Advertisement
Advertisement

Breaking News

ঝাড়খণ্ড বিধানসভা

ভরসা ছোট দলগুলি, ঝাড়খণ্ডে অঙ্কের বিচারে পিছিয়ে থেকেও আশা ছাড়ছে না বিজেপি

সরকার বিজেপির নেতৃ্ত্বেই গঠিত হবে, দাবি মুখ্যমন্ত্রী রঘুবর দাসের।

Jharkhand assembly polls 2019, BJP not losing hope yet
Published by: Subhajit Mandal
  • Posted:December 23, 2019 11:47 am
  • Updated:December 23, 2019 11:50 am

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ঝাড়খণ্ডে দোদুল্যমান ফলাফলের ইঙ্গিত মিলতেই শুরু রাজনৈতিক দড়ি টানাটানি। এখনও পর্যন্ত ফলাফলের যা ট্রেন্ড, তাতে ঝাড়খণ্ড মুক্তিমোর্চা(JMM)-কংগ্রেস(Congress) এবং রাষ্ট্রীয় জনতা দলের(RJD) জোট বিজেপির থেকে বেশ খানিকটা আগে থাকলেও, সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাওয়ার ব্যাপারে নিশ্চিত নয়। আর এখানেই সুযোগ খুঁজছে বিজেপি (BJP)। বিরোধী জোট যদি সংখ্যাগরিষ্ঠতার আগেই আটকে যায়, তাহলে ছোট দলগুলিকে নিয়ে সরকার গড়ার মরিয়া চেষ্টা করতে পারে গেরুয়া শিবির। মুখ্যমন্ত্রী রঘুবর দাস ইতিমধ্যেই ঘোষণা করে দিয়েছেন, সরকার বিজেপির নেতৃত্বই গঠিত হবে।

Jharkhand-Election
ফলাফলের যা ট্রেন্ড তাতে, বিরোধী জোট আপাতত সংখ্যাগরিষ্ঠতার আশেপাশে ঘোরাফেরা করছে। কিন্তু, নিশ্চিতভাবে বলা যাচ্ছে না যে তাঁরা সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাবেই। অন্তত ৩ থেকে ৫টি আসনে দুই শিবিরের জোর লড়াই চলছে। তাই নির্দল তথা ছোট দলগুলির সমর্থন জোগাড়ের মরিয়া চেষ্টা করছে দুই শিবিরই। কংগ্রেস-জেএমএম যদি সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়েও যায়, সেক্ষেত্রেও স্থায়ী সরকার চালানোর জন্য তাঁরা অন্তত বাড়তি ৫ জন বিধায়কের সমর্থন চাইবে। ঝাড়খণ্ডে ম্যাজিক ফিগার ৪২। বিরোধী জোট আপাতত দাঁড়িয়ে ৩৯ থেকে ৪৩ আসনের মধ্যে ঘোরাফেরা করছে। বিজেপি আবার ভাবছে, বিরোধী জোটকে যদি ৪০ আসনে আটকে ফেলা যায়, তাহলে ঘুরপথে সরকার গড়ার একটি সম্ভাবনা থাকছেই।

Advertisement

[আরও পড়ুন: ঝাড়খণ্ডের রায় LIVE: ঝাড়খণ্ডও হাতছাড়া হচ্ছে বিজেপির! জয়ের পথে কংগ্রেস-জেএমএম জোট ]


৮১ আসনের ঝাড়খণ্ড বিধানসভায় আপাতত বিজেপি ২৭-৩০ আসনের মধ্যে ঘোরাফেরা করছে। অন্যদিকে, বাবুলাল মারান্ডির ঝাড়খণ্ড বিকাশ মোর্চা (Jharkhand Vikas Morcha) ঘোরাফেরা করছে ৩-৫ আসনের মধ্যে। সুদেশ মাহাতোর এজেএসইউ পার্টি (AJSU Party) ঘোরাফেরা করছে ৫-৮ আসনের মধ্যে। এই দুটি ছোট দলই একসময় বিজেপির সঙ্গে জোটে ছিল। সুদেশ মাহাতোর সঙ্গে ইতিমধ্যেই যোগাযোগ করেছে বিজেপি। বাবুলাল মারান্ডির সঙ্গেও যোগাযোগ কথা হয়েছে গেরুয়া শিবিরের। বিরোধী জোট সংখ্যাগরিষ্ঠতার আগে আটকে গেলে এই তিন দলের সরকার গড়ার সম্ভাবনা উড়িয়ে দেওয়া যায় না। তবে, কংগ্রেসও হাত গুটিয়ে বসে নেই। তাঁদের তরফ থেকেও নির্দল ও বাবুলাল মারান্ডির তরফে যোগাযোগ রাখা হয়েছে। যদিও, সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে সরকার গড়ার ব্যপারে নিশ্চিত তাঁরা। শেষ পর্যন্ত ঝাড়খণ্ডের সরকার গড়া নিয়ে নতুন কোনও নাটক তৈরি হয় কিনা, সেদিকে নজর থাকবে রাজনৈতিক মহলের।

Advertisement

Sangbad Pratidin News App

খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ