BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  সোমবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

জ্বলছে মথুরা, মাড আইল্যান্ডে শুটিংয়ে ব্যস্ত হেমা

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: June 4, 2016 10:06 am|    Updated: June 4, 2016 10:06 am

An Images

স্টাফ রিপোর্টার: রোম নগরী যখন পুড়ছিল, বেহালা বাজাতে ব্যস্ত ছিলেন সম্রাট নিরো৷ সেই ঘটনারই যেন পুনরাবৃত্তি ঘটল শুক্রবারের মথুরায়৷ জমি দখলমুক্ত করতে গিয়ে জনতা পুলিশ সংঘর্ষে যখন ২৪ জন মানুষ মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েছেন, স্থানীয় সাংসদ হেমা মালিনী তখন শুটিংয়ে ব্যস্ত ছিলেন৷ সেই ছবিও তিনি সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেন৷ অবশ্য ব্যাপক সমালোচনার জেরে পরে তিনি সেগুলি মুছে দিয়েছেন৷ হেমা মালিনীর ভুমিকায় মুখ পুড়ল বিজেপির৷ হেমার ব্যবহারে অসন্তুষ্ট কেন্দ্রীয় নেতাদের চাপে শেষ পর্যন্ত হেমা নিজেও ড্যামেজ কণ্ট্রোলের চেষ্টা করলেন৷ তড়িঘড়ি নিজের শ্যুটিং-র কাজ ফেলে রেখে বিকালের মধ্যেই মথুরার উদ্দেশে রওনা হলেন ‘ড্রিম গার্ল’৷

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা থেকে মথুরায় গন্ডগোল শুরু হয়৷ যদিও ঘটনার কোনও খবর জানতেন না হেমা৷ তিনি তখন মুম্বইয়ের কাছেই মাড আইল্যান্ডে শুটিংয়ে ব্যস্ত ছিলেন৷ এমনকী, শুক্রবার শুটিংয়ের একাধিক ছবি তিনি টুইট করেন৷ যদিও তারপর থেকেই তাঁর এই দায়িত্বজ্ঞানহীন ও নির্লিপ্ত মনোভাব নিয়ে সমালোচনা শুরু হয়৷ দ্রূত ছবিগুলি মুছে দিয়ে হেমা ফের টুইটে জানান, “আমি সবে মথুরা থেকে ফিরেছি৷ তার পরই ঝামেলার খবর পাই৷ কর্তব্যপালন করতে গিয়ে জীবন বিসর্জন দেওয়া এসপি মুকুল দ্বিবেদী ও এসএইচও সন্তোষ কুমারের পরিবারকে সমবেদনা জানাই৷ মথুরার মানুষের কাছে আমার একান্ত আবেদন, কোনও হিংসার প্ররোচনায় পা দেবেন না৷ শান্তি বজায় রাখুন৷”

দলীয় সাংসদের ভুমকায় অসন্তুষ্ট হন দলের কেন্দ্রীয় নেতারাও৷ দলের পক্ষ থেকে হেমাকে ফোনে সতর্কও করা হয়৷ তাতেও অবশ্য এই অভিনেত্রী সাংসদের বিশেষ টনক নড়েনি৷ তিনি প্রয়োজনে মথুরা যেতে তৈরি বলে আবার জানান৷ যদিও তার আগেই হেমার উদাসীনতা দেখে বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ দলের রাষ্ট্রীয় সচিব ও স্থানীয় নেতা শ্রীকান্ত শর্মাকে তড়িঘড়ি মথুরার উদ্দেশে রওনা হতে বলেন৷ সেইমতই দিল্লি থেকে শ্রীকান্ত দুপুরের মধ্যেই মথুরা পৌঁছেও যান৷ কিন্তু এরপরেও প্রশ্নের মুখে পড়তে হয় বিজেপিকে৷  বিজেপি মুখপাত্র সম্বিত পাত্র বলেন, “আসল ঘটনা থেকে নজর ঘুরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা ঠিক নয়৷”

কিন্তু তাতে অবশ্য চিঁড়ে ভেজেনি৷ তা বুঝতে পেরে এবারে দলের পক্ষ থেকে হেমাকে কড়া ধমক দেওয়া হয়৷ তাতে কাজও হয়৷ সাংবাদিক বৈঠকের কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই আবার হেমা টুইট করে নিজের সাফাই দেওয়ার পাশপাশি জানান, তিনি সব কাজ বাদ দিয়ে দিল্লি রওনা হয়েছেন, যত তাড়াতাড়ি সম্ভব মথুরা পৌঁছবেন৷ এখন হেমা মথুরা গিয়ে কতটা ড্যামেজ কণ্ট্রোল করতে পারেন সেটাই দেখার৷

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement