BREAKING NEWS

১২ কার্তিক  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ২৯ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

করোনা যুদ্ধের পুরস্কার, ফুল ছুঁড়ে হাততালি দিয়ে পুলিশকর্মীদের কুর্নিশ আমজনতার

Published by: Sayani Sen |    Posted: April 8, 2020 12:41 pm|    Updated: April 8, 2020 9:37 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: করোনা সংক্রমণ রুখতে দেশজুড়ে জারি রয়েছে লকডাউন। সকলকে বাড়িতে থাকার কথা বলা হচ্ছে। তবে বিপদের আশঙ্কা থাকা সত্ত্বেও সামনের সারিতে দাঁড়িয়ে ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে পুলিশ। অক্লান্ত পরিশ্রম করছেন তাঁরা। এমনই যোদ্ধাদের গায়ে ফুল ছুঁড়ে কুর্নিশ জানালেন স্থানীয় বাসিন্দারা।

নাগপুরের গিট্টিখাদান এলাকায় ডেপুটি পুলিশ কমিশনার বিনীতা সাহুর নেতৃত্বে পুলিশ কর্মীরা টহল দিচ্ছিলেন। অন্তত ৬০ জন পুলিশকর্মী সেই দলে ছিলেন। লকডাউনে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার জন্য মাইকে ঘোষণা করছিলেন পুলিশকর্মীরা। এছাড়াও সাধারণ মানুষকে মাস্ক পরার আবেদন জানাচ্ছিলেন তাঁরা। সেই সময় বাড়ির ছাদ কিংবা ব্যালকনি থেকে দাঁড়িয়ে পুলিশকর্মীদের মাথায় ফুল ছোঁড়েন স্থানীয় বাসিন্দারা। পুলিশকর্মীদের ধন্যবাদ জানাতে হাততালিও দেন তাঁরা।
 
সম্প্রতি নাগপুর সিটি পুলিশ এই ভিডিওটি শেয়ার করেছে। তাঁদের ভিডিওর ভিউয়ার সংখ্যা বাড়ছে হু হু করে। বইছে লাইক, কমেন্টের বন্যা। পুলিশকর্মীরা যেভাবে অক্লান্ত পরিশ্রম করছেন, সে কারণে নেটিজেনরা তাঁদের ধন্য ধন্য করছে। অনেকেই পুলিশকর্মীদের ‘প্রকৃত নায়ক’ বলেও টুইটে উল্লেখ করেছেন। 

[আরও পড়ুন: ‘নার্স-ডাক্তাররাই আসল হিরো’, হাসপাতালের বেড থেকে জানালেন করোনা আক্রান্ত অভিনেত্রী জোয়া]

এদিকে, প্রশংসা শুনে আপ্লুত পুলিশকর্মীরাও। সাধারণ মানুষ বিপদের দিনেও যে তাঁদের এভাবে অভিবাদন জানিয়েছে, তাতেই বেজায় খুশি আইনের উর্দিধারীরা। দায়িত্বজ্ঞানসম্পন্ন নাগরিকদের কাছ থেকে পাওয়া পুষ্পবৃষ্টি আর হাততালিই যেন অক্সিজেন জোগাচ্ছে তাঁদের।

আইনের রক্ষাকারীদের বিরুদ্ধে বারবার নানা অভিযোগ ওঠে। কখনও অত্যাচারী হিসাবে কেউ কেউ সংবাদ শিরোনামে জায়গাও করে নেন। তবে করোনা ভাইরাসের আবহেও বহু জায়গাতেই অন্নদাতা হিসাবে মানবিকতার পরিচয় দিয়েছেন সেই উর্দিধারীরাই। বিপদের দিনে খাবার, ওষুধ নিয়ে সকলের পাশে এগিয়ে এসেছেন তাঁরা। বারবার সাধারণ মানুষকে বোঝাচ্ছেন লকডাউনের প্রয়োজনীয়তা। রোগ সংক্রমণের আশঙ্কা নিয়েও একেবারে প্রথম সারিতে এসে লড়াই চালিয়েছেন তিনি। তাই তাঁদের কুর্নিশ জানিয়েছেন প্রায় সকলেই।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement