BREAKING NEWS

২০ শ্রাবণ  ১৪২৭  বুধবার ৫ আগস্ট ২০২০ 

Advertisement

লিংক করা হয়ে গিয়েছে? সহজেই বন্ধ করুন ব্যাংক, মোবাইলের আধার সংযোগ

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: September 28, 2018 3:47 pm|    Updated: September 28, 2018 3:47 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: সরকারি নির্দেশ মেনে আগে ভাগেই ব্যাংক বা মোবাইলের সঙ্গে আধার সংযোগ করে ফেলেছেন অনেকেই। আসলে একটা সময় আধার লিংক না করা হলে কোনওরকম পরিষেবা পাওয়া যাবে না বলে জনশ্রুতি ছড়িয়েছিল আর তাতেই যত সমস্যার সৃষ্টি হয়। তড়িঘড়ি মোবাইল, ব্যাংক, ই-ওয়ালেটের সঙ্গে আধার সংযোগ করিয়ে নিয়েছেন প্রচুর মানুষ। কিন্তু সুপ্রিম নির্দেশে আর আধার সংযোগ বাধ্যতামূলক নয়, শুধুমাত্র প্যান এবং আইটি রিটার্নের ক্ষেত্রেই আধার বাধ্যতামূলক। সুপ্রিম কোর্টও স্বীকার করে নিয়েছে বেসরকারি সংস্থার হাতে আধার তথ্য তুলে দেওয়াটা নিরাপদ নয়।

[ব্যাংক-সিম কার্ডে বাধ্যতামূলক নয় আধার, ঐতিহাসিক রায় সুপ্রিম কোর্টের]

নয়া সুপ্রিম নির্দেশের পর আপনি চাইলেই এখন আপনার ব্যাংক, ই-ওয়ালেট এবং মোবাইল কানেকশনের সঙ্গে সংযোগ করা আধার ডি-লিংক করতে পারেন, অর্থাৎ সংযোগ বন্ধ করে দিতে পারেন। পদ্ধতিটি খুব কঠিনও নয়।ডি-লিংক করার জন্য প্রথমে আপনার ব্যাংক, ই-ওয়ালেট বা মোবাইল সার্ভিস প্রোভাইডারের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে যান। আপনার নিজের প্রোফাইলে লগ ইন করুন। আপনার ব্যক্তিগত তথ্যের কলামে গেলেই আপনাকে আধার ডি-লিংকের অপশন দেখানো হবে। অপশনটি ক্লিক করলে আপনার মোবাইলে একটি কনফার্মেশন এসএমএস আসবে। কনফার্মেশন কোডটি দিলেই আপনার মোবাইল বা ই-ওয়ালেট বা ব্যাংকের সঙ্গে আপনার আধার তথ্যের লিংক অকেজো হয়ে যাবে।

[সুপ্রিম নির্দেশের পর কোথায় কোথায় লাগবে আধার?]

যদি, আপনার ব্যাংকের ওয়েবসাইটে আধার ডি-লিংকের অপশনটি না দেখায় তাহলে আপনাকে একটি আবেদনপত্র লিখতে হবে। কাগজে কলমে লেখা আবেদনপত্রটি আপনার শাখার ম্যানেজারকে দিয়ে সই করিয়ে জমা দিন। জমা দিলে ব্যাংকের তরফে আপনাকে একটি অ্যাকনলেজমেন্ট স্লিপ দেওয়া হবে। সেটি সংগ্রহ করে নিশ্চিন্তে বাড়িতে বসে থাকুন। ব্যাংক কর্তৃপক্ষ আর কোথাও আপনার আধার নম্বর, আধারের জেরক্স কপি আপনার বায়োমেট্রি সংক্রান্ত কোনও তথ্য বা অন্য কিছু ব্যবহার করবে না। আপনি কাজে ব্যস্ত থাকলে ই-মেলের মাধ্যমেও করতে পারেন আবেদন।
আর মোবাইল কানেকশন বা ই-ওয়ালেটের ক্ষেত্রে ডি-লিংক অপশনটি না এলে ই-মেলের মাধ্যমে আবেদন করতে হবে। আবেদনপত্রটি পাঠাতে হবে সংস্থার সিইও বা ম্যানেজিং ডিরেক্টরকে।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement