৪ মাঘ  ১৪২৫  শনিবার ১৯ জানুয়ারি ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও ফিরে দেখা ২০১৮ ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: রাম মন্দির ইস্যু সমাধান হোক, চায় না কংগ্রেস। তাই আইনি পথে বারবার বাধা সৃষ্টি করছে। শনিবার দিল্লিতে বিজেপির জাতীয় কনভেশনে এসে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি কটাক্ষ করেন প্রধান বিরোধী দল কংগ্রেসকে। মহাজোট নিয়ে কটাক্ষ করে তিনি জানান, বিরোধীরা ‘মজবুর’ সরকার চায়। কিন্তু দেশ চায় ‘মজবুত’ সরকার। যার নেতৃত্বে দেশ সঠিক পথে চলবে। তিন রাজ্যে সিবিআই তদন্তের বিরোধিতার কঠোর সমালোচনা করলেন তিনি। সরকারি প্রকল্পে দল ও নিজের প্রচার করা নিয়ে আক্রমণ করেছিলেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তা নিয়েও কটাক্ষ করলেন প্রধানমন্ত্রী।

[কংগ্রেসের ‘হাত’ ছেড়েই জোট ঘোষণা মায়া-অখিলেশের, স্বাগত জানালেন মমতা]

এদিন বিজেপির জাতীয় কনভেশন মঞ্চে বিরোধীদের কটাক্ষ করে নরেন্দ্র মোদি বলেন, “বারবার আইনি পদ্ধতিকে প্রভাবিত করছে কংগ্রেস। ওরা রাম মন্দির নিয়ে কোনও সমাধান চায় না। আমরা এই মানসিকতাকে কোনও দিন ভুলব না। মানুষকেও ভুলতে দেবও না।” কংগ্রেস নেতা কপিল সিব্বলকে উদ্দেশ্য করে কটাক্ষ করেন মোদি। শুক্রবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আয়ুষ্মান ভারত প্রকল্প নিয়ে কটাক্ষ করেন মোদিকে। কেন্দ্র ও রাজ্যের যৌথ প্রকল্পকে ভৎর্সনা করে মমতা জানান, কেন্দ্র নিজেই সব ক্রেডিট নিচ্ছে। শুধু তাই নয়, সরকারি প্রকল্পে দলের প্রচার করছে বিজেপি। নিজের নাম ব্যবহার করছেন নরেন্দ্র মোদি। এদিন তার জবাব দিলেন মোদি। তিনি বলেন, “আয়ুষ্মান ভারতের আগে কি নরেন্দ্র মোদির নাম লেখা আছে? ভারত মালা বা সাগর মালার আগে নরেন্দ্র মোদি লেখা আছে কি! উজ্জ্বলা যোজনায় কি নরেন্দ্র মোদি আছে? কখনও এমন নেই আর হবেও না। কারণ, আমরা জানি, ব্যক্তির থেকে দল অনেক আগে। আর দলের থেকে দেশ আরও অনেক আগে। বিরোধীরা বারবার বলছেন, আমি নাকি প্রকল্পের নাম বদলে যাচ্ছি। তারা বলুন, কতগুলো প্রকল্প প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির নামে আছে!”

[বাস্তব থেকে হাজার যোজন দূরে সেলুলয়েডের ‘মনমোহন’]

এদিন দিল্লির রামলীলা ময়দানে আধঘণ্টার বেশি বক্তব্য রাখেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। তিনি বলেন, “ভারতের ইতিহাসে এটাই প্রথমবার, যেখানে পাঁচবছরে সরকারের বিরুদ্ধে কোনও দুর্নীতির অভিযোগ নেই। মানুষ সিদ্ধান্ত নিক। মাসের পর মাস দেশের বাইরে গিয়ে ছুটি কাটানো নাকি নিষ্ঠা ও অক্লান্তভাবে দেশের কাজ করা সেবক তাদের প্রয়োজন।” ছত্তিশগড়, অন্ধ্রপ্রদেশ ও পশ্চিমবঙ্গ কেন্দ্রের সিবিআই তদন্তের অধিকার খারিজ করে দিয়েছে। সে নিয়েও এদিন নিন্দা করলেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, “গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী থাকাকালীন ইউপিএ সরকারের আমলে ১২ বছর আমাকে হেনস্তা করা হয়েছে। অমিত শাহকে গ্রেপ্তার করার পরেও আমরা রাজ্যে সিবিআই তদন্ত বন্ধ করিনি। অন্ধ্রপ্রদেশ, পশ্চিমবঙ্গ, ছত্তিশগড় তাহলে সিবিআই তদন্ত বন্ধ করল কেন? কী বেনিয়ম করেছে তাঁরা!”

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং