Advertisement
Advertisement

মহাপরাক্রমশালী ভারতীয় সেনার সামনে কীভাবে টিকবে পাক রেঞ্জার্স?

ভারতের সামনে কতক্ষণ টিকবে পাকিস্তান?

Pakistan mere pawn in front of mammoth Indian Military build up
Published by: Sangbad Pratidin Digital
  • Posted:February 13, 2017 8:56 am
  • Updated:February 13, 2017 8:56 am

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ভারতের সঙ্গে পাকিস্তানের দ্বৈরথ নিয়ে এখন আর কোনও রাখঢাক নেই৷ পাকিস্তানের কথা মাথায় রেখেই ভারতীয় সেনাবাহিনীকে ঢেলে সাজাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি৷ আরও দামী ও মারাত্মক সমরাস্ত্র, প্রযুক্তির আমদানি, সেনাবাহিনীতে আরও দক্ষ মানবসম্পদ নিয়োগ, ইসরো-র প্রযুক্তি ব্যবহার করে অসামরিক ক্ষেত্রে নজরদারি- সবই বাস্তবে ঘটছে৷ স্বাভাবিকভাবেই এই পরিস্থিতিতে যথেষ্ট চাপে ইসলামাবাদ৷ কিন্তু এই উদ্বেগ তাদের যেন দিশেহারা করে দিয়েছে৷ গত শনিবার পাক প্রধানমন্ত্রীর বিদেশনীতি সংক্রান্ত ব্যক্তিগত উপদেষ্টা সরতাজ আজিজ ভারত মহাসাগরে নয়াদিল্লির পরমাণুকরণ নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন৷ কিন্তু তিনি জানেন না, ভারতীয় সেনার আধুনিকীকরণের মাত্র একটা অংশই তিনি দেখেছেন৷

(জীবন বাজি রেখে কীভাবে শত্রুশিবিরে সার্জিক্যাল স্ট্রাইক করেছিলেন জওয়ানরা?)

army-tank_web

Advertisement

এই মুহূর্তে ৩৬৭ বিলিয়ন ডলার বাজেট বরাদ্দ হয়েছে ভারতীয় সেনার জন্য৷ এর পাশাপাশি, বৈজ্ঞানিক ও প্রযুক্তিগত সাহায্যের জন্যও তৈরি হচ্ছে বিশেষ থিঙ্কট্যাঙ্ক৷ এখনই অন্তত ২০০টি মার্কিন এফ-১৬ বা সুইডিশ গ্রিপেন ই ফাইটার জেট কেনার জন্য পর্যাপ্ত অর্থ মজুত রয়েছে বায়ুসেনার ভাঁড়ারে৷ যদি মার্কিন সংস্থা লকহিড মার্টিন বা সুইস প্রতিরক্ষা সংস্থা ‘সাব’ ভারতের সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে যুদ্ধবিমান তৈরিতে রাজি হয়৷ একইসঙ্গে সম্পূর্ণ দেশীয় প্রযুক্তিতে তৈরি ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণেও সাফল্যের মুখ দেখেছে ভারত৷ এই সব দিকেই ইসলামাবাদকে দশ গোল দিতে পারে নয়াদিল্লি৷ আর এই সবই সম্ভব হয়ে হয়েছে কারণ গত তিন বছরের দেশের অর্থনীতি বহুগুণ এগিয়ে গিয়েছে৷ জাতীয় অর্থনীতির বৃদ্ধির হার ৭.৩ থেকে ৮.৪-এর মধ্যে ঘোরাফেরা করছে৷ তুলনায় পাকিস্তানের আর্থিক বৃদ্ধির হার একেবারেই নগণ্য, ৩.৬৫ থেকে ৪.২৫ এর মধ্যে৷

Advertisement

(যুদ্ধকালীন তৎপরতায় ২০,০০০ কোটি টাকার গোলাবারুদ পাচ্ছে সেনা)

modi-secuirity_web

কিন্তু এই সব তথ্য ও পরিসংখ্যানের পাশাপাশি আরও একটি বিষয় রয়েছে৷ শত্রুর বিরুদ্ধে সবচেয়ে বড় শক্তি হল দেশের অভ্যন্তরীণ সংহতি৷ শত্রুর বোমা দেশের পরিকাঠামো নষ্ট করতে পারে, কিন্তু দেশবাসীর মনোবল নয়৷ দেশের বৈজ্ঞানিক, ইঞ্জিনিয়ার ও প্রযুক্তিবিদদের সাহায্যে ছাইয়ের মধ্যে থেকেও ফিনিক্সের মতো কোনও দেশ জন্ম নিতে পারে যার উৎকৃষ্ট উদাহরণ হল জাপান৷ সেই দিক থেকেও ভারতের দিক থেকে ঢের পিছিয়ে পাকিস্তান৷ পাকিস্তানের শিক্ষাব্যবস্থার হাল মর্মান্তিক৷ তাই শুধু অস্ত্রে বিনিয়োগ না করে শিক্ষাব্যবস্থা ও মানবসম্পদ উন্নয়নেও বিশেষ নজর দিতে হবে ইসলামাবাদকে৷

(শ্রীলঙ্কার বন্দরে চিনা সেনাকে রুখে দেব, মোদিকে আশ্বাস সিরিসেনার)

sokhoi_web

(কীভাবে সীমান্তের ওপারে সার্জিকাল স্ট্রাইক করেছিল ভারতীয় সেনা?)

Sangbad Pratidin News App

খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ