BREAKING NEWS

৪ আশ্বিন  ১৪২৭  সোমবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

মাতৃত্বকালীন ছুটি ১২ থেকে বাড়িয়ে ২৬ সপ্তাহ করছে কেন্দ্র

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: May 16, 2016 8:54 am|    Updated: May 16, 2016 9:05 am

An Images

চিত্র প্রতীকী

নন্দিতা রায়: খুব শীঘ্রই মাতৃত্বকালীন ছুটি ১২ থেকে বাড়িয়ে ২৬ সপ্তাহ করার বিষয়ে পদক্ষেপ করতে চলছে কেন্দ্র সরকার৷ সংসদের সদ্যসমাপ্ত বাজেট অধিবেশনেই এই সংক্রান্ত বিল আনার বিষয়ে ভাবনা ছিল মোদি সরকারের৷ কিন্তু লোকসভায় অসুবিধা না থাকলেও রাজ্যসভায় অচলবস্থার জন্য বিলটি আটকে যাওয়ার সম্ভাবনা ছিল পুরোমাত্রায়৷ আর তার জন্যই ‘এক্সিকিউটিভ অর্ডারে’র মাধ্যমে এই কাজটি সম্পন্ন করার চিন্তাভাবনা ইতিমধ্যেই শুরু হয়ে গিয়েছে৷ কেন্দ্রীয় শ্রমমন্ত্রী বন্দারু দত্তাত্রেয় নিজেই একথা জানিয়েছেন৷ তিনি বলেন, “সংগঠিত ক্ষেত্রের জন্য মাতৃত্বকালীন ছুটিকে ১২ থেকে বৃদ্ধি করে ২৬ সপ্তাহ করা হবে৷” কেন্দ্র সরকারের এই সিদ্ধান্ত কার্যকরী হলে সরকারি চাকরির পাশাপাশি বেসরকারি ক্ষেত্রে চাকুরিজীবী মহিলারাও একই সুযোগ পাবেন৷ সরকার যে এই বিষয়টি নিয়ে বেশ কিছুদিন ধরে চিন্তা ভাবনা করছে তার প্রমাণ আগেই মিলেছে৷ গতমাসেই দত্তাত্রেয় একটি রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কের অনুষ্ঠানে গিয়ে মাতৃত্বকালীন ছুটি বৃদ্ধির কথা নিজেই জানিয়েছিলেন৷ তিনি অবশ্য সেই সময় মাতৃত্বকালীন ছুটি বৃদ্ধি করে ২৮ সপ্তাহ করার কথা জানিয়েছিলেন৷ পরে তা ২৬ সপ্তাহ করার উপরেই কেন্দ্র সিলমোহর বসাতে চলেছে বলে জানা গিয়েছে৷

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বে সরকারের অন্যতম লক্ষ্য ছিল শ্রম আইনের ক্ষেত্রে বেশ কিছু সংস্কার করা ৷ কিন্তু মুখে বললেও গত দু’বছরে এই সরকার সে বিষয়ে উল্লেখযোগ্য কোনও পদক্ষেপই গ্রহণ করতে পারেনি৷ অথচ এই শ্রম আইন সংস্কারের উপরেই মোদির স্বপ্নের প্রকল্প ‘মেক ইন ইন্ডিয়া’ অনেকটাই নির্ভর করছে৷ বর্তমানে কেন্দ্র সরকারের ৪৪টি শ্রমিক আইন রয়েছে৷ কেন্দ্র আরও চারটি উল্লেখযোগ্য সংস্কার করতে চায় বলেই সূত্রের খবর৷ এর মধ্যে একটি কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি এবং অপরটি হল ব্যবসা করার নিয়মগুলির সরলীকরণ৷ এই দু’টি বিষয়ের খসড়াই কেন্দ্রীয় শ্রমমন্ত্রকের তরফ থেকে তৈরি করা হলেও এখনও পর্যন্ত আইনমন্ত্রক থেকে অনুমোদন মেলেনি বলেই জানা গিয়েছে৷ আইনমন্ত্রক অনুমোদন করলেই খসড়া দুটিকে কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভায় পাস করানো হবে এবং তারপরেই তা সংসদে আনা হবে৷ আইনমন্ত্রক সংসদের আগামী বাদল অধিবেশনে এই সংস্কারের বিলগুলি আনতে চায়৷ বাকি দু’টি সংস্কারের ক্ষেত্রগুলি হল সামাজিক সুরক্ষা এবং কাজ করার পরিস্থিতি ও নিরাপত্তা৷ যদিও এই দুটির খসড়া এখনও পর্যন্ত তৈরি হয়নি বলেই জানা গিয়েছে৷ কেন্দ্রের তরফে শ্রম আইন সংস্কারের ক্ষেত্রে এত দেরি প্রসঙ্গে দত্তাত্রেয় বলেন, “শ্রম আইন সংশোধন একটি জটিল বিষয়৷ শ্রমিক সংগঠন থেকে কর্তৃপক্ষ, সবার সঙ্গে কথা বলার পরেই এবিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে হয়৷ তাই দেরি৷”

তবে শ্রম আইনের অন্যান্য ক্ষেত্রের সংস্কারে দেরি হলেও মাতৃত্বকালীন ছুটি বৃদ্ধি নিয়ে কেন্দ্রর যে দীর্ঘদিনের ভাবনা রয়েছে সেবিষয়ে তারা আর বিশেষ দেরি করতে চায় না৷ তাই সরকারি নির্দেশিকা জারির মাধ্যমেই কাজটি সম্পন্ন করার ভাবনা রয়েছে কেন্দ্র সরকারের৷ আর মাতৃত্বকালীন ছুটির মতো সংবেদনশীল বিষয়ে ‘এক্সিকিউটিভ অর্ডার’ জারি করা হলে অন্য রাজনৈতিক দলের পক্ষ থেকে বিরোধিতার সম্মুখীন হতে হবে না বলেও সরকার আশা করছে৷ ইতিমধ্যেই অবশ্য বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থা নিজেরাই সিদ্ধান্ত নিয়ে তাদের মাতৃত্বকালীন ছুটি বৃদ্ধি করেছে৷ এবার কেন্দ্র সরকারের সিদ্ধান্ত কার্যকর হলে সংগঠিত ক্ষেত্রে চাকুরিজীবী মহিলাদের মুখে যে হাসি ফুটবে তা নিশ্চিত৷

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement