৫ আশ্বিন  ১৪২৬  সোমবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ২৭ ঘণ্টা বেপাত্তা থাকার পর বুধবার রাতে কংগ্রেস সদর দপ্তরে হাজির হয়েছিলেন পি চিদম্বরম। সাংবাদিক বৈঠকের পরই তাঁর গ্রেপ্তারির আশঙ্কা জোরদার হয়। কয়েক ঘণ্টার মধ্যে সেই আশঙ্কা সত্যি করে নাটকীয়ভাবে গ্রেপ্তার করা হয় প্রাক্তম অর্থমন্ত্রীকে। গেটে বাধা পাওয়ায় পাঁচিল টপকে তাঁর বাড়িতে ঢোকেন সিবিআই আধিকারিকরা। আর নিজেকে রক্ষা করতে পারেননি প্রাক্তন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। তাঁকে নিয়ে যাওয়া হয় দিল্লির সিবিআইয়ের সদর কার্যালয়ে সিজিও কমপ্লেক্স। সেখানেই জীবনে প্রথমবার লক আপে রাত কাটাতে হয় চিদম্বরমকে। যে সিবিআই-ইডি এককালে তাঁরই অধীনত্ব ছিল, তাঁদেরই চোখ রাঙানির মুখে পড়তে হয় প্রাক্তন অর্থমন্ত্রীকে। কীভাবে কাটল তাঁর সেই রাত?

[আরও পড়ুন: ‘অর্থনীতির বেহাল দশা নিয়ে প্রশ্ন তুলে গ্রেপ্তার চিদম্বরম’, দাবি কংগ্রেসের]

সিজিও কমপ্লেক্সের ১০ তলার শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত একটি সুইটে রাখা হয়েছিল চিদম্বরমকে। শৌচাগার বাদ দিয়ে সইটের প্রায় প্রতিটি কোণেই ছিল সিসি ক্যামেরা। দরজার বাইরে ছিলেন দু’জন নিরাপত্তারক্ষী। রাতে তাঁকে সেভাবে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়নি বলেই খবর। ঘুমনোর জন্য প্রায় ৬ ঘণ্টা সময় দেওয়া হয়েছিল। রুটিন স্বাস্থ্যপরীক্ষাও হয় তাঁর। সিবিআই সূত্রে খবর, পর্যাপ্ত আলো-বাতাসের মধ্যেও ভয় পাচ্ছিলেন চিদম্বরম। আধিকারিকদের তিনি প্রশ্ন করেন, এখানে কোনও ইঁদুর নেই তো? জানানো হয়, ইঁদুর-আরশোলা বা টিকটিকি কিছুই নেই সেখানে। সিবিআই আধিকারিকদের জবাবে আশ্বস্ত হন তিনি।

তবে গ্রেপ্তারির পর থেকেই কার্যত নিশ্চুপ ছিলেন চিদম্বরম। প্রায় সব প্রশ্নেরই সংক্ষিপ্ত উত্তর দেন। এমনকী রাতে কোনও খাবারও খাননি তিনি বলে জানা গিয়েছে। সিবিআইয়ের ক্যান্টিন থেকে তাঁর জন্য খাবার নিয়ে যাওয়া হলেও চিদম্বরম জানিয়ে দেন, তিনি কিছু মুখে দেবেন না। না খেয়েই ঘুমিয়ে পড়েন তিনি। আইএনএক্স মিডিয়ায় দুর্নীতির অভিযোগ প্রসঙ্গে রাতে কিছু জিজ্ঞাসা করা হয়নি তাঁকে বলেই খবর।

[আরও পড়ুন: ৯ বছর আগে গ্রেপ্তার করিয়েছিলেন চিদম্বরম, এবার বদলা নিলেন শাহ!]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং