BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  শনিবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

কেন্দ্রের কড়া নজরে ১৩টি বড় শহর! সোমবার থেকেই বাড়তে পারে লকডাউনের মেয়াদ

Published by: Sucheta Chakrabarty |    Posted: May 30, 2020 2:30 pm|    Updated: May 30, 2020 2:31 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: সোমবার থেকে কলকাতা হাওড়া-সহ ১৩টি শহরে লকডাউনের পঞ্চম পর্ব কার্যকর হওয়ার সম্ভাবনা। এই শহরগুলি থেকেই দেশের ৭০ শতাংশ করোনা আক্রান্তের সন্ধান পাওয়া গেছে বলে জানা যায়। তাই কড়া হাতে সংক্রমণ রুখতে সোমবার থেকেই কার্যকর হতে পারে লকডাউনের পঞ্চম দফা। আক্রান্তের নিরিখে দেশের ১৪৫ টি জেলাকেও নতুন করে হটস্পট হিসেবেও চিহ্নিত করেছে কেন্দ্র। এই জেলাগুলিই দেশে করোনা সংক্রমণের নতুন ‘ভরকেন্দ্র’ হিসেবে গড়ে উঠেছে বলে বৃহস্পতিবার ঘোষণা করেন মন্ত্রিসভার সচিব রাজীব গৌবা।

দেশে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা ভাইরাস সংক্রমণের মাত্রা। যা রুখতে রীতিমত হিমশিম খেতে হচ্ছে চিকিৎসকদের। এরই মাঝে কলকাতা, হাওড়া, পুণে, মুম্বই-সহ ১৩টি শহরে সোমবার থেকেই লকডাউনের পঞ্চম দফা লাগু হওয়ার ইঙ্গিত মিলেছে। কড়া হাতে সেখানে করোনার মোকাবিলা করা হতে পারে। কারণ, দেশের মোট ৭০ শতাংশ আক্রান্তের সন্ধান মিলেছে এই শহরগুলির থেকে। এই শহরগুলি হল- মুম্বই, চেন্নাই, দিল্লি, আহমেদাবাদ, থানে, পুণে, হায়দরাবাদ, কলকাতা-হাওড়া, ইন্দোর, জয়পুর, যোধপুর, ছেঙ্গালপাট্টু, তিরুভাল্লুর (Tiruvallur)। অন্যদিকে রবিবারই শেষ হচ্ছে লকডাউনের চতুর্থ পর্ব। তার আগেই সংক্রমিত শহরগুলির সার্বিক পরিস্থিতি দেখে কড়া হাতে হাল ধরতে চায় কেন্দ্র। বৃহস্পতিবার এই মর্মে কেন্দ্রের দুটি উচ্চ পর্যায়ের বৈঠকের আয়োজন করা হয়। সেখানে মন্ত্রিসভার সচিব রাজীব গৌবা ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ হাজির থেকে বেশ কিছু সিদ্ধান্ত নেন। অন্যদিকে পঞ্চম দফা লকডাউনে সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য রাজ্য সরকারগুলিকে বেশ কিছু ক্ষেত্রে ছাড় দেওয়া হয়। তবে ছাড় মিললে কেন্দ্রের প্রকাশিত অনেক নিয়মই রাজ্যগুলিকে মেনে চলতে হবে বলে সাফ জানায় কেন্দ্র।

[আরও পড়ুন:করোনা যুদ্ধে চিকিৎসা পরিষেবা মজবুত করতে ৫০০ ডাক্তার-নার্স নিচ্ছে রাজ্য]

বৃহস্পতিবারেরই বৈঠকে দেশের ১৪৫টি জেলাকে নতুন করে করোনা সংক্রমণের ‘ভরকেন্দ্র’ হিসেবে চিহ্নিত করে কেন্দ্র। করোনা সংক্রমণের মাত্রা দেখেই জেলাগুলিকে হটস্পটের তালিকাতেও অন্তর্ভুক্ত করা হয়। বৃহস্পতিবার মন্ত্রিসভার সচিব (cabinet secretary) রাজীব গৌবা (Rajiv Gauba) প্রতিটি রাজ্যের প্রতিনিধিকে জানিয়ে দিয়েছেন যে, সামগ্রিকভাবে পূর্ব ভারত দেশে করোনার হটস্পট হয়ে উঠতে পারে। কারণ, করোনায় যে রাজ্যগুলি সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত সেখান থেকে পরিযায়ী শ্রমিকরা পূর্ব ভারতে ফিরেছেন।

[আরও পড়ুন:বাড়ছে করোনা রোগীর সংখ্যা, চাপ কমাতে বর্ধমানে এবার নয়া কোভিড হাসপাতাল]

পূর্ব ভারতের রাজ্য সরকারদের বিরুদ্ধে তোপ দেগে মন্ত্রিসভার সচিব বলেন, “পশ্চিমবঙ্গ, বিহার, ওড়িশা সহ পূর্ব ভারতের ১২ টি রাজ্য আগে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ঠিকমতো জানায়নি। চলতি মাসের শুরু থেকেই পূর্বের রাজ্যগুলিতে ব্যাপক হারে সংক্রমণ বৃদ্ধি পেয়েছে। আগে ত্রিপুরা ও মণিপুরের মতো রাজ্যে সংক্রমণের হার খুবই কম ছিল। এখন সেখানেও সংক্রমিতের সংখ্যা বেড়েছে।” তাই কোনওরকম ঝুঁকি না নিয়ে সাবধানী হয়ে মারণ ভাইরাসের সঙ্গে যুদ্ধে কোমর বেঁধে নামতে চায় মোদি সরকার।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement