৫ আশ্বিন  ১৪২৬  সোমবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ‘এক দেশ, এক পতাকা, এক সংবিধান।’ নেটদুনিয়ায় এভাবেই প্রশংসিত হচ্ছে মোদি সরকারের ঐতিহাসিক সিদ্ধান্ত। বাতিল হয়েছে বিতর্কিত ৩৭০ ধারা। সোশ্যাল মিডিয়ায় এনিয়ে ইতিমধ্যেই তৈরি হয়েছে গিয়েছে নানা ধরনের মিম। যেখানে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহর প্রশংসা করা হয়েছে। তবে অনেকে এর বিরোধিতাও করেছেন। ঐতিহাসিক সিদ্ধান্তের দিনটিকে কলঙ্কের দিন বলেও ব্যাখ্যা করেছে বিরোধীরা।

[আরও পড়ুন: কাশ্মীরের ‘পুনর্জন্ম’, উত্তেজনার আশঙ্কায় আরও ৮ হাজার সেনা পাঠাল কেন্দ্র]

এক নেটিজেন নিজের কর্মক্ষেত্রের ছবি পোস্ট করে লিখেছেন, তাঁর অফিসে কাশ্মীরিরা আজ সেলিব্রেশনের মেজাজে। গোটা অফিসে লাড্ডু বিতরণ হচ্ছে। অনেকে আবার মশকরা করে লিখেছেন, আজ সবচেয়ে বেশি খুশি হবেন প্রিয়াঙ্কা গান্ধীর স্বামী রবার্ট বঢরা। কারণ তিনি এবার কাশ্মীরেও জমি দখল করতে পারবেন। অনেকের কথায়, দীর্ঘদিন ধরে ৩৭০ ধারা বাতিলে সচেষ্ট হয়েছিলেন মোদি। অবশেষে তা করে দেখালেন। আলোচনায় ঢুকে পড়েছে ছবির দুনিয়াও। অনেকে বলছেন, অভিনেতা অক্ষয় কুমার ফের একটা ভাল চিত্রনাট্য পেয়ে গেলেন হাতে। সামাজিক নানা ইস্যু, দেশপ্রেম তাঁর ছবিতে উঠে এসেছে অনেকবার। এবার ৩৭০ ধারা নিয়েও যে তিনি ছবি তৈরি করবেন, এ ব্যাপারে নিশ্চিত নেটিজেনরা। আলোচনায় ঢুকে পড়েছেন ধোনিও। অনেকে বলছেন, এটাই এমএসডির ক্ষমতা। এম মানে মোদি, এস মানে শাহ এবং ডি অর্থাৎ দোভাল। 

তবে একই দেশের আকাশে যে আর ভিন্ন পতাকা উড়বে না, এটাই সবচেয়ে বড় সাফল্য বলে দাবি করছেন অধিকাংশ ভারতবাসী। আর এখানেই জিতে গিয়েছে দেশের ঐক্য। এই ধারার বিলুপ্তির সঙ্গে আরও মজবুত হল দেশের নিরাপত্তা। অনেকটাই ব্যাকফুটে পাকিস্তান। মজার মজার মিম তৈরি করে প্রতিবেশী রাষ্ট্রকে সে কথাও মনে করিয়ে দিয়েছেন ভার্চুয়াল দুনিয়ার বাসিন্দারা। আবার এই ইস্যুর সঙ্গে চন্দ্রযান-২-কে জুড়ে অনেকে ছবি পোস্ট করে লিখেছেন, বর্তমানে কেমন দেখতে জম্মু ও কাশ্মীর এবং লাদাখকে? ছবি পাঠাল চন্দ্রযান-২।

[আরও পড়ুন: শাহী কেরামতি! ভোটাভুটি ছাড়াই বাতিল ৩৭০ ধারা, কীভাবে জানেন?]

রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দের সইয়ের পরই বাতিল হয়েছে ৩৭০ ধারা। তারপর সংসদে বিরোধীদের একাংশ সুর চড়িয়েছে। এমন দিনে কংগ্রেসকেও কটাক্ষ করতে ছাড়েনি সোশ্যাল মিডিয়া। এরই মধ্যে ছড়িয়ে পড়েছে একটি ভিডিও। যেখানে এক মহিলা বলছেন, কেন্দ্রের এমন সিদ্ধান্তে যুদ্ধের দামামা বেজে গেল। এমন সিদ্ধান্ত কোনওভাবেই মেনে নেওয়া যায় না। এতে কাশ্মীরিদের স্বাধীনতা খর্ব হল বলেই দাবি করেছেন তিনি। তবে সোশ্যাল মিডিয়ায় নজর রাখলে একটা বিষয় স্পষ্ট হয়ে যাবে, অধিকাংশ মানুষই ৩৭০ ধারা বাতিলের সিদ্ধান্তের প্রশংসা করেছেন। এখান থেকেই নতুন ভারতের জন্ম হল বলে দাবি ভারতীয়দের।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং