৪ আশ্বিন  ১৪২৬  রবিবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: যৌন হেনস্তা মামলায় অভিযুক্ত মেজর জেনারেল আর এস জসওয়ালকে বাহিনী থেকে বরখাস্ত করল সেনা। এমনকী শাস্তি হিসাবে তার আজীবন পেনশনও বন্ধ করা হল। এব্যাপারে গত ডিসেম্বরে সামরিক আদালত যে নির্দেশ দিয়েছিল, তাতেই শুক্রবার চূড়ান্ত সিলমোহর দিয়ে দিয়েছেন সেনাপ্রধান বিপিন রাওয়াত।

[ আরও পড়ুন: পেহলু খান গণপিটুনি কাণ্ডের রায় নিয়ে বিতর্কিত টুইট, ফৌজদারি মামলা প্রিয়াঙ্কার বিরুদ্ধে ] 

জানা গিয়েছে, সেনাবাহিনীর মেজর জেনারেল আর এস জসওয়ালের বিরুদ্ধে ২০১৬-তে যৌন হেনস্তার লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন ক্যাপ্টেন স্তরের এক মহিলা সেনাকর্তা। ঘটনাটি যখন ঘটে, তখন জসওয়াল নাগাল্যান্ডে অসম রাইফেলসে কর্মরত ছিলেন। সেনাবাহিনীর ইস্টার্ন কম্যান্ডের অধীন চন্ডিমন্দিরের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন তিনি। যৌন হেনস্তার অভিযোগ ওঠার পর গত ডিসেম্বরে তাঁকে বাহিনী থেকে বরখাস্ত করার নির্দেশ দেয় সেনা আদালত। তবে বাহিনীর নিয়ম অনুযায়ী এরপর ওই নির্দেশ কার্যকর করার ঘোষণা করা হবে বাহিনীর শীর্ষ কর্তৃপক্ষের তরফে। শুক্রবার সেই সিদ্ধান্তই নিশ্চিত করলেন সেনাপ্রধান বিপিন রাওয়াত।

অবশ্য জসওয়ালের আইনজীবী আনন্দ কুমার রাওয়াতের এই ঘোষণাকে বেআইনি বলে দাবি করেছেন। তিনি জানিয়েছেন, প্রক্রিয়াটিতে অনেক নিয়মই মানা হয়নি। তাই শাস্তির এই সিদ্ধান্তকে চ্যালেঞ্জ জানাবেন তাঁরা। কুমার জানান, সেনাবাহিনীর নিয়ম অনুযায়ী চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের আগে অভিযুক্তকে তাঁর কথা বলার সুযোগ দেওয়া হয়। কিন্তু, জসওয়ালের ক্ষেত্রে সে নিয়ম মানা হয়নি। ফৌজি আাদলতের নির্দেশের বিরুদ্ধে পালটা আবেদন করার সুযোগ দেওয়া হয়নি তাঁকে। আবেদনটি করার জন্য বিচারপ্রক্রিয়ার একটি খসড়া দরকার হয়, যা সেনাবাহিনীর তরফে অভিযুক্ত মেজর জেনারেলকে পাঠানোর কথা। জসওয়ালের ক্ষেত্রে সেই খসড়াটিও পাঠায়নি সেনাবাহিনী। এছাড়া, অভিযুক্ত মেজর জেনারেলের করা একটি পুনর্বিবেচনার আবেদনেরও মীমাংসা হয়নি এখনও।

[ আরও পড়ুন: ‘ধ্বংসাবশেষেই প্রমাণ ওখানে রামমন্দির ছিল’, আদালতে দাবি রামলালার আইনজীবীর ]

কুমার জানিয়েছেন, জসওয়াল প্রথম থেকেই তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ অস্বীকার করে আসছেন। ফৌজি আদালতের নির্দেশের পরও তিনি পালটা আবেদনের ইচ্ছে প্রকাশ করেছেন। অথচ তাঁকে সেই সুযোগ না দিয়েই কোর্ট মার্শালের নির্দেশে সিলমোহর দিলেন সেনাপ্রধান বিপিন রাওয়াত। যা বেআইনি। প্রসঙ্গত ২০১৬ সালে জসওয়ালের বিরুদ্ধে যৌন হেনস্তার অভিযোগ ওঠার পর ২০১৮-র জুন মাসে তাঁর বিরুদ্ধে বিচারপ্রক্রিয়া শুরু হয়। তাঁর বিরুদ্ধে সেনাআইনের ৬৯ ধারা এবং ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩৫৪ ধারায় মামলা করা হয়। তাঁর বিরুদ্ধে যৌন হেনস্তার লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছিলেন সেনাবাহিনীর জাজ-অ্যাডভোকেট জেনারেল শাখার এক ক্যাপ্টেন স্তরের মহিলা সেনা অফিসার। যদিও অভিযুক্ত মেজর জেনারেল জসওয়াল বিষয়টিকে অস্বীকার করেন। শুধু তাই নয়, বিষয়টিকে তাঁর বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং