২১ আষাঢ়  ১৪২৭  মঙ্গলবার ৭ জুলাই ২০২০ 

Advertisement

নমাজের নামে লকডাউনের নিয়ম ভাঙা ‘হারাম’, তবলিঘি জামাতকে একহাত মুসলিম ধর্মগুরুর

Published by: Subhamay Mandal |    Posted: April 3, 2020 3:17 pm|    Updated: April 3, 2020 3:17 pm

An Images

ফাইল ফটো

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: দিল্লির নিজামুদ্দিন মারকাজে লকডাউন উপেক্ষা করে তবলিঘি জামাতের অনুষ্ঠান ঘিরে উত্তাল গোটা দেশ। ওই অনুষ্ঠানে জমায়েতকারী প্রায় ৯০০০ মানুষকে চিহ্নিত করেছে কেন্দ্র সরকার। এই জমায়েতের ঘটনায় লকাডাউনের নিয়ম ভাঙায় উদ্যোক্তাদের একহাত নিলেন জমিয়ত উলেমা-এ-হিন্দের সাধারণ সম্পাদক মৌলানা মাহমুদ মদনি। নোভেল করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রুখতে দেশের সমস্ত মুসলিম একজোট। কিন্তু যেভাবে তবলিঘি জামাতের উদ্যোক্তারা কুসংস্কারের আড়ালে নিয়ম লঙ্ঘন করেছেন তার কড়া নিন্দা করেছেন মদনি।

তিনি সম্প্রতি একটি সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, ভারতে প্রায় ১০ লক্ষেরও বেশি মসজিদ রয়েছে। কিন্তু প্রত্যেকটি মসজিদ এই সংকটের মুহূর্তে সরকারি নির্দেশিকা মেনে চলছে। সবাই এই লড়াইয়ে একজোট হয়ে সরকারের পাশে রয়েছে। ভারতীয় মুসলিমরা ১০০ শতাংশ একমত এই ব্যাপারে। কিন্তু তবলিঘি জামাতের প্রধান মৌলানা মহম্মদ সাদ কান্ধালভি অনুগামীদের সরকারি নির্দেশিকা অমান্য করার নিদান দিয়েছেন তা নিন্দনীয় বলে জানিয়েছেন মদনি। কান্ধালভির অডিও বার্তাকে কটাক্ষ করে বলেছেন, যদি এটা সঠিক হয় তাহলে এইভাবে ধর্মবিশ্বাসের নাম করে মুসলিমদের বিপদের মুখে ঠেলে দেওয়ার কোনও মানে হয় না। কান্ধালভির কথার কোনও যুক্তি নেই।

[আরও পড়ুন: নগ্ন হয়ে মহিলা স্বাস্থ্যকর্মীদের কুইঙ্গিত! হাসপাতালে ‘অভব্যতা’ নিজামুদ্দিনের জমায়েতকারীদের]

আবার একইসঙ্গে তবলিঘি জামাত মারকাজের জমায়েতকারীদের অপরাধী হিসাবে দেখানো হচ্ছে বলেও সরকারকে সতর্ক করেন মদনি। নিজামুদ্দিনের ঘটনাকে দুর্ভাগ্যজনক ব্যাখ্যা করে সরকারের কাছে মদনির আবেদন, এই মুহূর্তে জমায়েতকারীদের চিহ্নিত করে তাঁদের স্বাস্থ্য পরিষেবা দেওয়া হোক যথাযথভাবে। পরে তাঁদের বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ করা যাবে। আগে ওরা বাঁচুক। তিনি নিজামুদ্দিনের ধর্মীয় অনুষ্ঠানের সঙ্গে যুক্ত প্রত্যেককে ভয় দূরে সরিয়ে এগিয়ে আসার আবেদন করেন। নাহলে তাঁরা নিজেদের এবং পরিজনদের জীবন বিপন্ন করছেন বলে সাবধান করেন মদনি।

দিল্লির হাসপাতালে তবলিঘি জামাতের সদস্যরা যেভাবে ডাক্তারদের সঙ্গে অভব্যতা করেছেন তার কড়া নিন্দা করে তিনি বলেছেন, এই সময়ে ডাক্তারদের সম্মান দেওয়া উচিত। তাঁদের পুরস্কৃত করা উচিত। তাঁদের উপর আক্রমণ করা গুরুতর অপরাধ। এটা মানুষ খুনের সমান। ইসলামের মতে, নিজেকে এবং অন্যদের বিপদের মুখে ফেলে দেওয়া হারাম। আর নিজামুদ্দিনে জমায়েতকারীদের উদ্ধার করতে জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভাল যেভাবে আসরে নেমেছিলেন তার ভূয়সী প্রশংসা করেছেন মদনি। সেইসঙ্গে এটাও বলেছেন, যেটা দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালের করার কথা ছিল সেটা ডোভাল করেছেন।

[আরও পড়ুন: চিকিৎসকদের মুখে থুতু! কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে ‘অভব্যতা’ নিজামুদ্দিনের জমায়েতকারীদের]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement