BREAKING NEWS

১৯  আষাঢ়  ১৪২৯  সোমবার ৪ জুলাই ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

ধর্ষণের পর খ্রিস্টান যুবতীকে ধর্মান্তকরণের চেষ্টা মুসলিম যুবকের

Published by: Soumya Mukherjee |    Posted: September 25, 2019 5:55 pm|    Updated: September 26, 2019 9:16 am

Kerala student arrested for rape, forcing girlfriend to convert to Islam

ছবি: প্রতীকী

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ধর্ষণের পর এক খ্রিস্টান যুবতীকে ধর্মান্তকরণের চেষ্টা করল তার প্রেমিক। এই অভিযোগে মঙ্গলবার অভিযুক্ত যুবককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। ধৃতের নাম মহম্মদ জাসিম(১৯) বলে জানা গিয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে কেরলের কোঝিকোড়ে।

[আরও পড়ুন: দশেরায় বিশ্বের সবচেয়ে বড় রাবণের কুশপুতুল পোড়ানো হবে চণ্ডীগড়ে]

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, ধৃত জাসিমের সঙ্গে গত দুবছর ধরে প্রেম করছিল তার ক্লাসের একটি মেয়ে। মাসখানেক আগে মেয়েটির বয়স ১৮ পেরোনোর পর তাকে জোর করে ধর্ষণ করে অভিযুক্ত যুবক। তারপর মেয়েটি তাকে বিয়ে করতে চাপ দিলে, সে জানায় ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করলেই ওই যুবতীকে বিয়ে করবে সে। কিন্তু, তাতে রাজি হয়নি মেয়েটি। তাই তার সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করে দেয় অভিযুক্ত।

এপ্রসঙ্গে কোঝিকোড়ের এক পুলিশ আধিকারিক বলেন, ‘ছেলে ও মেয়েটি একই ক্লাস পড়ত। সেই সুবাদে দুবছর আগে তাদের মধ্যে ভালবাসার সম্পর্ক গড়ে ওঠে। মাসখানেক আগে মেয়েটি স্থানীয় থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করে। তাতে উল্লেখ করা হয়েছিল যে কিছুদিন আগে তাকে ধর্ষণ করে তার প্রেমিক। এই ঘটনার পরে সে ছেলেটিকে বিয়ের জন্য অনুরোধ করে। তখন অভিযুক্ত তাকে জানায়, ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করলেই সে মেয়েটিকে বিয়ে করবে। কিন্তু, তাতে রাজি না হয়ে পুলিশের দ্বারস্থ হয় মেয়েটি। তার অভিযোগের ভিত্তিতে একটি মামলাও দায়ের হয়েছে। এরপর ম্যাজিস্ট্রেটের সামনে গোপন জবানবন্দিও দিয়েছে সে। বুধবার ধৃত যুবককে আদালতে তোলা হলে জেল হেফাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন বিচারক।’

[আরও পড়ুন:‘এনআরসি হলে সর্বপ্রথম দিল্লিছাড়া হবেন মনোজ তিওয়ারি’, কটাক্ষ কেজরিওয়ালের]

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, গত সোমবারই এই সংক্রান্ত বিষয়ে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহকে একটি চিঠি পাঠিয়েছেন জাতীয় সংখ্যালঘু কমিশনের ভাইস চেয়ারম্যান জর্জ কুরিয়ান। মৌলবাদী মুসলিমরা খ্রিস্টানদের ধর্মান্তকরণের চেষ্টা করছে বলেই অভিযোগ করেন তিনি। তাঁর কাছে এই ধরনের দুটি অভিযোগ আসার পরে তিনি চিঠি লিখেছেন বলে জানা গিয়েছে।

যদিও এই ধরনের কোনও ঘটনা ঘটেনি বলে দাবি করেছে কেরলের বাম সরকার। উলটে তাদের অভিযোগ, রাজনৈতিক ফায়দা লোটার জন্যই জাতীয় সংখ্যালঘু কমিশনের তরফে ওই চিঠি পাঠানো হয়েছে।

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে