BREAKING NEWS

৭ আশ্বিন  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

‘বোন বললে ভোটে লড়ব’, নির্বাচনের মুখে বার্তা সঞ্জয় দত্তের

Published by: Bishakha Pal |    Posted: April 8, 2019 8:45 pm|    Updated: April 17, 2019 6:09 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ব্যালট যুদ্ধের আর মাত্র কয়েকদিন বাকি। দেশজুড়ে এখন জোরকদমে চলছে প্রচারাভিযান। চলছে মনোনয়ন জমা দেওয়ার পালা। দেশের একাধিক জায়গা থেকে এবার তারকারা প্রার্থী হয়েছেন। উর্মিলা মাতণ্ডকর, হেমা মালিনীর মতো অনেকেই নির্বাচনে লড়বেন এবছর। কিন্তু অভিনেতা সঞ্জয় দত্তের নাম সেই তালিকায় নেই। বোন প্রিয়া দত্ত ভোটে লড়লেও তিনি এসব থেকে শতহস্ত দূরে থাকেন। কিন্তু সোমবার তিনি জানিয়েছেন, যদি বোন চান, তিনি পরেরবার ভোটে দাঁড়াবেন।

মুম্বই (উত্তর-মধ্য) থেকে এবছর কংগ্রেসের হয়ে লড়ছেন সঞ্জয় দত্তের বোন প্রিয়া দত্ত। সোমবার তিনি দাদাকে সঙ্গে নিয়ে মনোনয়নপত্র জমা দিতে যান। বিজেপির পুনম মহাজনের সঙ্গে ব্যালটে টক্কর হবে তাঁর। মনোনয়ন জমা দেওয়ার আগে প্রিয়া সিদ্ধি বিনায়ক মন্দির, চার্চ ও দরগায় যান। তারপর জমা দেন মনোনয়ন। তিনি বলেছেন, নিজের কাজের জন্যই তিনি এই পর্যন্ত পৌঁছতে পেরেছেন। কৃতিত্ব পুরোটাই উপরওয়ালার।

[ আরও পড়ুন: অণ্ডালেও ফের বিতর্কিত গান বাজিয়ে প্রচার বাবুল সুপ্রিয়র ]

বোন প্রিয়ার সঙ্গে মনোনয়ন জমা দিতে গিয়েছিলেন দাদা সঞ্জয়ও। তিনি বলেন, “আমি সবসময় বোনের পাশে আছি, থাকব। যদি আমার বোন আমাকে ভোটে লড়ার নির্দেশ দেয়, অবশ্যই লড়ব। আমার বোন পাঁচ বছর পর ভোটে লড়ছে। ও যা চাইবে, আমি তাই করব।”

এবছর জানুয়ারি মাসে প্রিয়া দত্ত জানিয়েছিলেন, তিনি এবছর নির্বাচন লড়বেন না। কিন্তু কংগ্রেস প্রেসিডেন্ট রাহুল গান্ধীর কথায় পরে তিনি সিদ্ধান্ত বদলান। তখন এও শোনা গিয়েছিল, সঞ্জয় দত্ত নিজে এবছর লোকসভা নির্বাচনে লড়তে পারেন। তবে কংগ্রেসের টিকিটে নয়। সমাজবাদী পার্টির টিকিটে তাঁর ময়দানে নামার কথা শোনা যাচ্ছিল। কিন্তু অভিনেতা সেই তথ্য নাকচ করে দেন। জানিয়ে দেন, এখনই রাজনীতিতে আসতে চান না তিনি।

২০০৯ সালে লখনউ থেকে সমাজবাদী পার্টির হয়ে লড়ার কথা ছিল তাঁর। কিন্তু সুপ্রিম কোর্ট অস্ত্র মামলা থেকে তাঁর নাম বাদ না দেওয়ায় নির্বাচনের প্রার্থীপদ থেকে নিজের নাম প্রত্যাহার করে নেন অভিনেতা।

[ আরও পড়ুন: ধর্মনিরপেক্ষতাই ইউএসপি নুসরতের, ভিডিও বার্তায় তারকা প্রার্থীর প্রশংসায় মমতা ]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement