BREAKING NEWS

৭ আশ্বিন  ১৪২৭  বুধবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

করোনা পরিস্থিতিতেও ভারত বিরোধিতার চেষ্টা, ইসলামাবাদকে সতর্ক করল দিল্লি

Published by: Soumya Mukherjee |    Posted: April 10, 2020 3:49 pm|    Updated: April 10, 2020 3:49 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ব্যবহারেই দায়িত্বের পরিচয় পাওয়া যায়। করোনা মোকাবিলায় সার্ক (SAARC) গোষ্ঠীভুক্ত দেশগুলির উদ্যোগে পাকিস্তান যেভাবে বাগড়া দেওয়ার চেষ্টা করছে। তার প্রেক্ষিতেই এই মন্তব্য করা হল ভারতের তরফে। গত বুধবার ভারতের নেতৃত্বে আয়োজিত সার্ক দেশগুলির বাণিজ্য কর্তাদের ভিডিও কনফারেন্স বয়কট করেছিল পাকিস্তান। শুধু তাই নয়, তাদের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছিল ভারতের বদলে সার্কের সচিব পর্যায়ের তরফে বৈঠক ডাকা হলেই একমাত্র মান্যতা দেওয়া। না হলে এই বৈঠক কখনই কার্যকরী হবে না। তাই এই ভিডিও কনফারেন্সে হাজির থাকছে না তারা।

গতকালও ইসলামাবাদের তরফে বিবৃতি দিয়ে জানানো হয়েছে, করোনা তহবিলের টাকা যেন সার্ক গোষ্ঠীভুক্ত দেশগুলির সচিবালয়ের নির্ধারিত তালিকা অনুযায়ী করা হয়। এই বিষয়ে সার্কের সেক্রেটারি জেনারেলের সঙ্গে পাকিস্তানের বিদেশ সচিব সোহেল মাহমুদের বিস্তারিত কথা হয়েছে বলেও জানায়।

[আরও পড়ুন: নিজামুদ্দিনের সমাবেশে হাজির কংগ্রেস নেতাও, করোনায় আক্রান্ত গোটা পরিবার ]

 

এর জবাবে ভারতীয় বিদেশ মন্ত্রক জানায়, এই বিষয়ে প্রথমেই ভারতের প্রধানমন্ত্রী যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন সেই হিসেবেই কাজ হবে। আফগানিস্তান, বাংলাদেশ, ভুটান, মালদ্বীপ, নেপাল ও শ্রীলঙ্কাকে প্রয়োজনীয় সামগ্রী এবং চিকিৎসা সংক্রান্ত পরিষেবা প্রদান করা হবে। এই তহবিল গঠনের সময়ই এই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিয়েছিল সার্ক গোষ্ঠীভুক্ত দেশগুলি। এই বিষয়ে প্রত্যেকটি দেশের ব্যবহারই তাদের দায়িত্ববোধের পরিচয় দেয়।

করোনা ভাইরাসের প্রকোপে বিশ্বজুড়ে মৃত্যুমিছিল শুরু হয়েছে। আক্রান্তের পাশাপাশি দ্রুত গতিতে বাড়ছে মৃতের সংখ্যাও। কয়েকদিন আগে পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার জন্য সার্ক গোষ্ঠীভুক্ত দেশগুলির রাষ্ট্রপ্রধানদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সের বৈঠক করেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। এরপর তিন মিলিয়ন মার্কিন ডলারের একটি তহবিলও গঠন করা হয়। করোনা মোকাবিলার জন্য সবরকম প্রস্তুতিও শুরু হয়। কিন্তু, তাতে প্রথম থেকে বাগড়া দিতে থাকে পাকিস্তান। এই বিষয়ে হওয়া প্রথম ভিডিও কনফারেন্সে সমস্ত রাষ্ট্রপ্রধানরা থাকলেও একমাত্র ছিল না ইমরান খান। তাঁর বদলে হাজির ছিল একজন আমলা। আর গত বুধবার তার থেকেও একধাপ এগিয়ে গিয়ে বৈঠকে হাজির থাকল না তাদের কোনও প্রতিনিধি। উলটে দাবি করা হল, এই ধরনের বৈঠক তখনই কার্যকরী হবে যদি তা সার্ক গোষ্ঠীভুক্ত দেশগুলির সচিব পর্যায় থেকে ডাকা হয়। আসলে সার্ক গোষ্ঠীভুক্ত দেশগুলি যেভাবে ভারতের নেতৃত্বে করোনা যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছে তা সহ্য হচ্ছে না ইমরান খানের সরকারের। তাই বিভিন্ন ছুতোয় এই উদ্যোগ ভেস্তে দেওয়ার চেষ্টা করছে তারা।

[আরও পড়ুন: লকডাউনে পুলিশকে এড়াতে সাঁতার কেটে বাড়ি পৌঁছনোর চেষ্টা, ডুবে মৃত্যু ব্যক্তির]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement