৪ আশ্বিন  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

বাড়তে পারে লকডাউন, মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে বৈঠকে ইঙ্গিত প্রধানমন্ত্রীর

Published by: Sucheta Chakrabarty |    Posted: April 27, 2020 3:41 pm|    Updated: April 27, 2020 3:46 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: দেশের সব মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে আজ বৈঠক করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। ৩ মে-এর পরেও দেশে লকডাউন বহাল থাকবে কিনা, থাকেলও তা কোথায় রাখা হবে? তাই নিয়ে আলোচনা হয় এই বৈঠকে।

করোনার প্রকোপে ত্রস্ত দেশবাসী। লকডাউনের দ্বিতীয় পর্বের শেষে ফের তৃতীয় পর্ব শুরু হবে কিনা সেই নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে সকলেরই মনে। দ্বিতীয় পর্বের লকডাউন শুরুর আগেও দেশের সব মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে বৈঠক করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী।  সেই রীতি মেনে আজ, বেলা ১১ টা থেকে তিনি বৈঠক করলেন সমস্ত রাজ্য ও কেন্দ্রশাষিত অঞ্চলের প্রধানদের সঙ্গে। জানা গিয়েছে, অন্তত পাঁচটি রাজ্যও হটস্পট এলাকায় লকডাউনের মেয়াদ বাড়ানোর পক্ষেই সওয়াল করেছেন প্রধানমন্ত্রী। বৈঠকে সেই বিষয়েই তিনি ইঙ্গিত করেছেন। দেড় মাসে প্রায় হাজার জন দেশবাসীর প্রাণ বাঁচাতে সক্ষম হওয়ায় বৈঠকের শুরুতেই মোদি প্রতিটি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জ্ঞাপণ করেন। তিনি জানান, “এই মারণ ভাইরাসকে রুখতে আমাদের সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে।” করোনা রুখতে ‘দো গজ কি দূরি’-ই হল আসল মন্ত্র বলে উল্লেখ করেন তিনি। প্রতিটি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের তিনি নির্দেশ দেন, “তারা যেন নিজের রাজ্যের রেড জোনগুলিকে ক্রমে কমলা ও পরে সেগুলিকে সবুজ জোনে পরিণত করার চেষ্টা করেন। প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, “ভয় পেলে হবে না। সাহসের সঙ্গে লড়াই করে দেশের প্রতিটি মানুষে প্রাণ রক্ষা করতে হবে। লকডাউনে দেশের অর্থনীতির প্রতি গুরুত্ব দেওয়ার পাশাপাশি এখন করোনা মোকাবিলায় জোর দিতে হবে।” মাস্ক এবং মুখ ঢাকার বিষয়টি যাতে নাগরিক জীবনের অঙ্গ হয়ে ওঠে সে ব্যাপারেও জোর দেওয়ার পরামর্শ দেন নরেন্দ্র মোদি।

[আরও পড়ুন:লকডাউন ভেঙে জমায়েত, হটাতে যেতেই পুলিশ কর্মীর হাত ভাঙল জনতা]

সূত্রের খবর, এদিন বৈঠকে জিজ্ঞাসা করা হয় লকডাউন ওঠানোর পক্ষে কোন কোন রাজ্যের মত রয়েছে। মেঘালয় এবং হিমাচল প্রদেশ ছাড়া প্রায় সব রাজ্যই সমর্থন জানিয়েছেন লকডাউন তুলে নেওয়ার। সময়ের অভাবে ৯ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকে এদিন নিজেদের বক্তব্য রাখার সুযোগ দেওয়া হয়। মেঘালয়, মিজোরাম, পদুচেরি, উত্তরাখণ্ড, হিমাচল প্রদেশ, ওড়িশা, বিহার, গুজরাট এবং হরিয়ানা ছাড়া বাকি সব রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকে তাঁদের মতামত লিখিত ভাবে জানাতে বলা হয়েছে। তবে এই বৈঠকে কেরলের মুখ্যমন্ত্রী পিনরাই বিজয়ন থাকতে না পারলেও তিনি নিজের মতামত লিখিত আকারে জানাবেন বলে জানান। তাই সব মুখ্যমন্ত্রীদের লিখিত পরামর্শ দেখে তবেই প্রধানমন্ত্রী সিদ্ধান্ত নেবেন যে দেশে লকডাউনের মেয়াদ আর কতদিন। 

[আরও পড়ুন:মহামারির দিনলিপি, স্টেশনে আটকে পড়া যাত্রীরা লিখছেন দুঃসময়ের অভিজ্ঞতা]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement