২ আশ্বিন  ১৪২৭  রবিবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

রাজস্থানের সংকটের মধ্যেই আরও এক রাজ্যে কংগ্রেসে ভাঙন, বিজেপির পথে ৭ বিধায়ক!

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: July 13, 2020 10:16 am|    Updated: July 13, 2020 10:16 am

An Images

ছবিটি প্রতীকী

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: রাজস্থানে সরকার বাঁচানো নিয়ে নাজেহাল অবস্থা। এরই মধ্যে মধ্যপ্রদেশে ফের কংগ্রেসের (Congress) ঘর ভাঙল বিজেপি। হাত ছেড়ে পদ্মে শামিল হলেন আরও এক বিধায়ক। সূত্রের খবর, আরও অন্তত ৬ জন কংগ্রেস বিধায়ক লাইনে আছেন। আগামী কয়েকদিনের মধ্যে তাঁরাও গেরুয়া শিবিরে শামিল হতে পারেন।

২০ বছর পর মধ্যপ্রদেশের ছাত্তারপুর জেলার বড় মালহারা আসনটিতে বিজেপিকে হারিয়ে জয়ী হয়েছিলেন কংগ্রেসের প্রদ্যুম্ন সিং লোধি। শনিবার তিনি যোগ দিয়েছেন বিজেপিতে (BJP)। প্রথমে তিনি বিধানসভার স্পিকারের কাছে গিয়ে নিজের ইস্তফাপত্র জমা দেন। তারপর মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহানের (Shivraj Singh Chouhan) সঙ্গে দেখা করে বিজেপিতে যোগ দেন। সিন্ধিয়ার বিজেপি যোগের পর থেকেই অবশ্য প্রদ্যুম্নর গেরুয়া যোগ নিয়ে জল্পনা ছিল। সেই জল্পনাই সত্যি হল। এই বিধায়কের বিজেপি যোগ কংগ্রেসের জন্য বড় ধাক্কা। কারণ মধ্যপ্রদেশের ওই এলাকায় লোধি বহু সম্প্রদায়ের মানুষের বাস। শোনা যাচ্ছে, প্রদ্যুম্নর পর আরও অন্তত জনা ছয়েক কংগ্রেস বিধায়ক বিজেপির দিকে পা বাড়িয়ে আছেন। তাঁরা সকলেই বুন্দেলখণ্ড এলাকার কোনও না কোনও আসন থেকে জিতে এসেছেন। এই সাতজন বিধায়ক দলত্যাগ করলে মধ্যপ্রদেশে কংগ্রেসের অবস্থা আরও সঙ্গিন হবে, তাতে সন্দেহ নেই। হাত শিবিরের বিধায়ক সংখ্যা নেমে আসবে ৮৫-তে। সদ্য যে ২২ জন বিধায়ক কংগ্রেস ছেড়ে বিজেপিতে গিয়েছেন, তাঁদের আসনগুলি-সহ মোট ২৪ আসনে আগামী ৩ মাসের মধ্যে উপনির্বাচন হওয়ার কথা। নতুন করে ৭ জন বিধায়ক ইস্তফা দিলে উপনির্বাচন হবে ৩১ আসনে।

[আরও পড়ুন: আজই জেপি নাড্ডার সঙ্গে দেখা পাইলটের? সরকার পড়বে না, মাঝরাতে দাবি কংগ্রেসের]

এদিকে, রাজ্য বাজেটের মাত্র পাঁচদিন আগে মধ্যপ্রদেশের দপ্তর বণ্টন করলেন মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহান। জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়ার (Jyotiraditya Scindia) পিসি যশোধারা রাজে সিন্ধিয়াকে দেওয়া হয়েছে ক্রীড়া এবং যুব কল্যাণ দপ্তর। স্বরাষ্ট্র, আইন শৃঙ্খলা এবং পরিষদীয় দপ্তর পেয়েছেন বিজেপি নেতা নরোত্তম মিশ্র। সার্বিকভাবে মুখ্যমন্ত্রী চৌহানের ক্ষমতা আগের বারের চেয়ে অনেকটাই কমেছে।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement