কিন্তু ছিল পুরোপুরি বিজেপির দিকেই। সকাল সাড়ে এগারোটা পর্যন্ত ১৫০ আসনের বৃহৎ হায়দরাবাদ পুরনিগমের ৮৭টি আসনে এগিয়ে ছিল বিজেপি। দ্বিতীয় স্থানে নেমে এসেছিল কে চন্দ্রশেখর রাওয়ের তেলেঙ্গানা রাষ্ট্র সমিতি। টিআরএস তখন এগিয়ে ছিল ৩৩ আসনে। আসাদউদ্দিন ওয়েইসির AIMIM ছিল তৃতীয় স্থানে। তারা এগিয়ে ছিল ১৭টি আসনে। কংগ্রেস এগিয়ে ছিল দুটি মাত্র আসনে।

[আরও পড়ুন: দেশকে নেতৃত্ব দেওয়ার মতো ধারাবাহিকতা নেই রাহুল গান্ধীর! বিস্ফোরক শরদ পওয়ার]

তখনকার ফলাফল ধরলে হায়দরাবাদ পুরনিগমে প্রথমবার একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে বোর্ড গঠন করার সম্ভাবনা তৈরি হয়েছিল বিজেপির। সেই প্রাথমিক ট্রেন্ড দেখেই উচ্ছ্বসিত হয়ে ওঠে গেরুয়া শিবির। তেলেঙ্গানার বিজেপি সাংসদ ডি অরবিন্দ ঘোষণা করে দেন,” তেলেঙ্গানায় পরিবর্তন শুরু হয়ে গিয়েছে। লোকসভা নির্বাচনেই সেই ইঙ্গিত মিলেছিল। সম্প্রতি উপনির্বাচনেও আমরা জিতেছি। আজ হায়দরাবাদের ফলাফল টিআরএসকে স্পষ্ট বার্তা দেবে।” ফলাফলের প্রাথমিক ট্রেন্ড আসতেই হায়দরাবাদের নাম বদলের জল্পনাও উসকে দেন একাধিক বিজেপি নেতা। বিজেপি নেতা বি এল সন্তোষ টুইট করে বলেন,”খুব ভাল ফলাফল ভাগ্যনগর…।” দলের মুখপাত্র সম্বিত পাত্র দেবী লক্ষ্মীর ছবি পোস্ট করে সংক্ষেপে লেখেন,’ভাগ্যনগর।’ কিন্তু গেরুয়া শিবিরের সেই উচ্ছ্বাস বেশিক্ষণ স্থায়ী হল না। বেলা বাড়তেই ফলাফল পালটাতে শুরু করল।

শুক্রবার রাত সাড়ে আটটা পর্যন্ত হায়দরাবাদ পুরনিগমের ১৫০ আসনের মধ্যে ৫৮টিতে এগিয়ে বা জিতেছে টিআরএস। যা কিনা ম্যাজিক ফিগার থেকে ১৮টি আসন কম। অন্যদিকে, দ্বিতীয় স্থানে থাকা বিজেপি এগিয়ে বা জিতেছে ৪৭টিতে। ৪৩টি–তে ওয়েইসির AIMIM এবং ২টিতে কংগ্রেস। অর্থাৎ, এই মুহূর্তের ফলাফল সত্যি হলে ওয়েইসির সাহায্য নিয়েই টিআরএসকে হায়দরাবাদে বোর্ড গঠন করতে হবে। আসন বাড়ালেও ক্ষমতা দখল করতে পারবে না বিজেপি। তবে তাতে বিজেপি নেতাদের মধ্যে কোনও হা–হুতাশ নেই। এটাকেই তাঁরা নিজেদের জয় হিসেবে দেখছেন। এই ফলাফলের পর ২০২৩ তেলেঙ্গানার বিধানসভা নির্বাচনকেই ‘‌পাখির চোখ’‌ করা হবে। এমনটাই খবর বিজেপি শীর্ষ নেতৃত্ব সূত্রে। এদিকে, ইতিমধ্যে ইস্তফা দিয়েছেন তেলেঙ্গানা প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি উত্তম কুমার রেড্ডি।

 

[আরও পড়ুন: আলোচনায় অধরা সমাধানসূত্র, ৮ ডিসেম্বর ভারত বনধের ডাক কৃষক সংগঠনগুলির]

১৫০ আসনের বৃহৎ হায়দরাবাদ পুরনিগমে গতবার তেলেঙ্গানার শাসক টিআরএস ৯৯টি এবং আসাদউদ্দিন ওয়েইসির (Asaduddin Owaisi) এআইএমআইএম ৪৪টি আসন পেয়েছিল। বিজেপি-টিডিপি জোট পেয়েছিল মাত্র ৪টি আসন। দুটি আসন গিয়েছিল কংগ্রেসের (Congress) দখলে। কিন্তু এবারে ছবি অন্য। বিজেপি প্রায় সর্বশক্তি দিয়ে ঝাঁপিয়েছে এই পুরনিগম দখল করতে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি (Narendra Modi) ছাড়া বিজেপির শীর্ষস্তরের সব নেতাই প্রচার সেরে ফেলেছেন হায়দরাবাদে। তেলেঙ্গানা রাজ্য বিজেপির সভাপতি বান্দি সঞ্জয় সিং বেশ কিছুদিন চার মিনারের শহরে ঘাঁটি গেড়ে বসে ছিলেন। বিজেপি (BJP) যুব মোর্চার সভাপতি তেজস্বী সূর্য প্রচারে গিয়ে হায়দরাবাদকে রোহিঙ্গা এবং পাকিস্তানি অনুপ্রবেশকারীদের আস্তানা বলে তোপ দেগে এসেছেন। খোদ বিজেপি সভাপতি জেপি নাড্ডা প্রচারে গিয়ে হায়দরাবাদ দখলের ব্যাপারে আত্মবিশ্বাস ব্যক্ত করে এসেছেন। উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ ভোটে জিতলে হায়দরাবাদের নাম বদলে ফেলার ইঙ্গিত দিয়েছেন। এবং সর্বোপরি কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আমিত শাহ শেষবেলায় হায়দরাবাদকে ‘নিজাম সংস্কৃতি’ মুক্ত করে বিশ্বমানের আইটি হাব হিসেবে গড়ে তোলার প্রতিশ্রুতি দিয়ে এসেছেন। কিন্তু এত প্রচারের পরও AIMIM-এর ভোটব্যাংকে ফাটল ধরাতে পারল না গেরুয়া শিবির। তবে টিআরএসের ভোটব্যাংকে বড়সড় ফাটল ধরাল তারা। সেই সঙ্গে কার্যত বিপক্ষকে বুঝিয়ে দিল, আগামী বিধানসভা নির্বাচনের আগে বিজেপি কিন্তু পুরোপুরি তৈরি।

 

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement