১৪ আশ্বিন  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ১ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

নিহত সন্ত্রাসবাদীর স্মরণে ক্রিকেট ম্যাচ, কাশ্মীরে গ্রেপ্তার ১০ যুবক

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: September 5, 2020 5:36 pm|    Updated: September 5, 2020 10:43 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: অপরাধ বলতে শুধু প্রকাশ্যে ক্রিকেট ম্যাচ খেলা। এবং সেকারণেই গ্রেপ্তার করে নিয়ে গিয়েছে কাশ্মীর পুলিশ। আটক করে রাখা হয়েছে দীর্ঘক্ষণ। এতক্ষণ পড়ে মনে হতে পারে, এ ভারি অন্যায়। কিন্তু এর নেপথ্যে যে কী গভীর ষড়যন্ত্র, তা জানলে চোখ কপালে উঠতে বাধ্য। এই ক্রিকেট ম্যাচ আসলে সামান্য ক্রিকেট ম্যাচ নয়। এর আড়ালে বিচ্ছিন্নতাবাদীরা জেহাদের বিষ ছড়ানোর চেষ্টা করছে।

একটু খোলসা করেই বলা যাক। দিন দু’য়েক আগে কাশ্মীরের বারামুলায় ক্রিকেট খেলার অপরাধে UAPA অর্থাৎ বেআইনি কার্যকলাপ প্রতিরোধ আইনের (Unlawful Activities Prevention Act) অধীনে ১০ জনকে গ্রেপ্তার করেছে নিরাপত্তারক্ষীরা। যা নিয়ে রীতিমতো আলোড়িত হয়ে যায় উপত্যকার ওই এলাকা। এই UAPA প্রকারান্তরে দেশদ্রোহিতার ধারা। এখন প্রশ্ন উঠতে পারে, সামান্য ক্রিকেট খেলা দেশদ্রোহিতা কী করে হয়? আসলে ওই ক্রিকেট ম্যাচটি আয়োজিত হয়েছিল এক কুখ্যাত জঙ্গিনেতার স্মরণে। শুধু তাই নয়, আয়োজকরা ওই জঙ্গিনেতাকে স্মরণ করার জন্য তার নামাঙ্কিত জার্সিও ক্রিকেটারদের উপহার দিয়েছিল । যা রীতিমতো আইন বিরোধী।

[আরও পড়ুন: অতিথি দেব ভব! সংঘর্ষের আবহেই পথ হারানো ৩ চিনা নাগরিকের প্রাণ বাঁচাল ভারতীয় সেনা]

গত জানুয়ারিতে সৈয়দ রুবান (Syed Ruban) নামের ওই জঙ্গি নেতা এবং তাঁর ৯ সঙ্গী নিরাপত্তারক্ষীদের গুলিতে নিকেশ হয়। তারপর থেকেই ওই জঙ্গির ভাই বারামুলায় নিজের দাদার স্মরণে নানারকম কার্যকলাপ করে চলেছে। কখনও ক্রিকেট ম্যাচ আয়োজন আবার কখনও জঙ্গি রুবানের নাম লেখা জামা-কাপড় বিতরণ। আসলে দাদাকে স্মরণ করার পাশাপাশি ওই এলাকার তরুণ যুবসমাজের মধ্যে জেহাদের বিষ ঢুকিয়ে দেওয়ায় তার আসল উদ্দেশ্য। এবং সেজন্যই কাশ্মীর পুলিশ ক্রিকেট ম্যাচটির সঙ্গে যুক্ত ১০ জনকে গ্রেপ্তার করেছে। পুলিশের দাবি, কোনও জঙ্গিকে গৌরবান্বিত করা আসলে দেশদ্রোহিতারই শামিল।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement