২৫ কার্তিক  ১৪২৬  মঙ্গলবার ১২ নভেম্বর ২০১৯ 

BREAKING NEWS

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

২৫ কার্তিক  ১৪২৬  মঙ্গলবার ১২ নভেম্বর ২০১৯ 

BREAKING NEWS

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: আইএনএক্স মিডিয়া মামলায় আরও বিপাকে প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী পি চিদম্বরম। তাঁর গ্রেপ্তারিতে নিষেধাজ্ঞা তুলে দিল দিল্লি হাই কোর্ট। এর ফলে যে কোনও সময় তাঁকে গ্রেপ্তার করতে পারবে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা সিবিআই বা এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট।

এবছরের জুলাই মাসে আইএনএক্স মিডিয়া মামলায় প্রাক্তন অর্থমন্ত্রীর গ্রেপ্তারির উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে তাঁকে রক্ষাকবচ দিয়েছিল দিল্লি হাই কোর্ট। যা মঙ্গলবার খারিজ হয়ে গেল। মঙ্গলবার চিদম্বরমের করা আগাম জামিনের আবেদন খারিজ করে দেন দিল্লি হাই কোর্টের বিচারপতি সুনীল গৌর।যদিও, হাই কোর্টের এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে আবেদন করেছেন চিদম্বরম।

[আরও পড়ুন: ‘ভারতীয় হিসেবে আর গর্বিত নই’, ৩৭০ বিলোপ প্রসঙ্গে কেন্দ্রকে তোপ অমর্ত্য সেনের]

অর্থমন্ত্রী থাকাকালীন আইএনএক্স মিডিয়ায় প্রত্যক্ষ বিদেশি বিনিয়োগের ক্ষেত্রে বেনিয়ম করার অভিযোগ রয়েছে চিদম্বরমের বিরুদ্ধে। ২০০৭ সালে ইউপিএ জমানায় তিনি কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী থাকার সময় আইএনএক্স মিডিয়ায় ৩০৫ কোটির বিদেশি অনুদানের অনুমোদন দেওয়া হয়। আদৌ সেই অনুমোদন নিয়ম মেনে নেওয়া হয়েছে কি না, তা নিয়ে প্রশ্ন ওঠে। সেসময় প্রত্যক্ষ বিদেশি বিনিয়োগের ক্ষেত্রে অর্থমন্ত্রকের অধীনস্থ সংস্থা ফরেন ইনভেস্টমেন্ট প্রোমোশন বোর্ডের অনুমতি নিতে হত। অভিযোগ, আইএনএক্স মিডিয়ার ক্ষেত্রে প্রত্যক্ষ বিদেশি বিনিয়োগের জন্য কোনও অনুমোদন নেওয়া হয়নি।

[আরও পড়ুন: ডেবিট কার্ড বিলোপের পথে SBI, কীভাবে এটিএম থেকে টাকা তুলবেন?]

আরও মজার বিষয় হল, এই পুরো টাকাটাই নিয়ন্ত্রণ করতেন পি চিদম্বরমের ছেলে কার্তি চিদম্বরম। তাঁর বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগে তদন্ত করছে সিবিআই ও ইডি। দুই সংস্থার দাবি, বাবা-ছেলে ব্যক্তিগত স্বার্থে নিয়ম না মেনে আইএনএক্স মিডিয়ায় প্রত্যক্ষ বিদেশি বিনিয়োগের অনুমতি দিয়েছে। এই অসঙ্গতির অভিযোগ তুলে ২০১৭ সালেএফআইআর দায়ের করে সিবিআই। গতবছর অর্থ তছরুপের অভিযোগ দায়ের করে ইডিও। দুই সংস্থাই একাধিকবার চিদম্বরম ও তাঁর ছেলেকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তলব করে।

কিন্তু, প্রাক্তন অর্থমন্ত্রীর বিরুদ্ধে তদন্তে সহযোগিতা না করার অভিযোগ উঠেছে একাধিকবার। দিল্লি হাই কোর্টে শুনানি চলাকালীন সিবিআই ও ইডির আইনজীবীরা জানান, নানা অজুহাত দিয়ে জেরা এড়িয়েছেন চিদম্বরম। তাই, তাঁকে হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ প্রয়োজন। তদন্তকারীদের এই দাবি মেনে নেন বিচারপতি। এবং চিদম্বরমের গ্রেপ্তারিতে রক্ষাকবচ তুলে নেওয়া হয়।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং