BREAKING NEWS

০৯  আষাঢ়  ১৪২৯  সোমবার ২৭ জুন ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

নির্যাতিতার বয়ান বদল, ধর্ষণের মামলায় ক্ষতিপূরণ ফেরানোর নির্দেশ আদালতের

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: May 18, 2018 1:54 pm|    Updated: May 18, 2018 2:18 pm

MP: Rape victim turns hostile, court orders recovery of compensation

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: নজিরবিহীন রায় মধ্যপ্রদেশ হাই কোর্টের। ধর্ষিতাকে  ক্ষতিপূরণের টাকা ফিরিয়ে দেওয়ার  নির্দেশ দিল হাই কোর্টের সিঙ্গল বেঞ্চ।  জামিন পেয়েছেন অভিযুক্তও।

[সুপ্রিম কোর্টে ধাক্কা বিজেপির, কর্ণাটকে আস্থা ভোটের নির্দেশ শনিবার]

কোনও আইন নেই। তবে তৃণমূল জমানায় এ রাজ্যের ধর্ষিতাদের ক্ষতিপূরণ দেওয়ার নিয়ম চালু করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। যা নিয়ে বিতর্ক কিছু কম হয়নি। বিরোধীদের অভিযোগ, ধর্ষণের মতো অপরাধ ধামাচাপা দিতেই ধর্ষিতাকে ক্ষতিপূরণ দেয় রাজ্য সরকার। তবে সে যাই হোক, মধ্যপ্রদেশের ধর্ষিতাদের ক্ষতিপূরণ দেওয়ার জন্য রীতিমতো আইন লাগু করেছে বিজেপি সরকার। তবে সবাই অবশ্য এই ক্ষতিপূরণ পান না। এসসি/এসটি অ্যাক্ট ২০১৬ অনুযায়ী,  যদি তফশিলি জাতি ও উপজাতিভুক্ত কোনও মহিলা ও বালিকা ধর্ষিতা হন, তাহলে তাঁকে ৫ লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণ দেয় মধ্যপ্রদেশ সরকার। আর এক্ষেত্রে আদালতের কোনও ভূমিকা নেই। কারণ, অভিযুক্ত যদি আদালতের দোষী প্রমাণিত নাও হন, তাহলেও নির্যাতিতা ক্ষতিপূরণ পাবেন। আইন অন্তত তেমনই।

[‘আমি তো আমার স্বামীকে হারালাম, এখন ক্ষতিপূরণে কী লাভ?’]

সম্প্রতি মধ্যপ্রদেশে তফশিলি জাতির এক নাবালিকাকে ধর্ষণের অভিযোগ ওঠে। অভিযুক্তের বিরুদ্ধে এফআইআরও করে নির্যাতিতা। আইন মোতাবেক ওই নাবালিকাকে পাঁচ লক্ষ ক্ষতিপূরণ দিয়েছে মধ্যপ্রদেশ সরকার। কিন্তু মধ্যপ্রদেশ হাই কোর্টে শুনানি চলাকালীন ঘটল বিপত্তি। বয়ান বদলে ফেলল খোদ নির্যাতিতাই। ধর্ষণের অভিযোগ থেকে পিছু হটেছে সে। তাই অভিযুক্ত জিতেন্দ্র পাটিলের জামিনের আবেদন মঞ্জুর করেছে হাই কোর্টের সিঙ্গল বেঞ্চ। শুধু তাই নয়, জেলাশাসককে নির্যাতিতার কাছ থেকে ক্ষতিপূরণের ৫ লক্ষ টাকাও আদায় করার নির্দেশ দিয়েছেন বিচারপতি।

বুনো হাতির তাণ্ডবে লণ্ডভণ্ড ডুয়ার্সের চা বাগান, ক্ষতিগ্রস্ত একাধিক বাড়ি ]

মধ্যপ্রদেশে হাই কো্র্টের এই রায়ে শোরগোল পড়েছে। ধর্ষণের মামলায় নির্যাতিতার ক্ষতিপূরণ ফিরিয়ে নেওয়ার নির্দেশ নজিরবিহীন বলে মনে করছে আইনজীবী মহল। কেন?  নির্যাতিতাই যদি ধর্ষণের অভিযোগ প্রত্যাহার করে নেয়, তাহলে তো ক্ষতিপূরণের প্রশ্নই ওঠে না ঠিকই। কিন্তু, মধ্যপ্রদেশে ধর্ষণে ক্ষতিপূরণ সংক্রান্ত আইনটি যে অন্যরকম। আইনে স্পষ্ট বলা হয়েছে, অভিযুক্ত যদি আদালতে দোষী প্রমাণিত নাও হয়, তাহলে তপশিলি জাতি ও উপজাতিভুক্ত মহিলা বা বালিকার ক্ষতিপূরণ পাবেন। তাই এক্ষেত্রে অভিযোগ প্রত্যাহার করে নিলেও, নির্যাতিতার ক্ষতিপূরণ পেতে কোনও অসুবিধা হওয়ার কথা ছিল না। কিন্তু, এখন মধ্যপ্রদেশের হাই কোর্টের নির্দেশে ক্ষতিপূরণের পাঁচ লক্ষ টাকা ফিরিয়ে দিতে হবে ওই নাবালিকাকে।

[বিশুদ্ধ জল পেতে নয়া উদ্যোগ রেলের, ট্রেনের কামরায় বসছে ওয়াটার পিউরিফায়ার]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে