BREAKING NEWS

২৬ চৈত্র  ১৪২৬  বৃহস্পতিবার ৯ এপ্রিল ২০২০ 

Advertisement

থামছে না হিংসা, দিল্লির আগুন নেভাতে মাঠে নামলেন অজিত দোভাল

Published by: Sucheta Chakrabarty |    Posted: February 26, 2020 1:30 pm|    Updated: February 26, 2020 1:30 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: শুনশান রাস্তাঘাট। যেন অঘোষিত বনধ দিল্লির রাজপথে। বন্ধ রাখা হয়েছে স্কুল,কলেজ। এমত অবস্থায় পরীক্ষা পিছিয়ে দেওয়ার জন্য আরজি জানানো হয়েছে দিল্লির শিক্ষামন্ত্রীকে। দিল্লির উত্তরপূর্ব প্রান্তের হিংসাশ্রয়ী আন্দোলনের জেরে এখনও মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ২০, আহত প্রায় ২০০। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে সেনা নামানো নিয়ে তরজা শুরু হয়েছে অরবিন্দ কেজিওয়াল (Arvind Kejriwal)ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের (Amit Shah)মধ্যে।

দিল্লির এই উত্তেজনাময় পরিস্থিতিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহর সঙ্গে গতকাল দফায় দফায় বৈঠক করেন মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল। পরিস্থিতি ক্রমশ দিল্লি পুলিশের হাত থেকে বাইরে বেরিয়ে যাওয়ার কথাও জানান। আবেদন করে টুইট করেন, “দিল্লির একাধিক মানুষের সঙ্গে কথা হয়েছে। রাজধানীর বেশিরভাগ এলাকার পরিস্থিতি খতিয়ে দেখে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে আমার বিনিত আবেদন আপনি দিল্লিতে সেনা মোতায়েন করুন। পরিস্থিতি ক্রমশ দিল্লি পুলিশের নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাচ্ছে। দিল্লির ৪টি জায়গা ছাড়াও বাকি কিছু জায়গাতে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে সেনার প্রয়োজন।”

অপরদিকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক রাত গড়াতেই দিল্লির পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে ৬৭ কোম্পানি আধাসেনা মোতায়েন করেছে জাফরাবাদ, মউজপুর, চাঁদবাগ ও করওয়াল নগরে। রাতেই এই ৪টি এলাকার পরিস্থিতি খতিয়ে দেখেন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভাল(Ajit Doval)। তাঁকে দিল্লির পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করার দায়িত্ব তুলে দেওয়া দেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। এদিন সকালে অজিত দোভাল জানান,” দিল্লির পরিস্থিতি বর্তমানে নিয়ন্ত্রণে।কারোর ভয় পাওয়ার কারণ নেই। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে দিল্লি পুলিশ যারপরনাই চেষ্টা চালাচ্ছে। তবে পুলিশকে নীরব দর্শক বলে কাঠগড়ায় দাঁড় করাচ্ছে আমজনতা। এটা উচিৎ নয়। ” আজই দিল্লির নিরাপত্তা নিয়ে মন্ত্রিসভার সঙ্গে  বৈঠক করবেন অজিত দোভাল।

[আরও পড়ুন:ফের ‘গোলি মারো’ স্লোগান, দিল্লিতে হিংসায় মদত বিজেপি বিধায়কের! ভাইরাল ভিডিও]

দিল্লির এই পরিস্থিতি নিয়ে আজ ওয়ার্কিং কমিটির বৈঠক ডেকেছে কংগ্রেস। সোনিয়া গান্ধী, মনমোহন সিং, প্রিয়ঙ্কা গান্ধী-সহ কংগ্রেসের উচ্চ পর্যায়ের নেতার উপস্থিত থাকবেন এই বৈঠকে।  পরে রাষ্ট্রপতি ভবনে গিয়েও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের আরজি জানাবেন তারা। এদিকে,  পুলিশের আচরণ নিয়ে ক্ষোভপ্রকাশ করেন সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি কে এম জোসেফ। তিনি জানান, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে পুলিশকে আরও তৎপর হতে হবে।

Advertisement

Advertisement

Advertisement