BREAKING NEWS

১ আশ্বিন  ১৪২৭  শুক্রবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

হাতে অক্সিজেন সিলিন্ডার, এমআরআই মেশিনে ঢুকে মৃত্যু যুবকের

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: January 28, 2018 10:02 am|    Updated: January 28, 2018 10:02 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: আত্মীয়কে স্ক্যান করাতে এমআরআই রুমে ঢুকেছিলেন ৩২ বছরের রাজেশ মারু। কিন্তু আর ফেরা হল না। এমআরআই রুমে আটকা পড়েই মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়লেন তিনি। এমন ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে মুম্বইয়ের বিওয়াইএল চ্যারিটিবল হাসপাতালে।

[মিথ্যে বলার অপরাধে নাবালক ছেলেকে লাথি বাবার, ভাইরাল ভিডিও]

ঘটনা শনিবার সন্ধের। রাজেশের এক আত্মীয় ওই হাসপাতালের আইসিইউ-তে ভরতি ছিলেন। স্ক্যানের জন্য আত্মীয়র সঙ্গে এমআরআই রুমে প্রবেশ করেন রাজেশও। সেই সময় রোগীর সঙ্গে ছিল একটি অক্সিজেন সিলিন্ডার। ওই আত্মীয়র অভিযোগ, হাতপাতালের এক ওয়ার্ড বয় সিলিন্ডার সঙ্গে নিয়েই ব্যক্তিকে এমআএই রুমে ঢুকতে বলেন। কিন্তু সাধারণত কোনও ধাতব বস্তু এমআরআই রুমে নেওয়ার অনুমতি দেওয়া হয় না। গয়নাগাটি, চেন ও বোতাম, হুক-যুক্ত জামাকাপড়ও স্ক্যান করার সময় ঘরের বাইরেই রেখে আসা বাধ্যতামূলক। এর পাশাপাশি রড প্লেট, পিন, স্ক্রু, সিলিন্ডারের মতো মেডিক্যাল সরঞ্জাম এমআরআই রুমে নিয়ে যাওয়ার অনুমতি দেয় না হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। আর তা নিয়ে যেতেই ঘটে বিপত্তি। রাজেশের আত্মীয় হরিশ সোলাঙ্কি জানান, রুমের ভিতর সিলিন্ডার থেকে অক্সিজেন লিক করতে থাকে। ওয়ার্ড বয়কে সঙ্গে নিয়ে অনেক কষ্টে এমআরআই মেশিন থেকে রাজেশকে বের করেন তাঁরা। কিন্তু ততক্ষণে প্রচুর রক্তক্ষরণ হয়ে গিয়েছিল। সঙ্গে সঙ্গে তাঁকে হাসপাতালের এমার্জেন্সিতে ভরতি করা হয়। কিন্তু মিনিট দশেকের মধ্যেই সব শেষ।

[নমাজে নেতৃত্ব দিয়ে হুমকির মুখে দেশের প্রথম মহিলা ইমাম]

এরপরই গোটা ঘটনায় উত্তপ্ত হয়ে ওঠে হাসপাতাল চত্বর। হাসপাতালের গাফিলতির অভিযোগ তুলে হাসপাতালের ডিনের ঘরের বাইরে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন রাজেশের বাড়ির লোকজন। তাঁদের পাশে দাঁড়ান স্থানীয় বিজেপি বিধায়ক এমপি লোধাও। এমন মর্মান্তিক ঘটনার জন্য রাজেশের পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দিতে হবে বলেও দাবি জানান তিনি। ডক্টর সিদ্ধান্ত শাহ ও বিট্টল চাহ্বানের বিরুদ্ধে ইতিমধ্যেই থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। কীভাবে রাজেশকে অক্সিজেন সিলিন্ডার নিয়ে যেতে বলল ওয়ার্ড বয় বিট্টল চাহ্বান, সে নিয়ে উঠছে প্রশ্ন? ইতিমধ্যেই সাসপেন্ড করা হয়েছে ওই কর্মীকে। ঘটনার সিসিটিভি ফুটেজ পুলিশের হাতে এসেছে। পরিস্থিতি সামলাতে রাজেশের পরিবারের জন্য পাঁচ লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণ ঘোষণা করেন মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফড়নবিস

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement