BREAKING NEWS

১৯ আষাঢ়  ১৪২৭  রবিবার ৫ জুলাই ২০২০ 

Advertisement

বাঁদরামি! হাসপাতাল কর্মীর হাত থেকে করোনা পরীক্ষার স্যাম্পেল ছিনতাই বাঁদরের

Published by: Sayani Sen |    Posted: May 29, 2020 3:25 pm|    Updated: May 29, 2020 3:31 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: সারা বছরই হাসপাতাল চত্বরে একাধিপত্য তাদের। তাই সকলেই বেশ বিরক্তও করে তারা। কখনও কেড়ে খায় খাবার। আবার কখনও বা হামলাও করে। তবে এবার আর খাবারে সীমাবদ্ধ নয় তারা। করোনা আতঙ্কে যখন সকলে ভয়ে কাঁটা, তখন পরীক্ষার স্যাম্পেল ছিনতাই করল একদল বাঁদর। শুধু ছিনতাই নয়, স্যাম্পেল চিবিয়ে একেবারে নষ্ট করে দিয়েছে তারা। উত্তরপ্রদেশের মীরাট মেডিক্যাল কলেজের চত্বরের ঘটনা নিয়ে তোলপাড়। বাঁদরদের বাঁদরামিতে করোনা সংক্রমণের আশঙ্কা যে আরও বাড়ছে, তা বলাই যায়।

এ যেন সিনেমার দৃশ্য! উত্তরপ্রদেশের মীরাট মেডিক্যাল কলেজ চত্বর কাছেই রয়েছে গাছপালা। গাছের মাথায় বসে ছিল একদল বাঁদর। এ পর্যন্ত সবই ছিল নিত্যদিনের মতো। তাই তাদের নিয়ে বিশেষ মাথা ঘামাননি কেউই। ঠিক সেই সময় তিন সন্দেহভাজনের করোনা পরীক্ষার স্যাম্পেল নিয়ে হাসপাতালের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে যাচ্ছিলেন এক স্বাস্থ্যকর্মী। ওই স্বাস্থ্যকর্মীকে দেখে যেন নিজেদের সামলে রাখতে পারল না বাঁদরেরা।

আচমকাই লুটপাট করতে শুরু করে তারা। স্বাস্থ্যকর্মীর হাত থেকে ছিনিয়ে নেয় করোনা পরীক্ষার স্যাম্পেল। তারপরই দৌড়। ধরি ধরি করতেই করতেই গাছের উপর চড়ে বসল বাঁদর। শুরু হয়ে যায় হইচই। করোনা পরীক্ষার স্যাম্পেলও যে বাঁদর ছিনতাই করতে পারে, তা যেন ভাবতেই পারছিলেন না কেউ। কোথায় গিয়ে ওই নমুনা ফেলবে তারা, এই চিন্তা করতে থাকে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। তবে চোখের নিমেষে কেউ চিবিয়ে আবার কেউ বা কৌটোর উপরে থাকা কাগজপত্র ছিঁড়ে স্যাম্পেলের দফারফা করে দেয়।

[আরও পড়ুন: এবার আরও সহজ রান্নার গ্যাস সিলিন্ডার বুক করা, জেনে নিন কীভাবে?]

বাঁদর করোনা পরীক্ষা স্যাম্পেল নিয়ে নাড়াচাড়া করার পর থেকে আতঙ্কে গোটা এলাকা। বাঁদরের মাধ্যমে মারণ ভাইরাস সংক্রমিত হবে না তো, সেই প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে সকলের মনে। যদিও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের দাবি, কেউ সংস্পর্শে আসার আগেই বাঁদরগুলি করোনা পরীক্ষার স্যাম্পেল নষ্ট করে ফেলেছে। তাই কেউ সংক্রমিত হওয়ার কোনও আশঙ্কা নেই। তাছাড়া এখনও পর্যন্ত কোনও বাঁদর করোনা আক্রান্ত বলে খবর পাওয়া যায়নি। তাই অযথা আতঙ্কিত না হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন ওই হাসপাতালের চিকিৎসকরা। এদিকে, তিন সন্দেহভাজনের থেকে আবারও নমুনা সংগ্রহ করা হচ্ছে।

[আরও পড়ুন: সোশ্যাল মিডিয়ায় পাকিস্তানের গুণগান, মামলা আলিগড় বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই পড়ুয়ার নামে]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement