২৮ আশ্বিন  ১৪২৭  সোমবার ২৬ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

সভায় যোগ দিতে গিয়ে চাষির মৃত্যু, উপেক্ষা করেই বক্তৃতা দিলেন জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া

Published by: Abhisek Rakshit |    Posted: October 18, 2020 10:29 pm|    Updated: October 18, 2020 10:31 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক:‌ সভায় তাঁর বক্তৃতা দেওয়ার আগেই হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গিয়েছিলেন এক চাষি। নেতা আসার পর সেকথা জানতেও পেরেছিলেন। কিন্তু তারপরও সভা চলে। বক্তৃতাও দেন কংগ্রেস থেকে BJP-তে যোগ দেওয়া রাজ্যসভার সাংসদ জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া (Jyotiraditya Scindia)। পুরনো দলের পক্ষ থেকে তাঁর বিরুদ্ধে অমানবিক ও অসংবেদনশীল আচরণের অভিযোগ তোলা হয়েছে।

জানা গিয়েছে, রবিবার মধ্যপ্রদেশের (Madhya Pradesh) মুন্ডিতে (Mundi) অনুষ্ঠিত বিজেপির সভায় যোগ দিতে চাঁদপুর গ্রাম থেকে এসেছিলেন ৭০ বছর বয়সি চাষি জীবন সিং। কিন্তু অনুষ্ঠানের মাঝেই বিজেপি নেতাদের বক্তৃতা চলাকালীন হৃদরোগে আক্রান্ত হন। তড়িঘড়ি তাঁকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলেও চিকিৎসকরা মৃত বলে ঘোষণা করেন। এরপর যদিও সভার কাজ থামেনি। অনুষ্ঠান মঞ্চে আসেন সিন্ধিয়া। মৃত চাষির উদ্দেশে সমবেদনা জানালেও নিজের বক্তৃতা দেন।

[আরও পড়ুন:‌ হৃষিকেশের লছমনঝুলায় অশ্লীল ভিডিও তোলার জের, গ্রেপ্তার মার্কিন যুবতী]

আর এরপরই অমানবিক আচরণ করার অভিযোগ তুলে সিন্ধিয়ার সমালোচনায় মুখর হয়েছে কংগ্রেস। প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী তথা কংগ্রেস নেতা অরুণ যাদব বলেন, ‘‌‘‌একজন চাষি সভায় যোগ দিতে এসে মারা গেল, আর বিজেপি নেতারা সভায় বক্তৃতা দিয়ে গেলেন। এতেই বোঝা গেল চাষিদের জন্য বিজেপি নেতাদের মনে কতটা মানবিকতা রয়েছে।’‌’‌

অন্যদিকে আবার, বিজেপি নেত্রী এবং মধ্যপ্রদেশের প্রাক্তন মন্ত্রী ইমারতি দেবীকে প্রকাশ্যেই ‘আইটেম’ বলে সম্বোধন করে বিতর্কে জড়ালেন রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তথা কংগ্রেস নেতা কমল নাথ (Kamal Nath)৷ আসন্ন নির্বাচনে মধ্যপ্রদেশের ডাবরা কেন্দ্র থেকে বিজেপির প্রার্থী হয়েছেন ইমারতি দেবী৷ গত বৃহস্পতিবার তিনি মনোনয়ন জমা দেন। ইমারতি দেবী আগে কংগ্রেসেই (Congress) ছিলেন। তবে এখন তিনি বিজেপির (BJP) সদস্য।

[আরও পড়ুন:‌ ডিসেম্বরের মধ্যেই প্রস্তুত হয়ে যাবে করোনা ভ্যাকসিনের বহু ডোজ! দাবি সেরাম ইনস্টিটিউটের]

রবিবার নিজের দলের প্রাক্তন এই নেত্রীর উদ্দেশেই এমন বিতর্কিত মন্তব্য করতে দেখা গেল প্রবীণ নেতাকে। কমল নাথ বলেন, ‘‘আমাদের প্রার্থী ওঁর মতো নন। কী নাম যেন ওঁর?’’ তিনি একথা বলতেই জনতাকে চিৎকার করে ইমারতি দেবীর নাম বলতে শোনা যায়। তখন কমল নাথ বলেন, ‘‘আমি আর ওঁর নাম কী নেব? আপনারা তো ওঁকে আমার থেকে ভাল করে চেনেন। আপনাদের উচিত ছিল আমাকে সতর্ক করে দেওয়া। এ কেমন আইটেম!’’ এরপরই কমলনাথের এই বক্তব্য নিয়ে বিভিন্ন মহলে বিতর্ক দেখা দেয়।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement