Advertisement
Advertisement

Breaking News

Mallikarjun Kharge

মমতার পথে বিরোধী ঐক্যের বার্তা খাড়গের, ফোন স্ট্যালিন, উদ্ধব, নীতীশকে

বিভিন্ন সমমনস্ক দলের নেতাদের ফোন করতে শুরু করেছেন কংগ্রেস সভাপতি মল্লিকার্জুন খাড়গে।

Mallikarjun Kharge sticks to unity pitch, speaks to Nitish, Stalin, Uddhav | Sangbad Pratidin
Published by: Subhajit Mandal
  • Posted:April 8, 2023 1:32 pm
  • Updated:April 8, 2023 1:32 pm

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: যে পথটা দেখিয়েছিলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee), জোটবদ্ধ হওয়ার সেই পথে ইতিমধ্যেই হাঁটা শুরু করেছে দেশের বিভিন্ন বিরোধী দল। যার স্পষ্ট প্রতিফলন দেখা গিয়েছে সদ্যসমাপ্ত বাজেট অধিবেশনে। সংসদের বাইরেও কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে লড়াইয়ের প্রক্রিয়া শুরু হয়ে গিয়েছে। কিছুদিন আগেই দিল্লিতে তামিলনাড়ুর মুখ্যমন্ত্রী এম কে স্ট্যালিনের (MK Stalin) উদ্যোগে এক সঙ্গে বসেছিল বিজেপি বিরোধী দলগুলি। এবার একে একে বিভিন্ন সমমনস্ক দলের নেতাদের ফোন করতে শুরু করেছেন কংগ্রেস সভাপতি মল্লিকার্জুন খাড়গে।

সূত্রের খবর, শুক্রবার তামিলনাড়ুর জোট সরকারের অন্যতম সঙ্গী ও জাতীয় রাজনীতিতে বন্ধু দল ডিএমকে (DMK) সুপ্রিমো স্ট্যালিনকে ফোন করেন খাড়গে। শীঘ্রই সব সমমনস্ক দল একত্রিত হয়ে একটি বৈঠক করার বিষয়ে আলোচনা হয়েছে তাঁদের মধ্যে। কংগ্রেসের (Congress) আরেক জোটসঙ্গী উদ্ধব ঠাকরের সঙ্গেও কথা বলেছেন খাড়গে। কংগ্রেসের সঙ্গে জোটে থাকলেও যারা হাত শিবিরের নেতৃত্ব মানতে নারাজ, তাঁদের মধ্যে অন্যতম নীতীশ কুমার (Nitish Kumar)। কংগ্রেস সভাপতি তাঁকেও ফোন করে এক ছাতার তলায় আসতে অনুরোধ করেছেন।

Advertisement

[আরও পড়ুন: মহিলাকে সামনে রেখে সোনা পাচারই ‘পারিবারিক পেশা’! হাতেনাতে গ্রেপ্তার বনগাঁর দম্পতি-সহ ৫]

যদিও এখনও বৈঠকের স্থান বা সময় কিছুই ঠিক হয়নি। তৃণমূল কংগ্রেস, সমাজবাদী পার্টি (Samajwadi Party), এনসিপি, বাম-সহ অন্যান্য সমমনোভাবাপন্ন দলগুলির সর্বোচ্চ নেতৃত্বের সঙ্গে প্রাথমিক আলোচনার পরই তা ঠিক হবে বলে মনে করা হচ্ছে। খাড়গে জানিয়েছেন, আমরা চাইছি সব বিরোধীরা একত্রিত হোক। একসঙ্গে লড়াই করুক। এটাই সময়ের চাহিদা। আমরা সব দলের সঙ্গে কথা বলব। ইতিমধ্যেই আমি দু-একজনের সঙ্গে কথা বলেছি।

Advertisement

[আরও পড়ুন: নতুন ছবির নায়ক চাই, শহরে শহরে ঘুরছেন পর্ন তারকা!]

গত লোকসভা নির্বাচনে মোট ভোটের ৩৮ শতাংশ পেয়ে ৩০৩ আসন জেতে বিজেপি। উলটোদিকে যে ১৪টি দল রাহুল গান্ধীর সাংসদ পদ খারিজের পর একসঙ্গে সুপ্রিম কোর্টে (Supreme Court) কেন্দ্রীয় এজেন্সির অপব্যবহারের প্রতিবাদে পিটিশন দায়ের করেছিল, তাদের সম্মিলিত ভোটপ্রাপ্তি ছিল ৩৯ শতাংশ। কিন্তু ভোট ভাগ হয়ে যাওয়ায় ৫৪২ আসনের লোকসভায় মাত্র ১৬০টি আসন পেয়েছিল বিরোধীরা। ২০২৪-এ তার পুনরাবৃত্তি যাতে না হয়, সেই চেষ্টাই শুরু হয়েছে বিরোধী দলগুলির তরফে।

Sangbad Pratidin News App

খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ