BREAKING NEWS

১৪ আশ্বিন  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ১ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

৪৮ ঘণ্টায় জোড়া গণপিটুনি অসমে, মৃত এক যুবক

Published by: Paramita Paul |    Posted: August 30, 2020 9:05 am|    Updated: August 30, 2020 9:05 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে জোড়া গণপিটুনির (Mob Lynching) ঘটনায় উত্তপ্ত অসম (Assam)। গত দু’দিনের ঘটনায় এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। অপর যুবক আশঙ্কাজনক অবস্থায় হাসপাতালে ভরতি। চিকিৎসা চলছে।

প্রথম ঘটনাটি ঘটেছে মধ্য অসমের বিশ্বনাথ চরিয়ালি এলাকায়। এই এলাকায় প্রতাপগড় চা বাগানে শ্রমিক সাবিন গৌর ও নবীন গৌর দুই ভাই। পরিবার সূত্রে খবর, বৃহস্পতিবার দুই ভাইয়ের মধ্যে অশান্তি হয়। সেই বচসা গড়ায় হাতাহাতিতে। সেই সময় বড় ভাই সাবিন একটা ধারালো অস্ত্র নিয়ে ছোট ভাই নবীনের উপর ঝাঁপিয়ে পড়ে বলে অভিযোগ। অস্ত্রের ঘায়ে নবীন গুরুতর জখম হন। তাঁকে স্থানীয় হাসপাতালে ভরতি করা হয়। সেখানেই মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন তিনি। এই ঘটনার বদলা নিতেই সাবিনের উপর চড়াও হয় নবীনের বন্ধুরা।

পুলিশ সূত্রে খবর, শুক্রবার তারা সাবিনকে বেধড়ক মারধর করে। সাবিনকে গাছের সঙ্গে বেঁধে মারধর করে। সেখানেই জ্ঞান হারায় সাবিন। খবর পেয়ে পুলিশ এসে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে তাঁকে মৃত ঘোষণা করা হয়। এই ঘটনার পরে লেপা নায়ক, ভয়া নায়ক, লালা নায়ক ও মহেশ গৌর নামের চার যুবককে আটক করেছে পুলিশ। শুরু হয়েছে তদন্ত।

[আরও পড়ুন : কাশ্মীরে সন্ত্রাসদমন অভিযানে নিকেশ আরও ৩ জঙ্গি, শহিদ এক পুলিশকর্মী]

শনিবার আরও একটি গণপিটুনির ঘটনা ঘটেছে বঙ্গাইগাঁও শহরের দেবনগাওঁ এলাকায়। নেশার ঘোরে মাজেন নাথ নামের এক ব্যক্তি কমলেশ্বর নাথ নামের আরেক ব্যক্তির বাড়িতে ঢুকে ঘুমিয়ে পড়েন। এক মহিলা তাঁকে শুয়ে থাকতে দেখে দরজা বন্ধ করে প্রতিবেশীদের খবর দেন। সবাই মিলে চোর সন্দেহে মারধর শুরু করেন মাজেনকে। যদিও ঘটনার খবর পেয়ে সঙ্গে সঙ্গে স্থানীয় বৈতামারি থানার পুলিশ তাঁকে উদ্ধার করেন। হাসপাতালে ভরতি করা হয় তাঁকে। পুলিশ জানিয়েছে, প্রায় সবসময়ই নেশার ঘোরে থাকেন মাজেন। তাই কমলেশ্বর নাথের বাড়ির দরজা খোলা পেয়ে তিনি ভিতরে ঢুকে ঘুমিয়ে পড়েন। চুরি করতে যাননি তিনি।

[আরও পড়ুন : Paytm-এর মাধ্যমে কোটি কোটি টাকার লেনদেন, দিল্লিতে বড়সড় চিনা বেটিং চক্রের হদিশ]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement