BREAKING NEWS

৪ আশ্বিন  ১৪২৭  সোমবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

বাজারে অনিশ্চয়তার জের, সর্বকালের সব রেকর্ড ভেঙে দিল সোনা-রুপোর দাম

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: July 22, 2020 1:41 pm|    Updated: July 22, 2020 1:41 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: বাজারে অনিশ্চয়তা, দুর্বল অর্থনীতি, ডলারের দাম কমা এবং কূটনৈতিক টানাপড়েন। করোনা (COVID-19) মহামারীর আবহে এসবের জেরে আন্তর্জাতিক বাজারে বেশ কিছুদিন ধরেই বাড়ছিল সোনা-রুপোর দাম। সরাসরি যার প্রভাব পড়ছে ভারতীয় বাজারেও। দাম বাড়তে বাড়তে এবার সর্বকালের সব রেকর্ড ভেঙে ফেলল সোনা এবং রুপো। ইতিহাসে প্রথমবার ভারতের বাজারে ১০ গ্রাম সোনার দাম (Gold Price) পেরিয়ে গেল ৫০ হাজার টাকা। পাল্লা দিয়ে সর্বকালের সব রেকর্ড ভেঙে দিয়েছে রুপোর দামও।

বুধবার সোনার মাল্টি কমোডিটি এক্সচেঞ্জ (Multi Commodity Exchange) সূচক ১ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। যার ফলে একধাক্কায় সোনালি ধাতুর দাম বেড়েছে ৪৯৩ টাকা। এবং সর্বকালের সব রেকর্ড ভেঙে দিয়ে ১০ গ্রাম সোনার দাম গিয়ে দাঁড়িয়েছে ৫০ হাজার ১০ টাকায়। একটা সময় এমসিএক্সে সোনালি ধাতুর দাম বেড়ে ৫০ হাজার ২০ টাকা পর্যন্ত হয়েছিল। শহর কলকাতায় এই মুহূর্তে ১০ গ্রাম ২৪ ক্যারাট সোনার দাম প্রায় সাড়ে ৫১ হাজার। এদিকে সোনার সঙ্গেই পাল্লা দিয়ে বাড়ছে রুপোর দামও। বুধবার সকালে রুপোর দাম ৫.৭১ শতাংশ বেড়েছে। যার ফলে রুপোর বর্তমান দাম গিয়ে দাঁড়িয়েছে ৬০,৬১৯ টাকায়। যা এখনও পর্যন্ত সর্বকালের রেকর্ড। এই আকাশছোঁয়া মূল্যের ফলে দেশের বাজারে সোনা-রুপোর চাহিদা তলানিতে। এমনিতেই মহামারীর আবহে বিয়ের মতো অনুষ্ঠান কম। ফলে অলঙ্কারের চাহিদা কম। এর মধ্যে আবার এই ব্যাপকহারে মূল্যবৃদ্ধি। এর ফলে ঘরোয়া স্বর্ণ ব্যবসায়ীরা এই মুহূর্তে চরম অনিশ্চয়তায় ভুগছেন।

[আরও পড়ুন: জঙ্গিদের মদত দিতেই সোনা পাচার কেরলে, চাঞ্চল্যকর দাবি NIA’র, অস্বস্তিতে বামেরা]

কিন্তু কেন সোনা-রুপোর এই রেকর্ড মূল্যবৃদ্ধি? বিশেষজ্ঞরা বলছেন এর মূল কারণ বাজারের অনিশ্চয়তা। করোনা মহামারীর জন্য শেয়ার বা মিউচুয়াল ফান্ডে বিনিয়োগ করার সাহস পাচ্ছেন না বিনিয়োগকারীরা। তাই অপেক্ষাকৃত নিরাপদ বিনিয়োগস্থল হিসেবে সোনাকেই বেছে নিচ্ছেন তাঁরা। শেয়ার বাজারে নিশ্চয়তা না পেলে বিনিয়োগকারীরা বরাবরই সোনার দিকে ঝোঁকেন। এই পরিস্থিতিতে যতদিন না মহামারীর আতঙ্ক দূর হবে সোনা-রুপোর দাম আম আদমির নাগালে আসবে না বলেই মনে করছেন বাজার বিশেষজ্ঞরা।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement