১৭ চৈত্র  ১৪২৬  মঙ্গলবার ৩১ মার্চ ২০২০ 

Advertisement

‘যথেষ্ট উদ্বেগের বিষয়’, দিল্লির হিংসা নিয়ে মুখ খুললেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

Published by: Sucheta Chakrabarty |    Posted: February 25, 2020 8:15 pm|    Updated: February 25, 2020 8:17 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: রাজধানীর রাজপথ না মৃত্যুপুরী? পথের বাঁকে কোথায় অফিসযাত্রীদের ভিড়? থমথমে এলাকা, ঘনঘন চলছে নজরদারি। রাস্তায় ছড়িয়ে পড়ে সারিসারি ইটের টুকরো। দিল্লির ভজনপুরা চক, বিজয়পার্ক, কারওয়াল নগর, মউজপুর ও যমুনা বিহারে জারি ১৪৪ ধারা। উত্তর-পূর্ব ভারতের অলিতে-গলিতে চলছে নাকা চেকিং। বন্ধ দোকান-পাট, স্কুল-কলেজ। সংশোধিত নাগরিকত্ব  আইনের(CAA) প্রতিবাদে আন্দোলনকারী ও সমর্থকদের সংঘর্ষে জ্বলছে দিল্লি। এই পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। 

দিল্লির এই পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বিগ্ন রাজনৈতিক মহল। সকাল থেকেই রাজধানীতে দফায় দফায় চলছে বৈঠক। আন্দোলনকারীদের সামলাতে দিতে রাস্তায় নামানো হয়েছে র‍্যাফ। পরিস্থিতি সামাল দিতে এদিন সকালেই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহর দ্বারস্থ হন মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল(Arvind Kejriwal)। ভারতের উত্তর-পূর্বের রাজ্যগুলির অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা নিয়ে আজ ভুবনেশ্বরে যান পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়(Mamamta Bannerjee)। বিমানবন্দরে নেমেই তিনি দিল্লির পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, “ভারত শান্তির দেশ, এখানে হিংসার স্থান নেই। তবে শনিবার রাত থেকে উত্তর-পূর্ব দিল্লিতে যে অশান্তি ছড়ায় তা যথেষ্ট চিন্তার ও উদ্বেগের। আমি শান্তি চাই। আপনাদের সকলের কাছে আমার আবেদন আপনারা আইন-শৃঙ্খলা বজায় রাখুন।” দেশের শান্তি ও নিরাপত্তা নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী যে বরাবরই অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন তা বলার অপেক্ষা রাখেন না। দিল্লির এই পরিস্থিতি দেখে তিনি কলকাতার সিপিকে আগাম সতর্কতাও জারির নির্দেশ দিয়েছেন।

[আরও পড়ুন:দিল্লির হিংসায় লাফিয়ে বাড়ছে মৃতের সংখ্যা, গুলিবিদ্ধ সাংবাদিকও]

অন্যদিকে দিল্লির পুলিশ কমিশনার অমূল্য পট্টনায়েক বলেন, “দিল্লি পুলিশের সহায়তায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী (Home Minister) সবসময় সাহায্য করে চলেছেন। তবে যারা এই অশান্তি ছড়াচ্ছে তাদের চিহ্নিত করে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।” দিল্লি পুলিশের জনসংযোগ আধিকারিক বলেন, “এই সংঘর্ষে প্রায় ৫৬ জন পুলিশকর্মী আহত হয়েছেন। তাঁরা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। ঘটনায় সোমবার রতন লাল নামে পুলিশের হেড কনস্টেবল নিহত হন। সংঘর্ষে আহত ১৩০ জন ভরতি হাসপাতালে।”

[আরও পড়ুন:মোতায়েন এক হাজার পুলিশকর্মী, ৩৫ কোম্পানি আধাসেনা! তাতেও হিংসা কমছে না দিল্লিতে]

Advertisement

Advertisement

Advertisement