BREAKING NEWS

৭ আশ্বিন  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

অধিকৃত কাশ্মীরে ডাক্তারি পড়ে ভারতে চিকিৎসা করা যাবে না, ঘোষণা মেডিক্যাল কাউন্সিলের

Published by: Monishankar Choudhury |    Posted: August 12, 2020 7:22 pm|    Updated: August 12, 2020 7:22 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: পাক অধিকৃত কাশ্মীর ও লাদাখ থেকে ডাক্তারি পাশ করে ভারতে চিকিৎসা করা যাবে না। নয়া নির্দেশিকা জারি করে সাফ জানিয়ে দিল মেডিক্যাল কাউন্সিল অফ ইন্ডিয়া।

[আরও পড়ুন: বেঙ্গালুরু হিংসার নেপথ্যে মৌলবাদী সংগঠন PFI! প্রকাশ্যে চাঞ্চল্যকর তথ্য]

গত সোমবার অর্থাৎ ১০ আগস্ট একটি সার্কুলার জারি করে কাউন্সিল জানায়, কেন্দ্রশাসিত জম্মু-কাশ্মীর ও লাদাখ ভারতের অবিচ্ছিন্ন অঙ্গ। সম্পূর্ণ বেআইনিভাবে ভারতের ওই অংশের কিছুটা  দখল করে রেখেছে পাকিস্তান। আইনমতে কোনও মেডিক্যাল কলেজ স্থাপন করতে চাইলে ইন্ডিয়ান মেডিকয়াল কাউন্সিল অ্যাক্ট, ১৯৫৬ মেনে আগাম অনুমতি নিতে হয়। যেহেতু পাক অধিকৃত কাশ্মীর ও লাদাখের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলিকে তেমন কোন অনুমতি দেওয়া হয়নি, তাই সেখান থেকে পাশ করলেও ভারতে ডাক্তারি করার অনুমতি দেওয়া হবে না কোনও পড়ুয়াকে।

বিশ্লেষকদের মতে, পাকিস্তানকে নজরে রেখেই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে নয়াদিল্লি। বলে রাখা ভাল, জম্মু-কাশ্মীরের ডাক্তারি পড়ুয়াদের কাছে পাকিস্তানের মেডিক্যাল কলেজগুলির চাহিদা বিস্তর। প্রতিযোগিতার দরুন ভারতে জায়গা না পেলে পাক অধিকৃত কাশ্মীর, লাহোর, করাচি ও ইসলামাবাদের কলেজগুলির উদ্দেশে পাড়ি দেয় পড়ুয়ারা। শুধু তাই নয়, ওই কলেজগুলিতে কাশ্মীরি পড়ুয়াদের আসন সংরক্ষণ করে রাখে পাক সরকার। পড়ুয়া টানতে হুরিয়ত কনফারেন্সকে কাজে লাগায় ইসলামাবাদ। কাশ্মীরে নিজের প্রভাব বিস্তার ও সন্ত্রাসবাদী কার্যকলাপ বাড়িয়ে তুলতেই এই কাজ করে এসেছে পাক সরকার।

সম্প্রতি পাকিস্তানকে ধাক্কা দিয়ে হুরিয়ত কনফারেন্সের আজীবন সভাপতির পদ ত্যাগ করেছেন সৈয়দ আলি শাহ গিলানি। তাৎপর্যপূর্ণভাবে, গিলানির অভিযোগ, হুরিয়তের একাংশের অতি পাকপ্রীতির জন্যই এই পদক্ষেপ করেছেন তিনি। এছাড়াও, পাক মেডিক্যাল কলেজে আসন নিয়ে প্রচুর দুর্নীতি রয়েছে সংগঠনটির মধ্যে বলেও দাবি করেছেন তিনি। নিয়তির পরিহাস, পাকিস্তানের হাত ধরেই হুরিয়তের সফর। সেক্ষেত্রে গিলানির মোহভঙ্গ ইসলামাবাদের জন্য বড় ধাক্কা বলেই মনে করছেন বিশ্লেষকরা।

[আরও পড়ুন: ‘মোদি থাকলে সবই সম্ভব’, এবার বলছেন রাহুল গান্ধীও, কেন জানেন?]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement