৪ আশ্বিন  ১৪২৬  রবিবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: জম্মু ও কাশ্মীরের রাজ্যপাল সত্যপাল মালিককে ওই রাজ্যের বিজেপি সভাপতি বানানো উচিত। কটাক্ষ করে একথাই বললেন বহরমপুরের কংগ্রেস সাংসদ অধীর চৌধুরি। রাজ্যপালের আচরণ ও বিজেপি নেতাদের বক্তব্য একই সুরে বাঁধা বলেও অভিযোগ তাঁর।

[আরও পড়ুন: Man vs Wild: কীভাবে হিন্দি বুঝতেন বিয়ার গ্রিলস? ফাঁস করলেন প্রধানমন্ত্রী নিজেই]

এপ্রসঙ্গে তিনি বলেন, “জম্মু ও কাশ্মীরের রাজ্যপালকে ওই রাজ্যের বিজেপি সভাপতি বানানো উচিত। কারণ, তাঁর কথা ও বিবৃতি বিজেপি নেতাদের মতোই শোনাচ্ছে। তিনি যেভাবে কথা বলছেন তা গর্ভনরের সাংবিধানিক ঐতিহ্যের সঙ্গে খাপ খায় না। জম্মু ও কাশ্মীরের সমস্ত স্কুল ও কলেজ বন্ধ। মানুষকে কথা বলতে দেওয়া হচ্ছে না। যাঁরাও ওখানে যেতে চান তাঁদের যেতে দেওয়া হচ্ছে না।”

জম্মু ও কাশ্মীরের সামগ্রিক পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে শনিবার ভূস্বর্গে গিয়েছিলেন রাহুল গান্ধী-সহ বিরোধী দলের বেশ কয়েকজন নেতা। তবে শ্রীনগর বিমানবন্দর থেকেই তাঁদের দিল্লি ফেরত পাঠিয়ে দেওয়া হয়। এরপর থেকেই এই ঘটনা পুরোপুরি অসাংবিধানিক ও অগণতান্ত্রিক বলে প্রতিবাদে সরব হয়েছে বিজেপি বিরোধী দলগুলি। এপ্রসঙ্গে সিপিএমের সাধারণ সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরি জানান, এই ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে তাঁরা একটি লিখিত অভিযোগ পাঠিয়েছেন বুদগামের জেলাশাসককে। যেখানে তাঁরা উল্লেখ করেছেন যে শ্রীনগর বিমানবন্দরে তাঁদের আটক করার ঘটনা অসাংবিধানিক ও অগণতান্ত্রিক।

[আরও পড়ুন: নগ্ন ছবির বদলে পাঁচতারা হোটেলে চাকরির টোপ, কুপ্রস্তাব দিয়ে শ্রীঘরে ইঞ্জিনিয়ার]

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, ৩৭০ ধারা বাতিলের পর থেকে কাশ্মীরের সঙ্গে কার্যত যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে ভারতের বাকি অংশের। পরিস্থিতি অশান্ত হতে পারে এই আশঙ্কায় কোনও রাজনৈতিক দলের নেতাকেই সেখানে ঢুকতে দেওয়া হচ্ছে না। এর পরিস্থিতি গত শনিবার রাহুল গান্ধীর সঙ্গে জম্মু ও কাশ্মীর গিয়েছিলেন বর্ষীয়ান কংগ্রেস নেতা গুলাম নবি আজাদ, আনন্দ শর্মা, সিপিএম নেতা সীতারাম ইয়েচুরি ও সিপিআই নেতা ডি রাজা-সহ অন্যান্যরা। কিন্তু, তাঁদের শ্রীনগর বিমানবন্দরেই আটকে দেওয়া হয়।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং