৭ আষাঢ়  ১৪২৮  মঙ্গলবার ২২ জুন ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

হাথরাসের ধর্ষণ ‘ছোট ঘটনা’, বিরোধীরা ইস্যু বানাচ্ছে! বিতর্ক উসকে দাবি যোগীর মন্ত্রীর

Published by: Biswadip Dey |    Posted: October 3, 2020 1:54 pm|    Updated: October 3, 2020 1:58 pm

Bengali News: Hathras case a small issue, woman was not raped, says UP minister | Sangbad Pratidin

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: হাথরাসে  ১৯ বছরের যুবতীর গণধর্ষণ ও তাঁর মৃত্যুর ঘটনা (Hathras Gang Rape) একটা ছোট ইস্যু। এমনটাই দাবি করলেন উত্তরপ্রদেশের (Uttar Pradesh) যোগী সরকারের মন্ত্রী অজিত সিং পাল। এমনকী বিতর্ক উসকে ধর্ষণের সত্যতা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন তিনি। মন্ত্রীর দাবি, চিকিৎসকেরা পরিষ্কার করে দিয়েছেন ওই তরুণীকে ধর্ষণ করা হয়নি।

উত্তরপ্রদেশের ইলেকট্রনিক্স এবং তথ্য প্রযুক্তিমন্ত্রী বলেছেন, ‘‘বিরোধীদের আক্রমণ করা নিয়ে আমাদের কিছু বলার নেই। ওদের কোনও ইস্যু নেই। তাই মাঝে মাঝে এই ধরনের ছোট ইস্যুকে তুলে ধরে। ওরা মানুষের স্বার্থে কিছু করছে না। ইস্যু তোলাটাই ওদের উদ্দেশ্য।’’ তবে ঘটনাটিকে ‘ছোট’ আখ্যা দিয়েও তাঁর বক্তব্য, ‘‘বিষয়টি নিয়ে তদন্ত হওয়া দরকার। তদন্তে যা উঠে আসবে সেটা জনগণের সামনে তুলে ধরা হবে। যদিও চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, ধর্ষণ হয়নি।’’

 

[আরও পড়ুন: ‘মেলেনি বীর্য, ধর্ষণই হয়নি’, হাথরাস কাণ্ডে ফরেন্সিক রিপোর্ট দেখিয়ে বিস্ফোরক দাবি পুলিশের!]

গত বৃহস্পতিবার রাজ্যের এক পুলিশ আধিকারিক জানিয়েছিলেন, ফরেনসিক রিপোর্টে বলা হয়েছে, নির্যাতিতার শরীরে কোথাও কোনও বীর্য পাওয়া যায়নি। সুতরাং ধর্ষণ হয়নি। কিন্তু আইন বিশেষজ্ঞরা এই দাবিকে উড়িয়ে জানিয়েছেন, নির্যাতিতার শরীরে বীর্যের উপস্থিতিই অপরাধের সপক্ষে একমাত্র প্রমাণ নয়। তাই কেবল এই কারণেই ধর্ষণের তত্ত্বকে নাকচ করা যায় না। 

[আরও পড়ুন: টলাতে পারেনি পুলিশি বাধা! আজ ফের হাথরাসের পথে রাহুল, যেতে পারেন অখিলেশও]

এদিকে শনিবার হাথরাসে সংবাদমাধ্যমকে প্রবেশাধিকার দিয়েছে প্রশাসন। উপবিভাগীয় জেলাশাসক প্রেম প্রকাশ জানিয়েছেন, সিটের তদন্তের কাজ প্রাথমিকভাবে শেষ হয়েছে। তাই আপাতত কেবল সংবাদমাধ্যমকেই প্রবেশাধিকার দেওয়া হচ্ছে। তবে একসঙ্গে পাঁচজনের বেশি সাংবাদিককে ঢুকতে দেওয়া হবে না। কেননা এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি রয়েছে।রাজনৈতিক বা অন্য কোনও প্রতিনিধি দলকে অবশ্য এখনও ঢুকতে দেওয়া হবে না এলাকায়। একথা জানানোর পাশাপাশি তিনি বলেন, ‘‘নির্যাতিতার পরিবারের সদস্যদের পরিবারের ফোন কেড়ে নেওয়া কিংবা তাঁদের গৃহবন্দি করে রাখার যে অভিযোগ উঠেছে তা একেবারেই ভিত্তিহীন।’’

প্রসঙ্গত, গত ১৪ সেপ্টেম্বর উত্তরপ্রদেশের হাথরাস জেলার ওই দলিত যুবতী ধর্ষণ এবং নৃশংসতার শিকার হন। দিল্লির সফদরজং হাসপাতালে মঙ্গলবার সকালে তাঁর মৃত্যু হয়।

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement