BREAKING NEWS

২০ জ্যৈষ্ঠ  ১৪২৭  বুধবার ৩ জুন ২০২০ 

Advertisement

পুজোর মধ্যেই রেওয়ারি স্টেশন ও একাধিক মন্দির উড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দিল জইশ

Published by: Sulaya Singha |    Posted: September 15, 2019 9:34 pm|    Updated: September 16, 2019 12:53 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: আগামী ৮ অক্টোবরের মধ্যে নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে হরিয়ানার রেওয়ারি রেল স্টেশন। উড়িয়ে দেওয়া হবে বেশ কয়েকটি মন্দিরও। চিঠি লিখে এমনই হুমকি দিল জঙ্গিগোষ্ঠী জইশ-ই-মহম্মদ। স্বাভাবিকভাবেই এমন খবরে দেশজুড়ে ছড়িয়েছে চাঞ্চল্য।

[আরও পড়ুন: ভোপালে মাদ্রাসার আড়ালে বর্বরতা! নাবালককে শিকল দিয়ে বেঁধে গ্রেপ্তার মালিক]

রবিবার হরিয়ানা পুলিশ নিশ্চিত করে জানায়, করাচির মাসুদ নামের এক ব্যক্তি একটি চিঠি পাঠিয়েছে। সেখানেই হুমকি দেওয়া হয়েছে যে আগামী ২৫ দিনের মধ্যেই আরও একবার সন্ত্রাস হানায় কেঁপে উঠবে ভারত। প্রবল বিস্ফোরণে উড়িয়ে দেওয়া হবে রেওয়ারি স্টেশনকে। হরিয়ানার অন্যতম ব্যস্ত স্টেশন এটি।সেই কারণেই একে টার্গেট করা হচ্ছে বলে ধারণা। এছাড়াও চিঠিতে উল্লেখ রয়েছে একাধিক রাজ্যের নাম, যেখানকার মন্দিরে হামলার হুমকি দেওয়া হয়েছে। পুলিশের ধারণা, মাসুদ নামের ব্যক্তি আর কেউ নয়, খোদ জইশ প্রধান মাসুদ আজহারই। সে-ই এ চিঠি পাঠিয়েছে। এমন চিঠি পাওয়ার পর থেকেই রেওয়ারি স্টেশনের নিরাপত্তা আঁটসাট করা হয়েছে। সতর্ক করা হয়েছে অন্যান্য রেল স্টেশনগুলিকেও।  

Letter

উল্লেখ্য, গত মাসেই নৌসেনা প্রধান অ্যাডমিরাল করমবীর সিং জানিয়েছিলেন, জলের নিচ থেকে ভারতে হামলার ছক কষছে জঙ্গি সংগঠনটি। যে কারণে জঙ্গিদের প্রশিক্ষণ দেওয়াও শুরু করে দিয়েছে জইশের ‘আন্ডারওয়াটার উইং’। নৌসেনা প্রধান বলেছিলেন, গোয়েন্দাদের থেকেই এ তথ্য পেয়েছেন তাঁরা। তবে সমস্তরকম অপ্রীতিকর পরিস্থিতির সম্মুখীন হতে তৈরি বাহিনী। তারা সদা সতর্ক। তাই এই প্রকার হামলার পরিকল্পনা ভেস্তে দিতে প্রস্তুত নৌসেনা। কিন্তু এদিনের হুমকি চিঠির পর বিষয়টি আরও গম্ভীর হয়ে উঠেছে।

[আরও পড়ুন: অন্ধ্রের গোদাবরীতে ভয়াবহ নৌকাডুবি, লাফিয়ে বাড়ছে মৃতের সংখ্যা]

২০০৮-এর ২৬ নভেম্বর নৌকা করে মুম্বইয়ে ঢুকে হামলা চালিয়েছিল লস্কর-ই-তইবা। সন্ত্রাস হানায় মৃত্যু হয়েছিল কমপক্ষে ১৬০ জনের। এবার ভারতে সাবমেরিন হামলার ষড়যন্ত্র করছে জইশ-ই-মহম্মদ। পাকিস্তানের যে জঙ্গি সংগঠনটি চলতি বছরই পুলওয়ামা কাণ্ডের দায় স্বীকার করেছিল। সমুদ্রপথে যে কোনও ধরনের অনুপ্রবেশের ঘটনা রুখতে উপকূলের নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা সংস্থাগুলিকেও সতর্ক করা হয়েছে। তবে এমন চিঠিতে সিঁদুরে মেঘ দেখছে ভারত।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement