BREAKING NEWS

২৭ আষাঢ়  ১৪২৭  রবিবার ১২ জুলাই ২০২০ 

Advertisement

স্বাস্থ্যবিধি শিকেয় তুলে ধুমধাম করে বিয়ে, করোনায় আক্রান্ত ৯৫ জন অতিথি, মৃত বর

Published by: Sucheta Chakrabarty |    Posted: June 30, 2020 1:24 pm|    Updated: June 30, 2020 3:50 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: বিয়ের পর জীবনটা হতে পারত অন্যরকম। কিন্তু নিয়মভঙ্গের এটাই বোধহয় ‘শাস্তি’। পাটনার একটি বিয়ের অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিতদের মধ্যে ৯৫ জনের শরীরেই মিলল করোনা ভাইরাস। এমনকী বিয়ের দুদিনের মাথায় প্রাণ হারালেন বরও। ফলে ভয়ে কাঁটা হয়ে রয়েছেন অনুষ্ঠানে যাওয়া বাকি আমন্ত্রিতরা।

করোনা আবহেই বিয়ের ধুম দেশজুড়ে। পাটনাতেও দেখা গেল একই ছবি। পাটনা থেকে ৫০ কিমি দূরে পালিগঞ্জের (Palyguanj) একটি গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। বিয়ের মাত্র দুদিনের মাথায় এক যুবক করোনায় আক্রান্ত হয়ে প্রাণ হারালেন বলেই ধারণা অনেকের। গুরুগ্রাম নিবাসী সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার যুবকের মাত্র দু’দিন আগেই বিয়ে হয়। জানা যায়, বিয়ের কয়েকদিন আগে থেকেই যুবকের শরীরে করোনার উপসর্গ দেখা যায়। কিন্তু সেই বিষয়ে গুরুত্ব না দিয়ে যুবকের বিয়ে নিয়ে মেতেছিল পরিবার। এমনকী যুবকের মৃত্যুর পর করোনা (COVID-19) পরীক্ষা না করেই তাঁর শেষকৃত্য সম্পন্ন করা হয় বলে অভিযোগ জানান মৃতের প্রতিবেশীরা। জানা যায়, করোনার স্বাস্থ্যবিধিকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে যুবকের বিয়েতে ৫০ জনের বেশি লোককে আমন্ত্রণ জানানো হয়। বিয়ের পরই ৩০ বছর বয়সি যুবকের আকস্মিক মৃত্যুর খবর পেয়ে স্তম্ভিত হয়ে যান পরিজনেরা। এরপর যুবক ও তাঁর স্ত্রীয়ের পরিবারের ঘনিষ্ঠ আত্মীয়দের করোনা পরীক্ষার নির্দেশ দেয় জেলা প্রশাসন।

[আরও পড়ুন:‘কেন্দ্রের নির্দেশ মেনেই নিজেদের বদলে নেব’, বাধ্যতার সুর TikTok ইন্ডিয়া প্রধানের গলায়]

গত ১৫ জুন গুরুগ্রাম নিবাসী এই যুবকের বিয়ে হয় গ্রামের বাড়ি পাটনাতে (Patna)।   যুবকের মৃত্যুর পর তাঁর পরিজনেদের মধ্যে ১৫ জনের রিপোর্ট পজিটিভ আসে। এরপর রোগের উত্‍‌স নিয়ে কিছুটা সন্দিহান হয়ে পড়ে প্রশাসন। ফলে বিয়েবাড়িতে আমন্ত্রিত সকলেরই খোঁজ শুরু করে তারা। সোমবার আরও ৮০ জনের শরীরে এই ভাইরাসের অস্তিত্ব মিলেছে। বিহারে এই প্রথম একসঙ্গে এতজনের শরীরে করোনার উপস্থিতি ধরা পড়ল। 

[আরও পড়ুন:বোমা মেরে উড়িয়ে দেওয়া হবে মুম্বইয়ের তাজ হোটেল! লস্কর ‘জঙ্গি’র হুমকি ফোনে চাঞ্চল্য]

তবে যুবকের মৃত্যু কী করোনায় হয়েছে? সেই প্রশ্ন স্থানীয়দের মনে জাগলেও তাঁর করোনা পরীক্ষা করা সম্ভব হয়নি। কারণ প্রশাসনকে না জানিয়েই যুবকের শেষকৃত্য সম্পন্ন করেন তাঁর পরিজনরা। এই চরম আতঙ্কের সময় কীভাবে যুবকের পরিবার দায়িত্বজ্ঞানহীনের মত কাজ করল, সেই প্রশ্ন বারবার উঠে আসছে স্থানীয়দের মনে।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement