Advertisement
Advertisement

ভারতের এই স্থানে প্রাক্তন সেনা অফিসারদের নুন কিনতে হয় ১৫০ টাকায়

এমন এক জায়গা, যেখানে পৌঁছতে স্থানীয় সদর থেকে সময় লাগে ৭-১০ দিন৷

In Arunachal salt cost 150 per kg for retired soldiers
Published by: Sangbad Pratidin Digital
  • Posted:June 8, 2017 5:09 am
  • Updated:June 8, 2017 5:09 am

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: বিশ্বাস করাটা কঠিন মনে হতে পারে, কিন্তু এখনও এই দেশেরই একটি নির্দিষ্ট অঞ্চলে প্রাক্তন সেনা জওয়ান ও তাঁদের পরিবারকে প্রতি কিলো নুন কিনতে খরচ করতে হয় ১৫০ টাকা৷ এক কিলো চিনির দাম ২০০ টাকা৷ তাও অবশ্য মেলে না সবসময়৷

[মসজিদে অনুদানের টাকায় সীমান্তে সন্ত্রাস ছড়াচ্ছে পাক জঙ্গিরা]

যে জায়গাটির কথা বলা হচ্ছে, সেটি হল অরুণাচল প্রদেশে ভারত-মায়ানমার সীমান্তের কাছে একটি বিচ্ছিন্ন ভূখণ্ডের মতো এলাকা – বিজয়নগর৷ হিমালয়ের কোলে ছবির মতো দেখতে এই গ্রাম প্রায় ৮০০০ বর্গ কিলোমিটার জুড়ে অবস্থিত৷ ১৯৬১-তে অসম রাইফেলসের আইজি মেজর জেনারেল এ এস গুরায়ার নেতৃত্বে আধাসেনার একটি বাহিনী অরুণাচল প্রদেশে এই এলাকাটি আবিষ্কার করে৷ এ এস গুরায়ার পুত্রের নামে জায়গাটির নামকরণ করা হয়৷ বর্তমানে বিজয়নগরে প্রায় ৩০০ পরিবারের বাস৷ মূলত সেনাবাহিনীর প্রাক্তন সদস্য ও তাঁদের পরিবারের সদস্যরা বাস করেন এখানে৷

Advertisement

AP-2-web

Advertisement

ভারত-মায়ানমার সীমান্ত নির্ধারণের পর অসম রাইফেলসের অবসরপ্রাপ্ত জওয়ান ও তাঁদের পরিবারকে এখানে পুনর্বাসন দেওয়া হয়৷ তাঁদের আশ্বাস দেওয়া হয়, দ্রুতই ওই এলাকায় রাস্তা, স্কুল-সহ জীবনযাত্রার প্রয়োজনীয় পরিষেবা চালু হয়ে যাবে৷ দেওয়া হবে চাষবাসের জন্য জমিও৷ কিন্তু ২০১৭-তেও ছবিটা এমন কিছুই পাল্টায়নি৷ স্থানীয় বাসিন্দা জেড রালতে এই প্রসঙ্গে বলছেন, “১৯৬৪-তে তৎকালীন অসম রাইফেলসের সদস্য ছিলাম আমি৷ ভারত সরকার আমাদের এখানে ৫০ একর জমি দেওয়ার আশ্বাস দেয়৷ কিন্তু আমরা পেয়েছি মাত্র ১১ একর৷ সেই থেকে চাষবাস করে খাচ্ছি৷ এখন যা অবস্থা আমাদের নুন কিনতে হয় ১৫০ টাকা দিয়ে৷ পায়ে হেঁটে যাতায়াত করতে কষ্ট হয় প্রবীণদের৷”

শুধু নুন-চিনির মতো নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্যদ্রব্যই নয়, স্থানীয় হাসপাতালের দূরত্ব প্রায় ২০০ কিলোমিটার৷ বিমানপথ ছাড়া যাওয়ার অন্য কোনও উপায় নেই৷ বিজয়নগরে পৌঁছতে স্থানীয় সদর থেকে সময় লাগে অন্তত ৭-১০ দিন৷ ঘন জঙ্গলের মধ্যে দিয়ে কোথাও কোথাও হাঁটাপথ ছাড়া উপায় নেই৷ ফোন করতে একটিমাত্র PCO থেকে প্রতি মিনিটে পাঁচ টাকা খরচ করতে হয়৷ তবে অসম রাইফেলসের সদস্যরা নিয়মিত সাহায্য করেন বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা৷ তাঁদের দাবি, এবার অন্তত বাচ্চাদের পড়াশোনা ও গর্ভবতীদের জন্য হাসপাতালের ব্যবস্থা করুক সরকার৷

[মাচিল সেক্টরে অনুপ্রবেশের ছক রুখে চার জঙ্গিকে নিকেশ করল সেনা]

Sangbad Pratidin News App

খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ