২৮ আশ্বিন  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২০ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

‘গণতন্ত্র রক্ষা করতে টেবিলে উঠেছি, মাইকও ভেঙেছি’, স্বীকারোক্তি সাসপেন্ড হওয়া আপ সাংসদের

Published by: Biswadip Dey |    Posted: September 22, 2020 6:11 pm|    Updated: September 22, 2020 6:27 pm

An Images

ফাইল ছবি

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: কৃষি বিল নিয়ে রাজ্যসভায় (Rajya Sabha) সাংসদদের বিক্ষোভ-বিতর্কের মধ্যেই দিল্লির আপ সাংসদ সঞ্জয় সিং (Sanjay Singh) মেনে নিলেন তিনি ডেপুটি চেয়ারম্যানের টেবিলে উঠেছিলেন এবং মাইকও ভেঙেছিলেন। তবে তাঁর দাবি, এসব তিনি করেছেন গণতন্ত্রকে রক্ষা করতে।

দু’টি কৃষি বিল (Farm Bill 2020) পাশ করানো নিয়ে গত রবিবার কেন্দ্র ও বিরোধীপক্ষের সংঘাত চরমে উঠেছিল। ৮ বিরোধী সাংসদের বিরুদ্ধে উচ্চকক্ষে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির অভিযোগ ওঠার পর সোমবার রাজ্যসভার চেয়ারম্যান ভেঙ্কাইয়া নায়ডু তাঁদের সাসপেন্ড করেন। পরে সাসপেন্ড হওয়া সাংসদরা ধরনা শুরু করেন। মঙ্গলবার সকালে ধরনারত সাংসদদের চা খাইয়ে নিজেই অনশন শুরু করেন ডেপুটি চেয়ারম্যান হরিবংশ নারায়ণ সিং।

[আরও পড়ুন : বিরোধীদের চা খাইয়ে নিজে অনশনে রাজ্যসভার ডেপুটি চেয়ারম্যান, ‘বিহার তাস’ খেললেন মোদি]

সাসপেন্ড সাংসদদের অন্যতম ডেরেক ও’ব্রায়েন এই অভিযোগকে অস্বীকার করে জানিয়েছিলেন, তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ প্রমাণিত হলে তিনি সাংসদ পদ থেকে সরে দাঁড়াবেন। তাঁর ঠিক বিপরীত অবস্থানে দাঁড়িয়ে অভিযোগ কার্যত স্বীকার করে নিলেন সঞ্জয় সিং। এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে তিনি জানিয়েছেন, ‘‘হ্যাঁ, আমি মেনে নিচ্ছি আমি টেবিলে উঠেছিলাম। মাইকও ভেঙেছি। কিন্তু আমি যা কিছু করেছি তা গণতন্ত্রকে রক্ষা করতে। আগে সরকারকে ক্ষমা চাইতে হবে এবং বিলটা ফিরিয়ে নিতে হবে। মেনে নিতে হবে ভোটের প্রক্রিয়া সঠিক ছিল না। গণতন্ত্রের শ্বাসরোধ করে সরকার পাপ করেছে।’’

[আরও পড়ুন : সোমবার সন্ধে থেকে কাশ্মীরে টানা সেনা-জঙ্গি গুলির লড়াই, নিকেশ এক জেহাদি]

এদিকে রবিবারের আচরণের জন্য কেন সাসপেন্ড হওয়া সাংসদরা এখনও আক্ষেপ করেননি, তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন ভেঙ্কাইয়া নাইডু। এই প্রসঙ্গে সঞ্জয়ের সাফ জবাব, ‘‘সাংসদরা কেউ মানসিক ভারসাম্যহীন কিংবা পাগল নন। তাঁরা দেশের সংসদের দায়িত্বপ্রাপ্ত সদস্য। আমরা ভেবেছিলাম সরকার সুবিচার করবে এবং আইন-শৃঙ্খলা মেনে সংসদের কাজ পরিচালনা করবেন।’’ তাঁর দাবি, সাংসদরা বিলের জন্য ভোট করার কথা বললেও সরকার তা মেনে নেয়নি। এ জন্য সরকারের লজ্জিত হওয়া উচিত।বেশিরভাগ সাংসদের মতামত বিলের বিপক্ষে থাকা সত্ত্বেও ভোট না করেই বিলটি পাশ করার জন্য সরকারের উচিত কোটি কোটি কৃষকের কাছে ক্ষমা চাওয়া।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement